corona virus btn
corona virus btn
Loading

স্কুল সার্ভিস কমিশনের অফিসে করোনার থাবা, কোয়ারেন্টাইনে একাধিক কর্মী

স্কুল সার্ভিস কমিশনের অফিসে করোনার থাবা, কোয়ারেন্টাইনে একাধিক কর্মী

আপাতত কমিশনের একাধিক কর্মী আধিকারিক কোয়ারেন্টাইনে থাকলেও আগামী সপ্তাহতেও কমিশনের সদর দফতর স্বাভাবিক হবে নাকি সে বিষয়ে এখনও পর্যন্ত নিশ্চিত নন কমিশনের উচ্চপদস্থ আধিকারিকরাই।

  • Share this:

#কলকাতা: স্কুল সার্ভিস কমিশনের সদর দফতরে এবার করোনার থাবা। কমিশন সূত্রে খবর মোট দুজন নিরাপত্তারক্ষী এবং একজন স্টাফ করোনাতে আক্রান্ত হয়েছেন। এই দুজন নিরাপত্তারক্ষী বিধান নগর পুলিশ কমিশনারেটের পুলিশ বলেই জানা গিয়েছে। জুলাই মাসের শেষ সপ্তাহ থেকেই বাকি একজন কমিশনের স্টাফ আক্রান্ত হয়েছেন । এসএসসি অফিসের নিরাপত্তারক্ষী এবং স্টাফ আক্রান্ত হওয়াতে কোয়ারেন্টাইনে অফিসের একাধিক কর্মী এবং আধিকারিকরা গেছেন বলেই কমিশন সূত্রে খবর। ইতিমধ্যেই স্কুল সার্ভিস কমিশনের অফিসকে পুরো স্যানিটাইজ করা হয়েছে। আপাতত সোমবার থেকে কমিশনের অফিস খোলার কথা থাকলেও কতজন করে কর্মী আসবেন তা অবশ্য এখনই নিশ্চিত হতে পারছে না এসএসসির আধিকারিকরা।

শুক্রবারই মধ্যশিক্ষা পর্ষদের এক আধিকারিক করোনাতে আক্রান্ত হওয়ার খবরের জেরে আগামী মঙ্গলবার পর্যন্ত মধ্যশিক্ষা পর্ষদের সদর দফতরের চারতলার সমস্ত অফিস বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। শুধু তাই নয় কোয়ারেন্টাইনে ইতিমধ্যেই পর্ষদের কয়েকজন কর্মী ও আধিকারিককেও পাঠানো হচ্ছে। তবে এর জেরে পর্ষদের বাকি বিভাগের কাজের কোন সমস্যা হবে না বলেই দাবি পর্ষদের। এবার মধ্যশিক্ষা পর্ষদের পাশাপাশি স্কুল সার্ভিস কমিশনের দুজন নিরাপত্তারক্ষী ও একজন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হবার পরপরই গোটা কমিশন জুড়ে আতঙ্ক ছড়িয়েছে। আপাতত কমিশনের একাধিক কর্মী আধিকারিক কোয়ারেন্টাইনে থাকলেও আগামী সপ্তাহতেও কমিশনের সদর দফতর স্বাভাবিক হবে নাকি সে বিষয়ে এখনও পর্যন্ত নিশ্চিত নন কমিশনের উচ্চপদস্থ আধিকারিকরাই। যদিও উচ্চ প্রাথমিকে নিয়োগ সংক্রান্ত মামলা এখনো পর্যন্ত আদালতের বিচারাধীন। শুক্রবার হাইকোর্টে সেই মামলার শুনানি হলেও নিষ্পত্তি হতে সময় লাগতে পারে বলেই মনে করছে কমিশন।

গত বছর পুজোর আগে এসএসসি উচ্চ প্রাথমিকের মেধা তালিকা প্রকাশ করলেও দুর্নীতি ও অস্বচ্ছতার অভিযোগ এনে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয় কয়েকজন চাকরিপ্রার্থী। তারপর আদালত নিয়োগ প্রক্রিয়ার ওপর স্থগিতাদেশ দেয়। তারপর থেকে শুনানি পর্ব শুরু হলেও সাম্প্রতিক করোনা ভাইরাস সংক্রমণ এবং তার জেরে চলা লকডাউনের জন্য নিয়োগ প্রক্রিয়া সংক্রান্ত মামলার শুনানি অনেকটাই পিছিয়ে যায়। বলতো পুজোর আগে উচ্চ প্রাথমিকে নিয়োগ প্রক্রিয়া আদৌ শেষ করা সম্ভব নাকি সে বিষয়ে নিশ্চিত হতে পারছে না কমিশন।

 সোমরাজ বন্দ্যোপাধ্যায়

Published by: Elina Datta
First published: August 8, 2020, 4:58 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर