পূর্ব বর্ধমানে নতুন করে আক্রান্ত ৫০ জন! সব এলাকা থেকেই সংক্রমণের হদিশ মিলছে

প্রতিদিনই নতুন নতুন এলাকা থেকে করোনা পজিটিভ রিপোর্ট মিলছে। গত চব্বিশ ঘণ্টায় এই জেলায় নতুন করে ৫০ জন আক্রান্ত হয়েছেন।

প্রতিদিনই নতুন নতুন এলাকা থেকে করোনা পজিটিভ রিপোর্ট মিলছে। গত চব্বিশ ঘণ্টায় এই জেলায় নতুন করে ৫০ জন আক্রান্ত হয়েছেন।

  • Share this:

#বর্ধমান: পূর্ব বর্ধমান জেলায় লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। সংক্রমণে রাশ টানতে বেশিরভাগ পুর শহর ও ব্যাপকভাবে করোনা আক্রান্ত দশটি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় একটানা লকডাউন ঘোষণা করেছিল জেলা প্রশাসন। কিন্তু সেই লকডাউন পর্ব শেষ হওয়ার পরও করোনার সংক্রমণ কমার কোনও লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। প্রতিদিনই নতুন নতুন এলাকা থেকে করোনা পজিটিভ রিপোর্ট মিলছে। গত চব্বিশ ঘণ্টায় এই জেলায় নতুন করে ৫০ জন আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের মধ্যে শুধুমাত্র বর্ধমান শহরে আক্রান্ত হয়েছেন সতের জন। জেলায় এখনও বহু মানুষের শরীরে করোনার উপসর্গ রয়েছে। অনেকেই লালা রসের নমুনা পরীক্ষার জন্য জমাও দিয়েছেন।

গতকাল, বুধবার এই জেলায় আক্রান্তের  সংখ্যা ছিল ৬৭৫ জন। নতুন করে পঞ্চাশ জন করোনা আক্রান্তের হদিশ মেলায় এদিন পর্যন্ত এই জেলায় ৭২৫ জন পুরুষ মহিলা করোনা আক্রান্ত হলেন। তাদের মধ্যে চিকিৎসার পর ইতিমধ্যেই সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন চারশো নব্বই জন। বর্তমানে ২২১ জন বর্ধমানের করোনা হাসপাতাল, সেফ হাউস ও সেফ হোমে রয়েছেন। জেলায় এ দিন পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত হয়ে ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে জেলা প্রশাসন।

বর্ধমান শহরে নতুন করে আরও ১৭ জন করোনা পজিটিভ হয়েছেন। এছাড়াও বর্ধমান শহরের আশপাশে আরও ১০ জন আক্রান্তের হদিশ মিলেছে। বর্ধমান এক নম্বর ব্লকে আক্রান্ত হয়েছেন চারজন। বর্ধমান দু'নম্বর ব্লকে আক্রান্ত হয়েছেন ৬ জন। কালনা শহরেও নতুন করে পাঁচ জনের দেহে করোনার সংক্রমণ মিলেছে। কালনা এক নম্বর ব্লকে পাঁচজন ও কালনা দু'নম্বর ব্লকে নতুন করে একজন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এছাড়া কাটোয়া এক নম্বর ব্লক, কেতুগ্রাম দু’নম্বর ব্লক, খণ্ডঘোষ, মেমারি দু'নম্বর ব্লক, আউশগ্রাম দু'নম্বর ব্লক, ভাতার ও জামালপুর ব্লকে একজন করে করোনা আক্রান্তের হদিশ মিলেছে। মঙ্গলকোট ব্লকে নতুন করে আরও তিনজন করোনা আক্রান্ত হওয়ায় এলাকায় উদ্বেগ বেড়েছে। পূর্বস্থলী দু'নম্বর ব্লকেও দু’জন করোনা আক্রান্তের হদিশ মিলেছে।

শরদিন্দু ঘোষ

Published by:Siddhartha Sarkar
First published: