corona virus btn
corona virus btn
Loading

নতুন করে আক্রান্ত আরও ১৫! পূর্ব বর্ধমানে উদ্বেগজনকভাবে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ

নতুন করে আক্রান্ত আরও ১৫! পূর্ব বর্ধমানে উদ্বেগজনকভাবে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ

করোনার সংক্রমণ বাড়তে থাকায় আতঙ্কিত জেলার বাসিন্দারা। করোনার সংক্রমন বৃদ্ধির কারণে উদ্বেগে রয়েছে জেলা প্রশাসনও।

  • Share this:

#বর্ধমান: পূর্ব বর্ধমান জেলায় উদ্বেগজনক ভাবে বেড়েই চলেছে করোনার সংক্রমণ। লাফিয়ে লাফিয়ে করোনার সংক্রমণ বাড়তে থাকায় আতঙ্কিত জেলার বাসিন্দারা। করোনার সংক্রমন বৃদ্ধির কারণে উদ্বেগে রয়েছে জেলা প্রশাসনও। গত কয়েকদিন ধরেই সরাসরি সব রকমের বৈঠক বন্ধ রেখেছে পূর্ব বর্ধমান জেলা প্রশাসন। খুব প্রয়োজনে অন্যান্য আধিকারিকদের সঙ্গে এখন শুধুমাত্র ভিডিও কনফারেন্স মাধ্যমে বৈঠক করছেন জেলাশাসক বিজয় ভারতী। এসব দেখে চিহ্নিত জেলার সরকারি অফিসের কর্মীরাও। সব মিলিয়ে করোনার সংক্রমণে ভয়ে কাঁটা হয়ে রয়েছেন জেলার বাসিন্দারা।

গত চব্বিশ ঘন্টায় পূর্ব বর্ধমান জেলায় নতুন করে পনের জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এই নিয়ে পূর্ব বর্ধমান জেলায় ২৭৭ জন বাসিন্দা করোনা আক্রান্ত হলেন। এদের মধ্যে ৭১ জন আক্রান্তকে বর্ধমানের করোনা হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা চালানো হচ্ছে।  ২০৫ জন করোনা হাসপাতালে চিকিৎসার পর ইতিমধ্যেই সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। এখন পর্যন্ত এই জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে।

নতুন করে যে পনেরো জন আক্রান্ত হয়েছেন তার মধ্যে তিন জন বর্ধমান পৌরসভা এলাকার বাসিন্দা। এছাড়া কালনা পুরসভা এলাকাতেও নতুন করে একজন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এর বাইরে বর্ধমান এক নম্বর ব্লকে নতুন করে দুজন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। পূর্বস্থলী দু'নম্বর ব্লক এবং খণ্ডঘোষ ব্লকেও দুজন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এছাড়া কাটোয়া এক নম্বর ব্লক, মঙ্গলকোট ব্লক, রায়নাএক নম্বর ব্লক, কেতুগ্রাম এক নম্বর ব্লক, মেমারি এক নম্বর ব্লকে একজন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।

জেলা স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, অনেকের মধ্যেই জ্বর, সর্দি, শ্বাসকষ্ট-সহ করোনার নানান উপসর্গ দেখা দিচ্ছে। তাদের অনেকেই বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, কালনা মহকুমা হাসপাতাল ও কাটোয়া মহকুমা হাসপাতালে লালারসের নমুনা জমা দিচ্ছেন। এখন শুধু বর্ধমান মেডিকেল কলেজেই করোনা পরীক্ষা হচ্ছে। নতুন করে আক্রান্তদের সংস্পর্শে যাঁরা এসেছেন তাঁদের তালিকা তৈরি করা হচ্ছে। তাঁদের সকলকে কোয়ারেন্টাইনে রেখে তাঁদের লালারসের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। আক্রান্তদের ইতিমধ্যেই বাড়ি থেকে করোনা হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

Saradindu Ghosh

Published by: Shubhagata Dey
First published: July 16, 2020, 5:22 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर