করোনা ভাইরাস

corona virus btn
corona virus btn
Loading

যাক বাবা! উপসর্গহীন কোভিড-আক্রান্ত শিশুদের সংক্রমণ গুরুতর নয়, বলছে সমীক্ষা

যাক বাবা! উপসর্গহীন কোভিড-আক্রান্ত শিশুদের সংক্রমণ গুরুতর নয়, বলছে সমীক্ষা
প্রতীকী চিত্র।

ক্লিনিক্যাল বায়োলজি জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে গবেষণাটি। ৮০০টি শিশুর সংক্রমণের নমুনা নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর এই সিদ্ধান্তে এসেছেন চিকিৎসকেরা।

  • Share this:

দুনিয়া জুড়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। তবে করোনা যে সবাইকেই একই রকম কাবু করে ফেলছে, এমনটা নয়। বরং উপসর্গহীন আক্রান্তেরা অনেক সময় কিছুই টের পাচ্ছেন না। সম্প্রতি এক সমীক্ষায় উঠে এসেছে এই নতুন তথ্য যে উপসর্গহীন শিশুদের সংক্রমণ হলেও তা তেমন মারাত্মক হয় না। ক্লিনিক্যাল বায়োলজি জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে গবেষণাটি। ৮০০টি শিশুর সংক্রমণের নমুনা নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর এই সিদ্ধান্তে এসেছেন চিকিৎসকেরা।

গবেষক ল্যারি ক্যাসিওলেক বলেছেন যে, উপসর্গহীন শিশুরা স্কুল যেতেই পারে, তবে মাস্ক পরে থাকা বাধ্যতামূলক। ঘনঘন হাতও ধুতে হবে। বিজ্ঞানীরা বলছেন, কোন শিশুর শরীরে বেশি ভাইরাস ঢুকেছে, কোন শিশুর শরীরে কম, তা বোঝা মুশকিল। উপসর্গহীন এমন অনেক শিশু রয়েছে যাদের শরীরে বেশি ভাইরাস আক্রমণ করেছে।

উপসর্গ নেই এমন শিশুদের ডায়াবেটিস থাকলে কিন্তু বেশি ভাইরাস আক্রমণের আশঙ্কা। তবে উপসর্গযুক্ত কোভিড-আক্রান্ত শিশুদের শরীরে বেশি করোনা ভাইরাস প্রবেশ করেছে, সেটি স্পষ্ট।

এই প্রসঙ্গে জেনে রাখা ভালো কারা উপসর্গহীন?

বিশেষজ্ঞদের মতে, যাঁদের কফ, শ্বাসকষ্ট, পেশি-সহ শরীরের বিভিন্ন অঙ্গে ব্যথা, ক্লান্তি, মাথার যন্ত্রণা, গলাজ্বালা, স্বাদ ও গন্ধহীনতা ইত্যাদি নেই, তাঁরাই উপসর্গহীন। উপসর্গহীন আক্রান্তদের থেকে কোভিড ছড়াতে পারে, কিন্তু তার সম্ভাবনা প্রবল সর্দিকাশি রয়েছে যাঁদের, তাঁদের তুলনায় কম। উপসর্গহীনদের তেমন কোনও চিকিৎসার দরকার নেই। অন্য দিকে, মৃদু উপসর্গযুক্ত কোভিড-আক্রান্তদের ক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ, বাড়িতে থাকার পাশাপাশি ঘরোয়া চিকিৎসা এবং ডাক্তারদের পরামর্শ নেওয়া।

উপসর্গহীনদের হোম আইসোলেশনের জন্য বাড়িতে কী কী ব্যবস্থা রাখা উচিত?

১. সর্বক্ষণের জন্য একজন ‘কেয়ারগিভার’ রাখা জরুরি৷ অক্সিজেনের ব্যবস্থা রাখতে হবে। থাকতে হবে পালস অক্সিমিটার, ডিজিটাল থার্মোমিটার, পিপিই।

২. হোম আইসোলেশন কেবলমাত্র ৫০ বছরের কম বয়সীদের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য। গর্ভবতী মহিলাদের কোনও ভাবেই হোম আইসোলেশনে রাখা যাবে না।

৩. কোমরবিডিটি রয়েছে, এমন কোভিড-আক্রান্তরা কি হোম আইসোলেশনে থাকতে পারেন? যে কোভিড-আক্রান্তদের হাইপারটেনশন, ডায়াবেটিস, ওবেসিটি, থাইরয়েড রয়েছে, উপযুক্ত চিকিৎসাসহ তাঁদের পক্ষে হোম আইসোলেশনে থাকা সম্ভব। কিন্তু ক্যান্সার, কিডনির সমস্যা, হার্টের রোগ, এইচআইভি পজিটিভ, যক্ষায় ভুগছেন, এমন কোভিড-আক্রান্তদের হোম আইসোলেশনে রাখা যাবে না।

আত্মীয়স্বজন ও পড়শিরা কী করবেন?

হোম আইসোলেশনে থাকা কোভিড আক্রান্তের সঙ্গে দেখা করতে কেউ আসতে পারবেন না। কিন্তু রোগীকে আনন্দে রাখা, সাহস দেওয়ার কাজটা করতে পারেন আত্মীয়স্বজন এবং প্রতিবেশীরা। অকারণে আতঙ্কিত না হয়ে রোগীর পাশে থাকলে সহজেই জয় করা যাবে কোভিড ১৯ ভাইরাসকে।

Written By: Madhumanti Chatterjee

Published by: Arka Deb
First published: October 23, 2020, 6:34 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर