Home /News /cooch-behar /
Cooch Behar: রাখি পূর্ণিমা উপলক্ষে রাখি বিক্রি শুরু কোচবিহারে, ভিড় জমছে দোকানে!

Cooch Behar: রাখি পূর্ণিমা উপলক্ষে রাখি বিক্রি শুরু কোচবিহারে, ভিড় জমছে দোকানে!

রাখি পূর্ণিমা উপলক্ষে রাখি বিক্রি শুরু কোচবিহারে!

রাখি পূর্ণিমা উপলক্ষে রাখি বিক্রি শুরু কোচবিহারে!

আসছে ১১ই আগস্ট রাখি পূর্ণিমা। আর সেই কারণেই ইতিমধ্যে কোচবিহার শহরের বিভিন্ন জায়গায় বসে গিয়েছে রাখি বিক্রির দোকান।

  • Share this:

    #কোচবিহার : আসছে ১১ই আগস্ট রাখি পূর্ণিমা। আর সেই কারণেই ইতিমধ্যে কোচবিহার শহরের বিভিন্ন জায়গায় বসে গিয়েছে রাখি বিক্রির দোকান। কোচবিহার শহরের মানুষেরা ভিড় করতেও শুরু করেছেন এই দোকানগুলিতে। প্রতি বছর প্রচুর রাখী বিক্রি হয় কোচবিহারে। এবছরেও তার অন্যথায় হবে না। তাই রাখির বিক্রি করতে বসা দোকানের মালিকেরা আশায় বুক বাঁধছেন। তবে বিগত দুদিন ধরে বৃষ্টির হচ্ছে কোচবিহারে। সেই কারণে রাখী বিক্রি কিছুটা হলেও কম হয়েছে। আর তার ফলেই হালকা চিন্তার ভাঁজ দেখা গেছে রাখী বিক্রেতাদের কপালে। কোচবিহার ভবানীগঞ্জ বাজার এলাকার এক রাখী বিক্রেতা বলেন, \"করোনার কারণে গত দু'বছর ধরে রাখী ঠিকঠাক বিক্রি হয়নি। এবছরের শুরু থেকেই করোনার প্রকোপ কিছুটা কম থাকার কারণে রাখী বিক্রির সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। তাই আশায় আছি যে এবছর কিছুটা হলেও মুনাফার মুখ দেখতে পারবো।

    বাইরে থেকে যেমন প্রচুর রাখী কোচবিহারে নিয়ে আসা হয় বিক্রির উদ্দেশ্যে। ঠিক তেমনি কোচবিহারের আশে পাশের বিভিন্ন এলাকার স্বনির্ভর গোষ্ঠী থেকেও প্রচুর রাখী আসে বিক্রি জন্য। তাই এই রাখী বিক্রির ওপর নির্ভর করে অনেকের জীবন-জীবিকা। তাই এবছরের রাখী বিক্রির ওপর তাকিয়ে আছেন রাখি তৈরি থেকে শুরু করে রাখি বিক্রি করতে বসা সকল মানুষেরা।

    আরও পড়ুনঃ প্লাস্টিক ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা, তবুও প্লাস্টিক ক্যারি ব্যাগের রমরমা!

    রাখি বিক্রির দোকানে রাখি কিনতে আসা কোচবিহারের একজন স্থানীয় বাসিন্দা রুম্পা বসাক বলেন, \"প্রতিবছর প্রচুর রাখিও কেনা হয়। তবে গত দুই বছর কাউকে তেমন রাখি পরাতে পারিনি করোনার কারণে। তাই এবছর করোনার প্রভাব কিছুটা কম থাকায় রাখি কিনতে এসেছি।

    আরও পড়ুনঃ কোচবিহারে অবহেলায় মনিষীদের মূর্তি! দ্রুত পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করার দাবি

    আশা করছি এই বছর রাখি উৎসব ভালো মতোই পালন করতে পারব। তাই মনের মধ্যে আলাদা একটা আনন্দ রয়েছে।\" গত দুই বছরের করোনা অতিমারী অনেকের জীবন থেকে সরিয়ে নিয়েছিল আনন্দের মুহুর্ত। তবে এই বছর হয়তো সেই পরিস্হিতির কিছুটা হলেও পরিবর্তন হবে এমনটাই আশা করছেন কোচবিহারবাসীর অনেকে।

    Sarthak Pandit
    Published by:Soumabrata Ghosh
    First published:

    Tags: Cooch behar

    পরবর্তী খবর