Home /News /coronavirus-latest-news /
করোনায় মৃত্যুমুখে! ভেন্টিলেটর বেঁচে বেরিয়ে ব্যক্তি বললেন, 'আজকের তারিখেই আমার জন্ম'

করোনায় মৃত্যুমুখে! ভেন্টিলেটর বেঁচে বেরিয়ে ব্যক্তি বললেন, 'আজকের তারিখেই আমার জন্ম'

সুবীরকমার দত্তের জন্মদিন পালন করা হল হাসপাতালে

সুবীরকমার দত্তের জন্মদিন পালন করা হল হাসপাতালে

সুবীর কুমার দত্তের স্ত্রীও কোভিড পজিটিভ হয়ে আমরি ঢাকুরিয়াতে ভর্তি৷ তবে এখন তিনি অনেকটাই সুস্থ আছেন। সোমবার দুপুরে সল্টলেক আমরি হাসপাতালে করোনা ওয়ার্ডে এক অভিনব দৃশ্য ঘটল।

  • Share this:

#কলকাতা: সুবীর কুমার দত্ত, কলকাতার পশ্চিম পুঁটিয়ারি বাড়ি। হার্ট এ্যাটাক হওয়ার পরেই তাঁকে ১৬ অগাস্ট ঢাকুরিয়া আমরি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। নিয়ম মতো করোনা পরীক্ষা করতে গিয়ে দেখা যায় তিনি করোনা পজিটিভ। শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাঁকে গত ২০ অগাস্ট, বৃহস্পতিবার ভেন্টিলেশনে দিতে হয়। তীব্র শ্বাসকষ্ট, রক্তে অক্সিজেনের মাত্রা ৫৯ হয়ে গিয়েছিল। এরপর মিরাকল। দ্রুত অনেকটাই সুস্থ হয়ে ওঠেন সুবীর কুমার দত্ত।

২৪ অগাস্ট তিনি ভেন্টিলেটর থেকে বেরিয়ে আসেন। আর তারপরেই সবাইকে অবাক করে বেরিয়ে প্রথমেই বলেন, 'আজ আমার জন্মদিন। আজ আমি ষাটে পা দিলাম।' চোখে জল এসে যায় উপস্থিত চিকিৎসক-নার্স, স্বাস্থ্যকর্মীদের। দ্রুত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় সুবীর কুমার দত্তের ৬০তম জন্মদিন হাসপাতালেই পালন করা হবে।

সুবীর কুমার দত্তের স্ত্রীও কোভিড পজিটিভ হয়ে আমরি ঢাকুরিয়াতে ভর্তি৷ তবে এখন তিনি অনেকটাই সুস্থ আছেন। সোমবার দুপুরে সল্টলেক আমরি হাসপাতালে করোনা ওয়ার্ডে এক অভিনব দৃশ্য ঘটল। মন ভাল করে দেওয়া এই ঘটনার সাক্ষী রইলেন সল্টলেক আমরি হাসপাতালের কোভিড ওয়ার্ডে ভর্তি অন্য সব রোগীরাও। 'হ্যাপি বার্থ ডে টু ইউ, হ্যাপি বার্থ ডে ডিয়ার...,' হাসপাতালে আইসোলেশন ওয়ার্ডে বেজে উঠছে সমস্বরে এই কোরাস। করোনা আক্রান্ত অন্যান্য রোগীরা বিস্ময়ে দেখছেন, ভেন্টিলেটর থেকে মৃত্যুপথযাত্রী করোনা আক্রান্ত বৃদ্ধকে কেক তুলে দেওয়া হচ্ছে। আর সেই কেক কাটছেন সুবীর কুমার দত্তের স্ত্রী, যিনি নিজেও করোনা আক্রান্ত। মোমবাতি ফুঁ দিয়ে নেভানো হচ্ছে। মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে আসা সুবীর কুমার দত্তের চোখে তখন আনন্দাশ্রু।

আইসিইউ-তে শুয়েই বার্থডে বয় সুবীর কুমার দত্ত বলছেন, 'আমি এখন অনেকটাই সুস্থ৷ ভেন্টিলিটার থেকে বেরিয়েই প্রথম আমার মনে হয় আজ আমার জন্মদিন। আর এই হাসপাতালের চিকিৎসক নার্সরা যেভাবে আমার সেবা করেছেন, তার তুলনা পাওয়া মুশকিল। তবে সব থেকে বড় ব্যাপার, এখানে আমার এইভাবে জন্মদিন পালন হবে, এটা আমি কোনও দিন কল্পনাতেই আনতে পারিনি।'

তাঁর স্ত্রী শর্মিষ্ঠা দত্তের একই কথা, 'আমার স্বামী কীভাবে সুস্থ হয়ে উঠছে, তা সত্যি ভাবতে পারিনি আর এইভাবে জন্মদিন পালন৷ এ স্বপ্নের!'

অন্যদিকে কফির ওয়ার্ডে কর্তব্যরত চিকিৎসক রূপক কুমার কুন্ডু বলেন, 'সুবীরকুমার দত্ত ভেন্টিলেশন থেকে বেরিয়ে যখন জানান যে তাঁর আজ জন্মদিন৷ তখন সত্যিই এক অন্য অনুভূতি হচ্ছিল। দিনের পর দিন ধরে যে ভাবে করোনা পরিস্থিতিতে আমরা লড়াই চালিয়ে যাচ্ছি, সেখানে এই বৃদ্ধের জন্মদিন পালন একটু অক্সিজেন জোগাবে সবাইকে। আমরা এই হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মীরা প্রত্যেকে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে প্রতিদিন লড়াই চালিয়ে যাচ্ছি প্রতিটা রোগীকে সুস্থ করে তুলতে আগামী দিনে আমাদের দায়িত্ব আরও বেড়ে গেল।'

AVIJIT CHANDA

Published by:Arindam Gupta
First published:

Tags: Coronavirus

পরবর্তী খবর