Home /News /cooch-behar /
Cooch Behar: কলেজকে অবিলম্বে বিশ্ববিদ্যালয় করার দাবি! পোস্টার পড়ল ক্যাম্পাসে

Cooch Behar: কলেজকে অবিলম্বে বিশ্ববিদ্যালয় করার দাবি! পোস্টার পড়ল ক্যাম্পাসে

কলেজের

কলেজের ক্যাম্পাসে ও গেটে লাগানো হয়েছে ব্যানার!

কোচবিহার এবিএন শীল কলেজের মূল গেটের সামনে এবং কলেজ ক্যাম্পাসের ভেতরে লাগানো হয়েছে ব্যানার! এই ব্যানার গুলি লাগিয়েছে এই কলেজে পড়ুয়ারত ছাত্রছাত্রীরা।

  • Share this:

    #কোচবিহার : কোচবিহার এবিএন শীল কলেজের মূল গেটের সামনে এবং কলেজ ক্যাম্পাসের ভেতরে লাগানো হয়েছে ব্যানার! এই ব্যানার গুলি লাগিয়েছে এই কলেজে পড়ুয়ারত ছাত্রছাত্রীরা। এই ব্যানারের মাধ্যমে তাদের মূল দাবি অবিলম্বে কোচবিহারের অন্যতম ঐতিহ্যবাহী এবিএন শীল কলেজকে বিশ্ববিদ্যালয়ের তকমা প্রদান করতে হবে। আর এই ঘটনায় রীতিমতো শোরগোল পড়ে গিয়েছে গোটা কোচবিহার জুড়ে। এবিএন শীল কলেজ লেখাপড়ার দিক থেকে রাজ্যের মধ্যে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ একটি কলেজ। লেখাপড়া সুনামের পাশাপাশি অন্যান্য সুনামের কারণেও কোচবিহারের এই কলেজটিতে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত ছাড়াও উত্তর-পূর্ব ভারতের বিভিন্ন জায়গার ছেলেমেয়েরা পড়তে আসেন এখানে। বর্তমানে এই কলেজে সব মিলিয়ে মোট ২২২৫ জন ছাত্র-ছাত্রী এবং মোট ৮৮ জন শিক্ষক-শিক্ষিকা রয়েছেন। কলেজের প্রথম দিকে কলেজটির নাম ছিল ভিক্টোরিয়া কলেজ। তবে কলেজের শুরুর দিকের একটা সময় কয়েক বছর এই কলেজের অধ্যক্ষের দায়িত্ব সামলে ছিলেন আচার্য ব্রজেন্দ্রনাথ শীল। আর মূলত সে কারণেই তাকে সম্মান জানিয়ে পরে কলেজটির নামকরণ করা হয় আচার্য ব্রজেন্দ্রনাথ শীল ভিক্টোরিয়া কলেজ।

    কলেজটিতে বর্তমানে ডিগ্রী কোর্স পড়ানো ছাড়াও স্নাতকোত্তরের চারটি বিষয় নিয়েও পড়ানো হয়। এক কথায় বলতে গেলে উত্তর-পূর্ব ভারতের অন্যতম পুরনো কলেজ হল এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি। তবে আচমকাই কলেজ চত্বরে পোস্টার ও ব্যানার লাগানো হয়। এই ব্যানারে লেখা রয়েছে 'মেদিনীপুর কলেজ প্রথমে স্বায়ত্তশাসন ও গত ১৭ই মে ২০২২ ইউনিভার্সিটি হিসেবে ঘোষিত হলেও উত্তর-পূর্ব ভারতের সবথেকে পুরনো এবিএন শীল কলেজ একই মর্যাদা প্রাপ্ত হয় না কেন?

    আরও পড়ুনঃ আটকে দেওয়া হয়েছে সাগরদীঘির সমস্ত ঘাট! ভীড় কমছে সাগরদীঘি চত্বরে!

    স্বায়ত্তশাসন বা ইউনিভার্সিটি মর্যাদা প্রদান করে সমগ্র উত্তর-পূর্ব ভারতের শিক্ষা জগতে দীর্ঘ ১৩৪ বছর ধরে উল্লেখযোগ্য অবদানের স্বীকৃতি অবিলম্বে দেওয়া হোক।' তবে এই বিষয়টি নিয়ে কলেজের অধিকাংশ ছাত্র-ছাত্রীদের মতামত হল, 'যদি এই কলেজটিকে ইউনিভার্সিটির তকমা প্রদান করা হয়। তবে এই কলেজের পড়াশোনার মান আরো অনেকটাই বেড়ে যাবে। এবং এখানে যে সমস্ত পড়ুয়ারা পড়াশোনা করছেন তাদের মেধার বিকাশও অনেকটাই হবে।'

    আরও পড়ুনঃ কাটুম কুটুম শিল্পী উৎপল চক্রবর্তীর নিরলস প্রচেষ্টায় উজ্জ্বল হচ্ছে কোচবিহারের নাম!

    কলেজের অধ্যক্ষ নিলয় রায় জানিয়েছেন, \"এ বিষয়টি সম্পূর্ণরূপে সরকারি মতামতের উপর নির্ভর করছে। কলেজ কর্তৃপক্ষের এ বিষয় নিয়ে কিছুই করার নেই। তবে যদি কলেজটিকে স্বায়ত্তশাসন বা ইউনিভার্সিটির দায়িত্ব প্রদান করা হয়। তবে সেটা অত্যন্ত খুশির বিষয়।\"

    Sarthak Pandit
    Published by:Soumabrata Ghosh
    First published:

    Tags: Cooch behar

    পরবর্তী খবর