Home /News /coronavirus-latest-news /
ভারত বা পশ্চিমবঙ্গে করোনা সংক্রমণ এখনও দ্বিতীয় পর্যায়, তৃতীয় পর্যায় পৌঁছনো ঠেকিয়ে রাখাই কাজ

ভারত বা পশ্চিমবঙ্গে করোনা সংক্রমণ এখনও দ্বিতীয় পর্যায়, তৃতীয় পর্যায় পৌঁছনো ঠেকিয়ে রাখাই কাজ

ক্লাস্টার A-এর মধ্যে ভারতে পাওয়া করোনা ভাইরাসের নমুনার সঙ্গে ওশানিয়া (অস্ট্রেলিয়া এবং তার সংলগ্ন দেশগুলি), কুয়েত এবং দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলিতে পাওয়া করোনা ভাইরাসের মিল রয়েছে৷

ক্লাস্টার A-এর মধ্যে ভারতে পাওয়া করোনা ভাইরাসের নমুনার সঙ্গে ওশানিয়া (অস্ট্রেলিয়া এবং তার সংলগ্ন দেশগুলি), কুয়েত এবং দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলিতে পাওয়া করোনা ভাইরাসের মিল রয়েছে৷

তৃতীয় পর্যায় গেলেই মহাবিপদ...

  • Share this:

    #কলকাতা: আতঙ্ক রোজ বেড়েই চলেছে করোনা নিয়ে ৷ গোটা বিশ্বই প্রায় স্তব্দ হয়ে পড়েছে ৷ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়েছে ৷ অন্যদিকে ভারতে এই মুহূর্তে আক্রান্তের সংখ্যা ২২৩ জন ৷ এর মধ্যে ১৯১ জন ভারতীয় ৩২ জন বিদেশি। কর্নাটক, দিল্লি, মুম্বই, পঞ্জাবের পর এবার রাজস্থান। জয়পুর হাসপাতালে ৬৯ বছরের ইতালীয় বৃদ্ধার মৃত্যু। ভারতে করোনায় মৃত বেড়ে ৫। ইতিমধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিলেছেন ২০ জন।

    অন্যদিকে কলকাতায় দ্বিতীয় করোনা আক্রান্তের হদিশ। রাজ্যে করোনা আক্রান্ত বেড়ে ৩। ভারতে, বিশেষত পশ্চিমবঙ্গে আমরা এখনও সংক্রমণের দ্বিতীয় পর্যায়ে আছি বলে মনে হচ্ছে। আমেরিকার বা ইউরোপের মতো তৃতীয় পর্যায়ে গেলে ভারতের মত জনবহুল, ঘনবসতির দেশে এই ‘সমাজবিরুদ্ধ’ সামাজিক ব্যবস্থা চালু করা যে বেশ শক্ত হবে, তা বলাই বাহূল্য। কিন্তু এক বার সংক্রমণ তৃতীয় পর্যায়ে পৌঁছলে তখন পরিস্থিতি ভয়াবহ হয়ে উঠবে। কাজেই বর্তমানে উচিৎ করোনাকে দ্বিতীয় পর্যায়ে রুখে দেওয়া। মুখ্যমন্ত্রীর মতে, করোনা সংক্রমণের এই সময়ে বিদেশ থেকে কলকাতায় এসেছেন ৯৫ হাজার মানুষ। এঁদের অনেকেই এসেছেন ব্রিটেন, ইটালি, স্পেন, চিন বা পশ্চিম এশিয়া থেকে। কলকাতার প্রথম দু’জন করোনা-আক্রান্ত বিলেত থেকে ফিরেছিলেন।

    মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিদেশ-ফেরত নাগরিকদের উদ্দেশে বলেন, ‘‘দায়িত্বশীল হোন। যাঁরা ফিরেছেন, তাঁরা ১৪ দিন বাড়িতে থাকুন। কয়েক দিন বাড়িতে থাকলে কোনও সমস্যা হওয়ার কথা নয়। নিজে বাঁচুন, পরিবারকে বাঁচান। তাতে রাজ্য বাঁচবে। রাজ্য বাঁচলে দেশ বাঁচবে।’’

    First published:

    Tags: Coronavirus

    পরবর্তী খবর