corona virus btn
corona virus btn
Loading

১৪ দিন পর রবিবার থেকে স্বাভাবিক হচ্ছে পাহাড়! খুলবে দোকান-পাট

১৪ দিন পর রবিবার থেকে স্বাভাবিক হচ্ছে পাহাড়! খুলবে দোকান-পাট

পাহাড়ের চার পুরসভা এবং সোনাদা বাজার এলাকায় লকডাউন শেষ হল আজ। জিটিএ এবং দার্জিলিং জেলা প্রশাসনের ডাকে পাহাড়ে টানা ১৪ দিনের লকডাউন চলছিল।

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: রাজ্যজুড়ে কড়া লকডাউনে অচলই রইলো শিলিগুড়ি। বন্ধ ছিল বাজার, রেগুলেটেড মার্কেট, হাট, বিভিন্ন মার্কেট, শপিং মল। রাস্তাঘাট ছিল একেবারেই শুনশান। চারপাশ খাঁ খাঁ করছিল। বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া কেউই রাস্তায় বের হননি। অহেতুক লকডাউন দেখতেও রাস্তায় বেরোনো লোকজনের সংখ্যা ছিল তুলনায় কম। আর তাই পুলিশকেও সক্রিয় হয়ে উঠতে হয়নি।

দিনভর শহরজুড়েই চলে পুলিশের নাকা তল্লাশি। বিভিন্ন পাড়ায় পাড়ায় টহল দেয় র‍্যাফ এবং সাদা পোশাকের পুলিশ। অলি গলির মুদিখানা বা অন্য সামগ্রীর দোকানেরও শাটার নামানোই ছিল। রাস্তায় দেখা যায়নি সিটি অটো বা টোটোর। তাই পুলিশকে লকডাউন মেনে চলতে বিশেষ বেগ পেতে হয়নি। যারা বেড়িয়েছিলেন পুলিশি জেরার মুখে পড়তে হয়। প্রয়োজনীয় নথি দেখিয়ে ছাড়া পেয়েছেন। নানা আছিলায় বেড়িয়ে পড়া মানুষের সংখ্যাও অনেকটাই কম ছিল আজকের লকডাউনে। এই লকডাউনই তো চাইছিল ঘরবন্দী জনতা!

বন্ধ ছিল ট্রেন চলাচলও। এনজেপি স্টেশনও ছিল শুনশান। বন্ধ ছিল বিমান ওঠা নামাও। বাগডোগরা বিমানবন্দরও ছিল ফাঁকা। কর্তব্যরত এক পুলিশ কর্মীর কথায়, সাধারণ মানুষ ধীরে ধীরে সচেতন হচ্ছে। এটা কোভিডের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ভালো দিক।

সমতলের পাশাপাশি পাহাড়ও আজ ছিল স্তব্ধ! জনমানবহীন! শৈলশহর দার্জিলিং হোক কিংবা সাদা অর্কিডের দেশ কার্শিয়ং ছিল একেবারেই নির্জনতাই মোড়া। ম্যাল বা চকবাজারে ভিড় দেখা যায়নি। চারপাশ ধু ধু করছিল। মিরিক কিংবা কালিম্পংও ছিল শুনশান। সেবক থেকে পানিঘাটা সর্বত্রই আজ ছিল নীরবতার ছবি। পাহাড়ের চার পুরসভা এবং সোনাদা বাজার এলাকায় লকডাউন শেষ হল আজ। জিটিএ এবং দার্জিলিং জেলা প্রশাসনের ডাকে পাহাড়ে টানা ১৪ দিনের লকডাউন চলছিল। জিটিএ'র চেয়ারম্যান অনীত থাপা লকডাউন মানায় পাহাড়বাসীকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। সেইসঙ্গে ঘোষণা করেছেন লকডাউনের মেয়াদ আর বাড়ছে না। অর্থাৎ কাল থেকে ফের স্বাভাবিক ছন্দে ফিরছে পাহাড়। এখন অপেক্ষা পর্যটকের। সেই আশাতেই প্রহর গুনছে পাহাড়বাসী!

Partha Pratim Sarkar

Published by: Elina Datta
First published: August 8, 2020, 11:47 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर