Home /News /cooch-behar /
Cooch Behar News: প্রকৃতি বন্ধু জৈব চাষে নতুন দিশা দেখাচ্ছে 'SPAR’, জেনে নিন বিস্তারিত

Cooch Behar News: প্রকৃতি বন্ধু জৈব চাষে নতুন দিশা দেখাচ্ছে 'SPAR’, জেনে নিন বিস্তারিত

SPAR

'SPAR' -এর উদ্দ্যোগে প্রকৃতি বান্ধব জৈব চাষে সম্ভাবনা কোচবিহারে!

এখানে ড্রাগন ফ্রুট, ছোট এলাচ, বড় এলাচ, দেশীয় হলুদ, বিলুপ্ত প্রায় আমাদা, বিলুপ্ত প্রায় একাঙ্গী, ব্ল্যাক সোলজার ফ্লাই, দেশীয় মাছ, শামুক, ঝিনুক, ছাগল (ব্ল্যাক বেঙ্গল) এই সকল চাষ করে স্থানীয় কৃষকদের দেখাচ্ছেন।

  • Share this:

    #কোচবিহার: সমগ্র বিশ্ব জুড়ে যখন চাষ-আবাদের বিষয়ে রাসায়নিক সার প্রয়োগ দিন দিন বেড়েই চলেছে। এই পরিস্থিতিতে কোচবিহারে এক এনজিও সংস্থা চাষিদের উৎসাহ বাড়াতে প্রকৃতি বান্ধব জৈব চাষে শুরু করেছে বিভিন্ন প্রচেষ্টা। এনজিও সংস্থাটির নাম ‘সোসাইটি ফর পারটিসিপেটরি অ্যাকশন অ্যান্ড রিফলেকশন’ সংক্ষেপে ‘স্পার’। কোচবিহারের ভেটাগুড়ি অঞ্চলে এদের একটি অফিস রয়েছে। এবং সেই অফিসের সঙ্গেই রয়েছে কিছু জায়গা। সেখানেই তারা প্রকৃতি বান্ধব জৈব উপায়ে বিভিন্ন জিনিস চাষ করে দেখাচ্ছেন কোচবিহারের চাষিদের। যাতে কোচবিহারের চাষ-আবাদের ক্ষেত্র গুলিতেও রাসায়নিক সার প্রয়োগের মাত্রা কমে। এবং চাষিরা জৈব উপায় অবলম্বন করে প্রচুর ফসল উৎপাদন করতে পারে।

    সংস্থার কোচবিহারের ঠিকানা: SPAR, Vill. - Singijani, P.O. - Bhetaguri, Dist. - Cooch Behar, West Bengal, Pin - 736134 সংস্থার কোচবিহারের ঠিকানার গুগোল ম্যাপ লিঙ্ক: https://goo.gl/maps/1KYAro3EV6An9ZKr6 সংস্থার কোচবিহার শাখার ফোন নম্বর: 91-9564512423

    এই উদ্দ্যোগের মূল কারণ হল, কোভিড পরবর্তী সময়ে আমরা চাষের ক্ষেত্রে বিভিন্ন রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার করা অনেকটাই কমিয়ে ফেলতে পেরেছি। তাই সেই পদক্ষেপকে আরোও এক ধাপ এগিয়ে নিয়ে যাওয়া। সংস্থার জেলা কোঅর্ডিনেটর বিমান মন্ডল বলেন, “আমরা আমাদের অতীত সময়ের বাপ-ঠাকুরদাদের জ্ঞান কে খুব একটা বেশী প্রাধান্য দেইনা। একসময় তারা যে কেঁচো সার নিয়ে কাজকর্ম করতেন সেটাকেও পাত্তা দেওয়া হতো না। তবে সেটা যখন সরকারি ভাবে ভার্মিকম্পোস্ট সার হিসেবে বাজারে আসলো। তখন আমরা সেটাকে মেনে নিলাম।”

    আরও পড়ুন ঝমঝমিয়ে বৃষ্টির মধ্যে জঙ্গলে বেড়ানোর ইচ্ছে সফল হতে পারে! বিশেষ উদ্যোগ প্রশাসনের

    তারা বর্তমানে এখানে ড্রাগন ফ্রুট, ছোট এলাচ, বড় এলাচ, দেশীয় হলুদ, বিলুপ্ত প্রায় আমাদা, বিলুপ্ত প্রায় একাঙ্গী, ব্ল্যাক সোলজার ফ্লাই, দেশীয় মাছ, শামুক, ঝিনুক, ছাগল (ব্ল্যাক বেঙ্গল) এই সকল চাষ করে স্থানীয় কৃষকদের দেখাচ্ছেন। পরবর্তী সময়ে তারা আরও অনেক জিনিস একই রকম ভাবে জৈব পদ্ধতি অবলম্বন করে করতে চান বলেও জানান তারা।

    সংস্থার ডাইরেক্টর রবীন্দ্রনাথ মিদ্যে জানান, “আপাতত এগ্রিকালচারের ওপরে আমরা ফোকাস করার চেষ্টা করছি। আমরা আমাদের ক্যাম্পাসে জৈব পদ্ধতিতে বেশ কিছু প্ল্যান্টেশন করেছি। এর মাধ্যমে আমরা ভবিষ্যতে গ্রামের মানুষদের আরোও বেশি সহায়তা করতে পারব বলে আমাদের মনে হয়”।

    Sarthak Pandit
    Published by:Pooja Basu
    First published:

    Tags: Cooch behar, North bengal news

    পরবর্তী খবর