করোনা আতঙ্কে মেয়ের অন্নপ্রাশন অনুষ্ঠান বাতিল করলেন রায়গঞ্জের শিক্ষক

করোনা আতঙ্কে মেয়ের অন্নপ্রাশন অনুষ্ঠান বাতিল করলেন রায়গঞ্জের শিক্ষক

মূলত অত্যাধিক জমায়েতকে এড়ানোর জন্যই তাঁর এই সিদ্ধান্ত বলে জানিয়েছেন সুকান্তবাবু ।

  • Share this:

#রায়গঞ্জ: নোভেল করোনা ভাইরাসের আতঙ্কের কারণে মেয়ের অন্নপ্রাশন বাতিল করে দিলেন রায়গঞ্জ ব্লকের পদ্মপুকুর গ্রামের বাসিন্দা শিক্ষক সুকান্ত ঘোষ। মূলত অত্যাধিক জমায়েতকে এড়ানোর জন্যই তাঁর এই সিদ্ধান্ত বলে জানিয়েছেন সুকান্তবাবু ।পরিবেশকর্মী চন্দ্র নারায়ন সাহা সুভাষবাবুর এই ভূমিকার প্রশংসা করেছেন।

জন্মদিন মানে লোক সমাগম।হই হুল্লড়। এক সাথে মিলিত হয়ে আনন্দ করা। সুকান্তবাবু একমাত্র কন্যা সন্তান সুজনীর অন্নপ্রাশন। মানে তাকে নিয়েই সবাই আনন্দ মেতে উঠবেন। কিন্তু চিকিৎসা বিজ্ঞান জানিয়েছে  শিশু এবং ষাঠোর্ধ্ব বৃদ্ধ এবং বৃদ্ধাদের জন্য এই ভাইরাস বিপদজ্জনক।

সুকান্তবাবু পেশায় উচ্চমাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক। তার একমাত্র সন্তানের অন্নপ্রাশন মানে মহাধুমধামে পালিত হবে এটাই স্বাভাবিক।চারমাস আগে থেকে প্রস্তুতি শুরু করেছেন। নিমন্ত্রিতদের তালিকাও বেশ বড়সড়।

আগামী ২৯ মার্চ অনুষ্ঠান। অন্নপ্রাশনের আমন্ত্রনপত্র থেকে শুরু অনুষ্ঠানের আনুসাঙ্গিক বায়নানামা সম্পন্ন। কিন্তু পৃথিবী জুড়ে করোনা ভাইরাসের মত এই মারন জীবানু দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। সরকার বড় জমায়েত, অনুষ্ঠান-সহ প্রায় সব কিছুই বন্ধ রাখার অনুরোধ জানিয়েছে। মেয়ের অন্নপ্রাশন হলে ছোট্ট শিশুকে নিয়ে সবাই আনন্দে মেতে উঠবেন। সেক্ষেত্রে তার জীবন সংশয় হতে পারে। সেদিকে লক্ষ্য রেখে আর্থিক ক্ষতিকে ক্ষতি মনে না করে নিজের একমাত্র সন্তানের ভবিষ্যতের প্রতি লক্ষ্য রেখেই অন্নপ্রাশন অনুষ্ঠান বন্ধ করে দিলেন সুকান্তবাবু।একমাত্র কন্যার অন্নপ্রশাসন। মায়ের কাছে একটা আলাদা একটা অনুভূতি।সেই অন্নপ্রাশন অনুষ্ঠান বন্ধ করার সিদ্ধান্ত কিছুটা খারাপ লাগলেও মেয়ের ভবিষ্যতের কথা ভেবেই এই  সিদ্ধান্তকে মেনে নিয়েছেন ছোট্ট সুজনীর মা সানন্দা শ্যাম ঘোষ।

সুকান্তবাবুর এই সিদ্ধান্তে উচ্ছসিত পরিবেশ কর্মি চন্দ্র নারায়ন সাহা।তিনি জানিয়েছেন  করোনা ভাইরাসের মত বিপদজ্জনক ভাইরাসকে ঠেকাতে আমদের সবাই মিলে লড়াই চালাতে হবে। তিনি মনে করেন হাতে যে  মোবাইল থাকে সেই মোবাইলটা কাজ না করলে আমরা  সুইচ অফ করে দেই। আবার কিছুক্ষন পর অন করি। তখন দেখা যায় মোবাইলটা ঠিক মত কাজ করছে। আমরাও যদি এক বা দুই দিন নিজেদের সামাজিক কাঠামো থেকে অফ করে রাখতে পারি তবে করোনা ভাইরাসের চেনটা ব্রেক হয়ে যেতে পারে। বিয়ে, অন্নপ্রাশনের মতো একটা অনুষ্ঠান কেউ বন্ধ করে দিচ্ছেন,কেউ আবার পিছিয়ে দিচ্ছেন। এধরনের অনুষ্ঠান  প্রত্যেকের কাছে একটা অনুভূতি। প্রত্যেকেই ভাল করে প্রতিপালন করতে চায়। তারা যখন এত বড় অনুষ্ঠান বন্ধ করে বা পিছিয়ে দিতে পারেন সেটা সমাজের ক্ষেত্রে মঙ্গলজনক। যে ব্যক্তি এত বড় সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তাকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন পরিবেশ কর্মী চন্দ্রনারায়নবাবু।

First published: March 22, 2020, 8:47 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर