corona virus btn
corona virus btn
Loading

হাল চষছে মেয়েরা! শুনেই সর্বস্বান্ত কৃষকের বাড়িতে ট্রাক্টর পাঠালেন সোনু সুদ

হাল চষছে মেয়েরা! শুনেই সর্বস্বান্ত কৃষকের বাড়িতে ট্রাক্টর পাঠালেন সোনু সুদ

সোনু সুদের কথা আর কাজে ফারাক থাকে না। কাজেই সময় মতোই ট্রাক্টরটি পৌঁছেও যায় চিতোরে।

  • Share this:

#চিতোর: ভারতের এই অন্ধকার সময়ে সোনু সুদের মতো মানুষের ভূমিকা ঠিক কী তা বোঝাতে বোধহয় কোনও বিশেষণই যথাযথ নয়। স্বাভাবিক ভাবেই যে পরিমাণ সংবাদ শিরোনাম হয় তাঁকে নিয়ে, তা অনেক নামীদামি বলিউড তারকাকেও পিছনে ফেলে দেবে অবলীলাক্রমে। পরিযায়ী শ্রমিকদের রাতদিন জেগে বাড়ি ফিরিয়েছেন সোনু, হয়ে উঠেছেন তাঁদের পরমাত্মীয়, অভিভাবক। এখন তাঁর মূল চিন্তা তাঁদের গ্রাসাচ্ছাদন। আবারও একের পর এক অভিনব ঘটনা ঘটিয়ে চলেছেন তিনি যেমন আজ অন্ধ্রের চিতোর জেলার এক কৃষক পরিবারে তাঁর কল্যাণেই ট্রাক্টর গেল। সোনু চান ওই বাড়ির ছোট মেয়েরা হাল চাষ ছেড়ে লেখাপড়ায় মন দিক, জমি চষবে ট্রাক্টর।

ঘটনার সূত্রপাত দিন কয়েক আগে। চিতোরের বাসিন্দা নাগেশ্বর রাও লকডাউনের ফলে সর্বশান্ত হয়ে পড়েন। নিজের চায়ের দোকানটিও বন্ধ করে দিতে হয়। হাতের সম্বল জমিটি চাষ করা শুরু করেন। তাঁকে সাহায্য করতে এগিয়ে আসে তাঁর দুই মেয়ে ভেনালা ও চন্দনা। জোয়াল ধরে তাঁরাই। এই ভিডিওটি দ্রুত ভাইরাল হয়ে যায়। আসরে নামেন সোনু।

সোনু ট্যুইটারে লেখেন, " হাল চষতে কাল ওদের বাড়িতে দু'টো বলদ পৌঁছে যাবে। এই মেয়েরা লেখাপড়া করুক। দেশের চাষী আমাদের সম্পদ, তাঁদের যে কোনও উপায়ে রক্ষা করতে হবে।"

কিছুক্ষণে মত বদলান সোনু। এবার আর বলদ নয়, সোজা ট্রাক্টর। সোনু লেখেন, আসলে এই পরিবারটির একটি ট্রাক্টর প্রয়োজন। বলদ নয় সন্ধ্যের মধ্যে ট্রাক্টরটি পৌঁছে যাবে।

সোনু সুদের কথা আর কাজে ফারাক থাকে না। কাজেই সময় মতোই ট্রাক্টরটি পৌঁছেও যায় চিতোরে।

চন্দনাদের মা ললিতাদেবী বলেন, "এক ঘণ্টা ট্রাক্টর ভাড়া নিতে ১৫০০ টাকা লাগে। ২০ বছরের দোকান বন্ধ হয়ে সর্বশান্ত হয়েছি। এই টাকা জোগাড় করার ক্ষমতা ছিল না তাই ভেবেছিলাম সবাই মিলে শ্রম দিয়েই চাষ করব।এই সময়েই উনি এগিয়ে এলেন, এই ঋণ শোধ করতে পারব না।"

এই ধরনের কাজ অবশ্য সোনু প্রথম করছেন এমন না, শয়ে শয়ে পরিযায়ী শ্রমিককে নিজের দায়িত্বে বাড়ি ফেরানোর পরে সোনু সম্প্রতি একটি অ্যাপও পরিকল্পনা করে ফেলেছেন যা পরিযায়ী শ্রমিকদের কাজ খুঁজতে সাহায্য করবে।

Published by: Arka Deb
First published: July 26, 2020, 9:25 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर