Covishield Vaccine : রাজ্যে পৌঁছল ৭.৫ লক্ষ কোভিশিল্ড ভ্যাকসিন, এবার কী মিলবে স্বস্তি?

এল আরও সাড়ে সাত লক্ষ ডোজ

সোমবার সকালে এয়ার এশিয়ার বিশেষ বিমানে কলকাতার নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বোস বিমানবন্দরে এসে পৌঁছয় সাড়ে সাত লাখ ডোজ কোভিশিল্ড ভ্যাকসিন (Covishield)। এর আগে রবিবারও এসেছিল আরও এক লাখ ভ্যাকসিন (Corona Vaccine)।

  • Share this:

    #কলকাতা : ভ্যাকসিনের (Corona Vaccine) জন্য চরম হাহাকারের মধ্যেই কিছুটা স্বস্তির খবর। সাড়ে সাত লাখ ডোজের কোভিশিল্ড ভ্যাকসিন(Covishield) এসে পৌঁছল রাজ্যে। রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের (State Health Departhment) সূত্রের খবর, রাজ্য সরকারের দেওয়া বরাত অনুযায়ী এই ভ্যাকসিনের কনসাইনমেন্ট এসেছে পৌঁছেছে।সোমবার সকালে এয়ার এশিয়ার বিশেষ বিমানে কলকাতার নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বোস বিমানবন্দরে এসে পৌঁছয় সাড়ে সাত লাখ ডোজ কোভিশিল্ড ভ্যাকসিন। এর আগে রবিবারও এসেছিল আরও এক লাখ ভ্যাকসিন। এর আগে ৫ মে আরও পাঁচ লাখ ডোজ আসে৷ এক লাখ ডোজ কোভ্যাকসিনের এবং বাকি চার লাখ ডোজ কোভিশিল্ডের।

    সোমবার দুপুরে কলকাতা বিমানবন্দরে পুনের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে আসে প্রায় সাড়ে সাত লক্ষ্য কোভিশিল্ড ভ্য়াকসিন। জানা গিয়েছে এর মধ্যে ৩ লাখ ৯৫ হাজার পাঠিয়েছে কেন্দ্র সরকার। বাকি সাড়ে তিন লাখ ডোজ কিনেছে রাজ্য সরকার ৷ গতকাল কো-ভ্যাকসিনের এক লাখ ডোজ এসেছিল রাজ্যে। দুপুর ৩টে নাগাদ ভ্যাকসিনের কনসাইনমেন্ট এসে পৌঁছয় দমদম বিমানবন্দরে। এর পর স্বাস্থ্য দফতরের বিশেষ গাড়িতে করে পুলিশি পাহারায় টিকা নিয়ে যাওয়া হয় বাগবাজারে। এই নিয়ে রাজ্যেমোট ১ কোটি ৩০ লক্ষ টিকা এসে পৌঁছলো।

    এদিকে সোমবারও রাজ্যে জারি টিকার হাহাকার। বিশেষ করে যাঁরা দ্বিতীয় ডোজ নেবেন তাঁরা পড়েছেন বিপদে। কোথায় গেলে টিকা পাবেন বুঝে উঠতে পারছেন না তাঁরা। এরইমধ্যে পেরিয়ে যাচ্ছে ভ্যাকসিন নেওয়ার নির্দিষ্ট সময়সীমা। এখনও রাজ্যে সরকারিভাবে ১৮- ৪৫ বছর বয়সীদের টিকাকরণ শুরুই করা যায়নি। তার ওপরে এই টিকাও অপর্যাপ্ত বলে দাবি স্বাস্থ্য দফতরের।

    রাজ্য দফতরের সূত্র অনুযায়ী, যদিও প্রয়োজনের তুলানায় এই বরাত এখনও অনেক কম, তবে এই নতুন কনসাইনমেন্ট আসার ফলে পরবর্তী কয়েকদিনে কিছুটা হলেও ভ্যাকসিনের সংকট কিছুটা হলেও কমবে । ওদিকে মুখ্যমন্ত্রী সোমবারও ভ্যাকসিন নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দাগেন । তিনি বলেন, "কেন্দ্রের কাছে আমরা যত ভ্যাকসিন চাইছি সেই তুলনায় অনেক কমই এসে পৌঁছেছে এখনও পর্যন্ত রাজ্যে।"

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: