বাজেট ২০২১: ডিজিটাল ক্ষেত্রে কোন বিষয়গুলিতে নজর দেওয়া প্রয়োজন, জেনে নিন কী বলছেন বিশেষজ্ঞরা

বাজেট ২০২১: ডিজিটাল ক্ষেত্রে কোন বিষয়গুলিতে নজর দেওয়া প্রয়োজন, জেনে নিন কী বলছেন বিশেষজ্ঞরা
বাজেট থেকে কী প্রত্যাশা রয়েছে দেশের ডিজিটাল ক্ষেত্রের? জেনে নিন কী বলছেন বিশেষজ্ঞরা

বাজেট থেকে কী প্রত্যাশা রয়েছে দেশের ডিজিটাল ক্ষেত্রের? জেনে নিন কী বলছেন বিশেষজ্ঞরা

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: করোনা পরিস্থিতিতে দেশকে নতুন দিশা দিয়েছে ডিজিটাল ক্ষেত্র। কিন্তু এখনও কাঙ্ক্ষিত রূপ পায়নি এই সেক্টর। এমনই জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। আপাতত তাঁদের চোখ ২০২১-২২ অর্থবর্ষের বাজেটের দিকে। এক্ষেত্রে নতুন নীতি রূপায়ন, ছাড়, অর্থবরাদ্দ-সহ একাধিক সিদ্ধান্তের জন্য অপেক্ষা করছে দেশের ডিজিটাল ব্যবসায়িক উদ্যোগ, IT ইন্ডাস্ট্রি, IT ফোরাম থেকে শুরু করে প্রতিটি ক্ষেত্র। বাজেট থেকে কী প্রত্যাশা রয়েছে দেশের ডিজিটাল ক্ষেত্রের? আসুন জেনে নেওয়া যাক, কী বলছেন বিশেষজ্ঞরা!

এখনও পর্যাপ্ত পরিকাঠামো নেই। তাই ডেটা সেন্টারের পরিকাঠামো গড়ে তুলতে প্রয়োজনীয় সিদ্ধান্ত নিতে হবে সরকারকে। এক্ষেত্রে ‘Make in India Cloud’ প্রকল্পের বাস্তবায়ন করতে হবে। এমনই জানাচ্ছেন Yotta Infrastructure-এর CEO সুনীল গুপ্তা (Sunil Gupta)। ফিস্কাল ইনসেনটিভস ও ট্যাক্স পলিসির কথাও উল্লেখ করেছেন তিনি। এর পাশাপাশি বর্তমান পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে ওয়ার্ক ফ্রম হোম নিয়েও বিশদে বিবেচনা করা দরকার।

AMD India-এর রেগুলেটরি অ্যাফেয়ার্স অ্যান্ড গভর্নমেন্ট রিলেশনসের ডিরেক্টর অরবিন্দ চন্দ্রশেখর (Arvind Chandrasekar) জানিয়েছেন, শিক্ষা, কোভিড ভ্যাকসিন-সহ একাধিক ক্ষেত্রের অগ্রগতির জন্য ক্লাউড কম্পিউটিংয়ে জোর দিতে হবে। একাধিক ছোট ছোট উদ্যোগ থেকে শুরু করে কৃষি, শক্তি, বিদ্যুৎ, ওষুধ প্রস্ততি-সহ নানা ক্ষেত্রে হাই-পারফরম্যান্স কম্পিউটিং প্রযুক্তি আনতে হবে। এর জন্য অর্থ বরাদ্দ, স্কিম, আয়করে ছাড়-সহ একাধিক সিদ্ধান্ত নিতে হবে।


Western Digital India-এর ভাইস প্রেসিডেন্ট সুপ্রিয়া ধন্দার (Supria Dhanda) মতে, ডিজিটাল ক্ষেত্রে রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট সেক্টরকে মজবুত করার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করতে হবে সরকারকে। নানা ধরনের ছাড়ের পাশাপাশি অর্থ বরাদ্দের পরিমাণ বাড়াতে হবে। AI, ML, Blockchain-সহ একাধিক গুরুত্বপূর্ণ প্রযুক্তির উপরে বেশি করে জোর দিতে হবে। ক্রিপ্টোট্রেডিংয়ে GST নিয়মনীতি নিয়ে কাজ করতে হবে।

একই বক্তব্য স্পষ্ট হয়ে উঠেছে বিশেষজ্ঞদের কথায়। এক্ষেত্রে, Snapbizz-এর প্রতিষ্ঠাতা ও CEO প্রেম কুমার ( Prem Kumar) জানিয়েছেন, ডিজিটাইলেজশনের প্রক্রিয়াকরণে মুদির দোকান থেকে শুরু করে ছোটখাটো সমস্ত দোকানের পাশে দাঁড়াতে হবে সরকারকে। কারণ রিটেল টেক ইন্ডাস্ট্রিকে আরও বড় জায়গায় নিয়ে যেতে হবে। অন্য দিকে, Razorpay-র সহ প্রতিষ্ঠাতা ও CEO হর্ষিল মাথুর ( Harshil Mathur) জানিয়েছেন, আশা করছি জিরো মার্চেন্ট ডিসকাউন্ট পলিসি ও তার নানা বিকল্প নিয়ে চিন্তাভাবনা করবে সরকার। বাজেটে এ নিয়ে কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া হলে ই-পেমেন্টের ক্ষেত্র আরও প্রসারিত হবে।

Published by:Ananya Chakraborty
First published:

লেটেস্ট খবর