corona virus btn
corona virus btn
Loading

দেহে করোনার বিষ নিয়েই ফিরছেন পরিযায়ী শ্রমিকরা, ভয়ে কাঁপছে পূর্ব বর্ধমান

দেহে করোনার বিষ নিয়েই ফিরছেন পরিযায়ী শ্রমিকরা, ভয়ে কাঁপছে পূর্ব বর্ধমান
ভয় বাড়াচ্ছেন পরিযায়ী শ্রমিকরাই।

জেলা প্রশাসন এখন নমুনা পরীক্ষায় গতি আনার বিষয়টিকে অগ্রাধিকার দিচ্ছে। আপাতত বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, আর জি কর হাসপাতাল ও দুর্গাপুরের সনকা হাসপাতালে করোনার নমুনা পরীক্ষা হচ্ছে

  • Share this:

#পূর্ব বর্ধমান: বাইরের রাজ্যে থেকে আসা শ্রমিকদের নিয়ে উদ্বেগ বাড়ছে পূর্ব বর্ধমান জেলায়। এই জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা এখন ৩৫। তার মধ্যে বেশির ভাগই ভিন রাজ্য থেকে আসার শ্রমিক। প্রতি দিনই বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। নিত্যনতুন এলাকাকে কনটেইনমেন্ট জন হিসেবে ঘোষণা করতে হচ্ছে জেলা প্রশাসনকে। আগামী কয়েক দিনে আরও কয়েক হাজার শ্রমিক জেলায় আসবেন বলে প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে। তার জেরে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা আরও অনেকটাই বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছে জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর।

পূর্ব বর্ধমান জেলায় প্রথম দফা লকডাউন এর আগে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল মাত্র একজন। এখন সেখানে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা পঁয়ত্রিশে পৌঁছে গিয়েছে।এদের মধ্যে ২৫ জনই এসেছে ভিন রাজ্য থেকে। আরও নির্দিষ্ট করে বললে তারা এসেছেন মহারাষ্ট্র, দিল্লি থেকে। জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, এখনও বহু শ্রমিক আসবেন। তার ওপর কয়েক হাজার রিপোর্ট হাতে আসেনি। রিপোর্ট হাতে পেলে এই সংখ্যাটা আরও অনেকটাই বেড়ে যাবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

আশঙ্কার আরও কারণ রয়েছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পরিযায়ী শ্রমিকদের মধ্যে যাঁরা করোনা আক্রান্ত বলে রিপোর্ট আসছে তাদের অনেকেরই কোনও উপসর্গ পাওয়া যাচ্ছে না। রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত তাঁরা বাড়িতে বা কোয়ারান্টিন সেন্টারে থাকছেন। তারা ততদিনে অনেকের সংস্পর্শে আসছেন। এই সময়ে অনেকেই আক্রান্ত হওয়ার আশংকা বেড়ে যাচ্ছে। তখন নতুন করে সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের চিহ্নিত করে আবার কোয়ারান্টাইন সেন্টারে পাঠাতে হচ্ছে। তাঁদের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠাতে হচ্ছে।

জেলা প্রশাসন এখন নমুনা পরীক্ষায় গতি আনার বিষয়টিকে অগ্রাধিকার দিচ্ছে। আপাতত বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, আর জি কর হাসপাতাল ও দুর্গাপুরের সনকা হাসপাতালে করোনার নমুনা পরীক্ষা হচ্ছে। সেখানের পরীক্ষা পরিকাঠামো আরও বাড়ানো যায় কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। পাশাপাশি নমুনা যেতে বেশি দিন সংরক্ষণ করা যায় তার পরিকাঠামো তৈরি করার কথা ভাবা হচ্ছে।

Published by: Arka Deb
First published: May 26, 2020, 9:33 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर