Home /News /coronavirus-latest-news /
পূর্ব বর্ধমানে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২০০ ছাড়াল, নতুন করে আক্রান্ত ৮ জন

পূর্ব বর্ধমানে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২০০ ছাড়াল, নতুন করে আক্রান্ত ৮ জন

পূর্ব বর্ধমান জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, দিন দিন করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। তাই সবাইকে মাস্ক বা ফেস কভারে মুখ ঢেকে ঘরের বাইরে বের হওয়ার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

  • Share this:

#বর্ধমান: পূর্ব বর্ধমান জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২০০ ছাড়াল । এখন পর্যন্ত এই জেলায় ২০৪ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের মধ্যে ৩৪ জন এখন করোনা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। করোনা হাসপাতালে চিকিৎসার পর ১৬৯ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। এই জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে একজনের। পূর্ব বর্ধমান জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, দিন দিন করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। তাই সবাইকে মাস্ক বা  ফেস কভারে মুখ ঢেকে ঘরের বাইরে বের হওয়ার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। সেই সঙ্গে সবার কাছে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার অনুরোধ জানানো হচ্ছে।

গত চব্বিশ ঘণ্টায় পূর্ব বর্ধমান জেলায় নতুন করে আট জন বাসিন্দা করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৷ এদের মধ্যে কালনা পৌরসভা এলাকায় একজন রয়েছেন। এই ঘটনায় কালনা শহরে বাসিন্দারা উদ্বিগ্ন। এমনিতেই কালনা মহকুমা জুড়ে করোনার সংক্রমণ রয়েছে। বাসিন্দারা বলছেন, পূর্বস্থলী মন্তেশ্বর থেকে অনেকেই কালনা শহরে আসছেন। তাদের মাধ্যমেও সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা থাকছে? এছাড়াও কালনা এক নম্বর ব্লকে নতুন করে দুজন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। কালনা দু'নম্বর ব্লকে আক্রান্ত হয়েছেন একজন। এছাড়া মেমারি দু'নম্বর ব্লকে একজন, রায়না দু'নম্বর ব্লকে দুজন ও পূর্বস্থলী এক নম্বর ব্লকে একজন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্ত ব্যক্তিদের বর্ধমানের করোনা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের সংস্পর্শে আসা পুরুষ মহিলাদের চিহ্নিত করার কাজ চলছে। তাদেরকে কোয়ারেন্টাইনে রেখে তাদের নমুনা পরীক্ষা করা হবে।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, নতুন করে আক্রান্ত এলাকাগুলিকে কন্টেইনমেন্ট জোন হিসেবে ঘোষণা করা হচ্ছে। তার আশপাশের এলাকাকে বাফার জোন হিসেবে চিহ্নিত করা হচ্ছে। কন্টেইনমেন্ট জোন ও বাফার জোনকে এক করে ওই এলাকায় লকডাউন কড়াকড়ি করা হবে। বাঁশের ব্যারিকেড দিয়ে গোটা এলাকা ঘিরে ফেলা হচ্ছে। ওই এলাকায় বাইরে থেকে কেউ যাতে না ঢুকতে পারে তা নিশ্চিত করা হচ্ছে। শুধুমাত্র কাজের প্রয়োজন ছাড়া কন্টেইনমেন্ট জোন থেকে কেউ যাতে  বের হতে না পারে তাও নিশ্চিত করা হবে। এলাকায় সর্বক্ষণের পুলিশকর্মী মোতায়েন থাকবে। ওই এলাকার মধ্যে কোনও সরকারি বা বেসরকারি অফিস থাকলে তা বন্ধ রাখা হবে। ওই এলাকার মধ্যে কোন রাজনৈতিক সামাজিক ধর্মীয় সমাবেশ করা যাবে না।

Saradindu Ghosh

Published by:Siddhartha Sarkar
First published:

Tags: Coronavirus, East Bardhaman

পরবর্তী খবর