corona virus btn
corona virus btn
Loading

রেকর্ড আক্রান্ত! ২৪ ঘণ্টায় শিলিগুড়িতে করোনা আক্রান্ত ৫১, কড়া লকডাউনের দাবিতে সরব শহরবাসী

রেকর্ড আক্রান্ত! ২৪ ঘণ্টায় শিলিগুড়িতে করোনা আক্রান্ত ৫১, কড়া লকডাউনের দাবিতে সরব শহরবাসী
প্রতীকী ছবি

মারণ করোনা থাবা বসিয়েছে দার্জিলিং জেলা হাসপাতালে। আক্রান্ত এক শিশু বিশেষজ্ঞ মহিলা চিকিৎসক।

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: আগের সব রেকর্ডকে ছাপিয়ে গেল সোমবার! একদিনে সর্বাধিক আক্রান্তের রেকর্ড হল আজ। পাহাড় ও সমতল মিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা ৫১!

মারণ করোনা এবারে থাবা বসালো দার্জিলিং জেলা হাসপাতালে। আক্রান্ত এক শিশু বিশেষজ্ঞ মহিলা চিকিৎসক। সম্প্রতি তিনি কলকাতা থেকে ফিরেছিলেন। মারণ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বিহার ফেরত আরও এক ব্যক্তি। নকশালবাড়ি, ফাঁসিদেওয়ায় আক্রান্ত ১ জন করে। এই প্রথম সুকনায় এক আক্রান্তের খোঁজ মিলেছে। বাকি ৪৬ জন আক্রান্ত শিলিগুড়ি পুর এলাকার বাসিন্দা। স্বাভাবিকভাবেই বাড়ছে উৎকণ্ঠা, উদ্বেগ।

পরিসংখ্যান অনুযায়ী, শেষ ৬ দিনে পাহাড় ও সমতল মিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা গিয়ে দাঁড়ালো ১৯৭ জন। যেখানে প্রথম ১০০ জন আক্রান্ত হয়েছিলেন ৭৫ দিনে। তারপর ৫০, ৪০, ৩০, ২০, ১০ হয়ে এখন মাত্র ৩ দিনেই ১০০ জন আক্রান্ত হচ্ছেন। করোনা চিকিৎসায় উত্তরের ভারপ্রাপ্ত স্বাস্থ্য কর্তা সুশান্ত রায়ের দাবি, 'প্রাইমারি কনট্যাক্ট', যা নিয়ে শহরবাসী চিন্তিত। একটা বড় অংশের মানুষ ফের শিলিগুড়িতে কড়া লকডাউনের পক্ষে সওয়াল করে সোশ্যাল মিডিয়ায় সরব হয়েছেন। এছাড়া বিকল্প পথ খোলা নেই বলে দাবী তাঁদের।

কিন্তু জেলা প্রশাসন সে পথে এগোচ্ছে না। কনটেইনমেন্ট জোনের সংখ্যা বাড়ানো হচ্ছে বলে জানিয়েছেন জেলাশাসক এস পুন্নমবালাম। কিন্তু এতেও সমাধান হচ্ছে না বলে দাবী স্থানীয়দের। শহরের একাধিক বাজার বন্ধ। মঙ্গলবার থেকে বন্ধ হচ্ছে ফুলেশ্বরী বাজার। টানা ৮ দিন বন্ধ থাকবে। এ নিয়ে শহর ও লাগোয়া এলাকায় ৯টি বাজার বন্ধ। তবে খোলা থাকবে রেগুলেটেড মার্কেট। আর ওই ওয়ার্ডেই আক্রান্তের সংখ্যা সর্বাধিক। আজও পুরসভার ৪৬ নম্বর ওয়ার্ডে ৯ আক্রান্তের খোঁজ মিলেছে।

এদিকে সোমবারও অনেকেই সুস্থ হয়ে উঠেছেন। এ দিন ২০ জন আক্রান্ত সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। তবে আবার উলটো দিকে শহরে ২ আক্রান্তের মৃত্যুও হয়েছে। ২ জনই পুরসভা এলাকার বাসিন্দা। এ নিয়ে শিলিগুড়ি ও লাগোয়া এলাকায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ২৬।

Partha Sarkar

Published by: Shubhagata Dey
First published: July 6, 2020, 10:39 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर