বর্ধমানে আইসোলেশন ওয়ার্ড থেকে দুজনকে পাঠানো হল কলকাতায়!

বর্ধমানে আইসোলেশন ওয়ার্ড থেকে দুজনকে পাঠানো হল কলকাতায়!
বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ

মঙ্গলবার পর্যন্ত এই জেলায় হোম কোয়ারেন্টিনে ছিলেন ২০ হাজার ৮৫৩। সেই সংখ্যাটা বেড়ে হয়েছে চব্বিশ হাজার নশো ছাব্বিশ জন। বিদেশ থেকে এসে হোম কোয়ারান্টিনে রয়েছেন একশো উননব্বই জন। এর বাইরে চব্বিশ জন হোম কোয়ারান্টিনের মেয়াদ পূর্ণ করেছেন।

  • Share this:

#বর্ধমান: পূর্ব বর্ধমান জেলার আইসোলেশন ওয়ার্ড থেকে দুজনকে কলকাতায় পাঠানো হল। বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে এক জন ও কাটোয়া মহকুমা হাসপাতাল থেকে এক জনকে কলকাতা পাঠানো হয়েছে। এদিনও বর্ধমান রেল স্টেশন, উল্লাস ও নবাবহাট বাসস্ট্যান্ড, কালনা ও কাটোয়ায় থার্মাল স্ক্রিনিং করা হয়। সেখানে সন্দেহজনকদের নাম, ঠিকানা, ফোন নম্বর নেওয়া হচ্ছে। শরীরের তাপমাত্রা বেশি থাকলে তাদের হাসপাতালে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

গত চব্বিশ ঘণ্টায় পূর্ব বর্ধমান জেলায় করোনা আইসোলেশন ওয়ার্ডে রোগীর সংখ্যা বেড়েছে। বেড়েছে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকা পুরুষ মহিলার সংখ্যাও। মঙ্গলবার পর্যন্ত সরকারি হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে ছিলেন ১৫ জন। সেই সংখ্যাটা বেড়ে হয়েছে ১৯ জন। এরমধ্যে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বিশেষ আইসোলেশন ওয়ার্ডে রয়েছেন পাঁচ জন।

কাটোয়া মহকুমা হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে রয়েছেন ১১ জন ও কালনা মহকুমা হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে রয়েছেন দুজন। কাটোয়ােয় এদিন নতুন করে চারজন এসেছেন। একজনকে হোম কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে। কালনা মহকুমা হাসপাতালে ছিলেন এক জন। নতুন করে কালনায় এসেছেন তিনজন। একজনকে হোম কোয়ারান্টিনে পাঠানো হয়েছে।

মঙ্গলবার পর্যন্ত এই জেলায় হোম কোয়ারেন্টিনে ছিলেন  ২০ হাজার ৮৫৩। সেই সংখ্যাটা বেড়ে হয়েছে চব্বিশ হাজার নশো ছাব্বিশ জন।  বিদেশ থেকে এসে হোম কোয়ারান্টিনে রয়েছেন একশো উননব্বই জন। এর বাইরে চব্বিশ  জন হোম কোয়ারান্টিনের মেয়াদ পূর্ণ করেছেন।

প্রশাসন বলছেন, বর্ধমান শহরের প্রায় প্রতিটি এলাকাতেই বিদেশ বা বাইরের রাজ্য থেকে এসেছেন অনেকেই। তারা যাতে হোম কোয়ারান্টিন উপেক্ষা করে বাইরে বেরিয়ে পড়তে না পারেন সে ব্যাপারে নজরদারি অব্যাহত রয়েছে। নিজের ও পরিবারের সকলের স্বার্থেই চোদ্দ দিন হোম কোয়ারান্টিন জরুরি। বাইরে থেকে আসা অনেকেই এদিন বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাতে যান। তাদের বেশির ভাগকেই হোম কোয়ারান্টিনে থাকার নির্দেশ দেন চিকিৎসকরা।

SARADINDU GHOSH

First published: March 25, 2020, 8:41 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर