Corona Horror In AP: নেই অ্যাম্বুলেন্স! করোনায় মৃত মায়ের দেহ বাইকে করে নিয়ে গেল জামাই ও ছেলে

Corona Horror In AP: নেই অ্যাম্বুলেন্স! করোনায় মৃত মায়ের দেহ বাইকে করে নিয়ে গেল জামাই ও ছেলে

করোনায় মৃতের দেহ নিয়ে যাওয়া হচ্ছে বাইকে ।

মেলেনি অ্যাম্বুলেন্স, নেই কোনও গাড়িও । তাই মায়ের মৃতদেহ বাধ্য হয়েই বাইকে বসিয়ে নিয়ে শ্মশানে গেলেন ছেলে ও জামাই ।

  • Share this:

    #শ্রীকাকুলাম: বুক ফাটা কান্না আর আর্তনাদে ভারী হয়ে উঠছে দেশের বাতাস । এই ভারতকে আমরা চিনি না । এই মৃত্যু স্তূপকে আমরা চাইনি । হৃহয় বিদারক এক একেকটা ছবি যেন বুকের ভিতর থেকে শেষ অশ্রুবিন্দুটুকুও নিগড়ে নিচ্ছে । করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে টালমাটাল করছে ভারত । চারিদিকে শুধুই হাহাকার, স্বজন হারানোর যন্ত্রণা । ভেঙে পড়া স্বাস্থ্য পরিকাঠামোর ছবিই জ্বলজ্বল করছে চারিদিকে । একটু শ্বাসবায়ুর জন্য আর্তি । যেন চোখে দেখা যায় না এ দৃশ্য । হাসপাতালে বেড নেই, পর্যাপ্ত ভ্যাক্সিন নেই, অক্সিজেনের অভাবে ছটফট করছেন সাধারণ মানুষ । শ্মশানে নিভছে না চিতার আগুন, জায়গা নেই কবরস্থানেও । দিন দিন পরিস্থিতি আরও খারাপ হচ্ছে ।

    এমনই এক দৃশ্য দেখে চমকে উঠছে দেশবাসী । ঘটনাটি অন্ধ্রপ্রদেশের শ্রীকাকুলামে । মেলেনি অ্যাম্বুলেন্স, নেই কোনও গাড়িও । তাই মায়ের মৃতদেহ বাধ্য হয়েই বাইকে বসিয়ে নিয়ে শ্মশানে গেলেন ছেলে ও জামাই । যেখানে করোনা রোগীর দেহ শেষকৃত্য করতে গেলেও সমস্ত প্রটোকল মানতে হয়, সেখানে খোলা রাস্তা দিয়ে বাইকে বসিয়েই নিয়ে যাওয়া হল সেই দেহ ।

    অন্ধ্রপ্রদেশের শ্রীকাকুলাম জেলার মাণ্ডাসা মণ্ডল গ্রামের বাসিন্দা ইনি। বয়স ৫০। গত কয়েকদিন ধরেই করোনার উপসর্গ ছিল তাঁর শরীরে । তবে করোনা পজিটিভ রিপোর্ট হাতে আসার আগেই মৃত্যু হয় তাঁর । সোমবার হাসাপাতালে ভর্তির জন্য তাঁকে নিয়ে এসেছিলেন পরিবারের লোকেরা । কিন্তু সঙ্গে রিপোর্ট না থাকায় নূন্যতম চিকিৎসাও জুটল না ওই মহিলার কপালে । শেষ পর্যন্ত মৃত্যু হয় মাণ্ডাসার । মৃতদেহ শেষকৃত্য করতে নিয়ে যাওযার জন্য গাড়িটুকুও নেই । শেষ পর্যন্ত বাইকে বসিয়েই নিয়ে গেলেন জামাই ও ছেলে!

    কিছুদিব আগে এমনই একটি দৃশ্য ভেসে এসেছিল উত্তরপ্রদেশের আগ্রা থেকে । সেখানেও শববাহী যান না পেয়ে, বাঁশের মাচা সমেত গাড়ির মাথায় বাবার মৃতদেহ দড়ি দিয়ে বেঁধে নিয়ে শ্মশানে গিয়েছিলেন ছেলে । গতকাল দেখা গিয়েছিল ঝাড়খণ্ডের এক হাসপাতালে, স্ট্রেচার বা অ্যাম্বুলেন্স কিছুই না পেয়ে এক ওয়ার্ড থেকে অন্য ওয়ার্ডে করোনা রোগীকে নিয়ে যাওয়া হল স্কুটিতে বসিয়ে । ঘটনাটি পালামউ মেদিনিরাই মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ঘটেছিল ।

    Published by:Simli Raha
    First published: