Corona Vaccine Running Out: করোনা টিকা নেই, একে একে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে ভ্যাকসিন সেন্টার, প্রতিবাদ শহরেজুড়ে...

Corona Vaccine Running Out: করোনা টিকা নেই, একে একে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে ভ্যাকসিন সেন্টার, প্রতিবাদ শহরেজুড়ে...

মুম্বইয়ে একে একে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে ভ্যাকসিন সেন্টার। সংগৃহীত ছবি।

করোনা টিকার (Corona Vaccine) পর্যাপ্ত জোগান (Running Out) নেই। যার জেরে মুম্বইয়ের (Mumbai) একটা একটা করে ভ্যাকসিন সেন্টার বন্ধ হয়ে যাচ্ছে।

  • Share this:

    #মুম্বইঃ করোনা টিকার (Corona Vaccine) পর্যাপ্ত জোগান নেই। যার জেরে মুম্বইয়ের (Mumbai) একটা একটা করে ভ্যাকসিন সেন্টার (Vaccine Centre) বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। আতঙ্কিত শহরবাসী শুক্রবার প্রতিবাদে শামিল হয়েছেন।

    মুম্বইয়ের মোট ১২০টি সেন্টার (Corona Vaccine Centre) থেকে করোনা টিকা (Covid 19 Vaccine) দেওয়া হচ্ছে। বিএমসি অর্থাৎ বৃহন্মুম্বই মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন (Brihanmumbai Municipal Corporation) জানিয়েছে, টিকার পর্যাপ্ত জোগান না থাকায় ৭১টি সেন্টার বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। যার মধ্যে রয়েছে বিকেসি-র জাম্বো ভ্যাকসিনেসন সেন্টার। যেটি মুম্বইয়ের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বানিজ্যিক কেন্দ্রের এক্কেবারে মধ্যস্থলে। সেই সেন্টারটি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় তার বাইরে বিক্ষোভ দেখান শহরবাসী। জাম্বো ভ্যাকসিনেসন সেন্টারের ডিন রাজেশ দেরে বলেন, "প্রথম যেদিন থেকে করোনা টিকা দেওয়া শুরু হয়েছে, সেদিন থেকেই আমাদের কাছে পরের দিনের পর্যাপ্ত টিকার ডোজ স্টকে থাকে। কালকে পর্যন্ত সেই স্টক ছিল। কালকে রাতেও ভেবেছিলাম স্টক চলে আসবে সময়মতো। আমাদের কাছে মাত্র ১৬০ ডোজ টিকা ছিল, তাই সেটার বন্ধ করতে বাধ্য হয়েছি।"

    মুম্বইয়ের যে ১২০টি সেন্টার থেকে করোনা টিকা দেওয়া হয়, তার মধ্যে ৪৯টি মহারাষ্ট্র সরকার এবং বৃহন্মুম্বই মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন থেকে পরিচালনা করা হয়। প্রতিদিন ৪০,০০০ থেকে ৫০,০০০ মানুষ টিকা পান।  মুম্বইয়ের মেয়র কিশোরী পেডনেকর বলেন, "মুম্বইতে একাধিক করোনা টিকা সেন্টার রয়েছে, যেগুলিতে এখন কোনও স্টক নেই। ফলে সেই সেন্টারগুলি থেকে টিকাকরণ কর্মসূচি বন্ধ রাখা হয়েছে। ৭৬,০০০ থেকে ১ লক্ষ ডোজ টিকা আজকে মুম্বইয়ে পৌঁছনোর কথা শুনেছি। যদিও আমার কাছে কোনও সরকারি তথ্য আসেনি। "

    মহারাষ্ট্র সরকার টিকার অপ্রতুলতার কথা ইতিমধ্যেই জানিয়েছে। তারপরেই মুম্বই, সাতারা, সাংলি, পানভেলের মতো জায়গায় টিকা সেন্টারগুলি বন্ধ করতে বাধ্য করা হয়েছে। রাজ্যের স্বাস্থ্য মন্ত্রী রাজেশ তোপে বৃহস্পতিবারই অভিযোগ করেছেন, বিজেপি শাসিত রাজ্যগুলি যে পরিমান টিকার ডোজ পাচ্ছে,  মহারাষ্ট্রে জনসংখ্যার তুলনায় কম সংখ্যক টিকার ডোজ আসছে।" তোপে জানিয়েছেন, "মহারাষ্ট্রে যেভাবে সংক্রমণ ছড়িয়েছে তাতে সপ্তাহে ৪০ লক্ষ এবং মাসে ১.৬ কোটি টিকার ডোজ প্রয়োজন। এ বিষয়ে কেন্দ্রের দৃষ্টি আকর্ষণ করার পরে ৭ লক্ষ থেকে ১৭ লক্ষ টিকার ডোজ পাচ্ছে রাজ্য।"

    Published by:Shubhagata Dey
    First published: