corona virus btn
corona virus btn
Loading

পজেটিভ রিপোর্ট আসার আগেই শ্মশানে প্রতিবেশীর মৃতদেহ সৎকার! সংক্রমণের আশঙ্কায় কাঁটা শহরতলি

পজেটিভ রিপোর্ট আসার আগেই শ্মশানে প্রতিবেশীর মৃতদেহ সৎকার! সংক্রমণের আশঙ্কায় কাঁটা শহরতলি
প্রতীকী ছবি

হাওড়া হাসপাতাল হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর কারণ দেখিয়ে দেহ পরিবারের হাতে তুলে দেয়। কিন্তু শনিবার করোনা রিপোর্ট পজেটিভ আসে বৃদ্ধের।

  • Share this:

#হাওড়া: প্রতিবেশীর মৃতদেহ সৎকার করে করোনা সংক্রমণের আশঙ্কায় গোটা এলাকা।  জাগাছা থানা এলাকার বকুলতলায় ব্যাপক চাঞ্চল্য।  করোনা সংক্রমণের আশঙ্কায় রাতের ঘুম উড়েছে শ্মশান যাত্রীদের।

ঘটনার সূত্রপাত বুধবার, এলাকার বাসিন্দা ৬৫ বছরের নারায়ণ মাহাতোকে শ্বাসকষ্ট হওয়ায় হাওড়া হাসপাতালে ভর্তি করেন পরিবারের সদস্যরা। করোনা উপসর্গ  থাকায় বৃদ্ধের লালারসের পরীক্ষা করা হয়। কিন্তু করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট আসার আগেই বৃহস্পতিবার নারায় মাহাতো মারা যান। হাওড়া হাসপাতাল হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর কারণ দেখিয়ে দেহ পরিবারের হাতে তুলে দেয়। বৃদ্ধের দেহ বাড়িতে নিয়ে আসে পরিবার। এরপর প্রতিবেশীদের সাহায্যে শিবপুর বাঁশতোলা ঘাটে সৎকার সম্পন্ন হয়। এমনকি দেহ সৎকার করা কাঠের চুল্লিতে।

এ পর্যন্ত সব স্বাভাবিক চলছিল। কিন্তু শনিবার বিকেলে মৃত নারায়ণ মাহাতোর করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসে। মাথায় হাত পরে যায় প্রশাসনের। জেলা স্বাস্থ্য দফতরের লোকেরা ছুটে যায় এলাকায়। কারা কারা বৃদ্ধের শেষকৃত্যে সামিল হয়েছিলেন বা কোন কোন পরিবার মৃতের পরিবারের সংস্পর্শে এসেছিল, সেই বিষয় বিস্তারিত খোঁজ চালানো হচ্ছে।

এলাকাটি আগে থেকেই কন্টেইনমেন্ট জোন হিসাবে ঘোষিত ছিল, এই ঘটনার পর এলাকায় সংক্রমণ ছড়ানোর বড়সড় আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। প্রশাসনের তরফে এলাকার বাসিন্দাদের বাড়িতে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এ দিকে, হাওড়া হাড়পাতালের বিরুদ্ধে দায়িত্বজ্ঞানহীন কাজের অভিযোগ তুলেছেন এলাকার বাসিন্দারা। কোভিড প্রোটোকল অনুযায়ী কোনো রোগীর করোনা পরীক্ষা হলে সেই ব্যক্তির দেহ পরিবারের হাতে তুলে দেওয়ার ক্ষেত্রে বেশ কিছু বিধিনিষেধ আছে। কিন্তু সব নিষেধ শিকেয় তুলে হাওড়া হাসপাতাল ও জেলা স্বাস্থ্য দফতর এই ভুল কীভাবে করে করল, তা নিয়ে নানা মহলে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। জেলা প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, পুরো ঘটনার তদন্ত করা হবে।

Debasish Chakraborty

Published by: Shubhagata Dey
First published: July 18, 2020, 11:09 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर