ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের উদ্যোগই ভারতীয় অর্থনীতির শক্তি ফেরাবে, বললেন নীতিন গডকরি

ভারতের জিডিপিতে ২৮% এবং দেশের রফতানিতে প্রায় ৪৮% অবদান রাখে এটি।

ভারতের জিডিপিতে ২৮% এবং দেশের রফতানিতে প্রায় ৪৮% অবদান রাখে এটি।

  • Share this:

    ‌#‌কলকাতা:‌ অ্যামাজন ইন্ডিয়া ‘এক্সপোর্টস ডাইজেস্ট ২০২০’–এর উদ্বোধন করলেন মাননীয় কেন্দ্রীয় সড়ক পরিবহন ও ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প মন্ত্রকের মন্ত্রী নীতিন গডকরি। সেখানে তিনি বলেছেন, রফতানি বাড়ানোই এমএসএমইর দ্রুত পুনরুজ্জীবনের চাবিকাঠি। অ্যামাজন আগেই ঘোষণা করেছিল যে অ্যামাজন বিশ্বজোড়া বিক্র‌য়ের ক্ষেত্রে ভারতীয় বিক্রেতাদের মাধ্যমে রফতানি ২ বিলিয়ন ডলারের মাইলফলক অতিক্রম করেছে। ২০২০ সালের জানুয়ারিতে, অ্যামাজন প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল ২০২৫ সালের মধ্যে মোট ব্যবসায়িক রফতানিতে ১০ বিলিয়ন ডলার অতিক্রম করার কাজ হয়ে যাবে এবং বিশ্বব্যাপী অনলাইনে ভারতীয় বিক্রেতারা পৌঁছে যাবেন ভিন্নভিন্ন দেশে।

    অ্যামাজন গ্লোবাল সেলিং আজ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে, ব্রিটেন, সংযুক্ত আরব আমিরশাহী, কানাডা, মেক্সিকো, জার্মানি, ইতালি, ফ্রান্স, স্পেন, প্রভৃতি দেশে ১৫ টি আন্তর্জাতিক ওয়েবসাইটের মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী গ্রাহকদের কাছে 'মেড ইন ইন্ডিয়া' পণ্য বিক্রি করে। ৬০ হাজারের বেশি ভারতীয় রফতানিকারককে ব্যবসার সুযোগ করে দিয়েছে এটি।

    অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে, নীতিন গডকরি বলেছিলেন, “মস্ত এমএসএমই, যারা আমাজনের সাথে কাজ করে যাচ্ছেন তাঁদের স্থানীয়ভাবে তৈরি পণ্য আন্তর্জাতিক স্তরে নিয়ে যাওয়ার জন্য আমি ‌তাঁদের অভিনন্দন জানাতে চাই। এটি ভারতীয় এমএসএমইগুলির দক্ষতা এবং উদ্যোক্তা চেতনার একটি প্রমাণ। এমএসএমই ক্ষেত্র একটি বড় চাকরির জায়গা এবং ভারতীয় অর্থনীতির মেরুদণ্ড। ভারতের জিডিপিতে ২৮% এবং দেশের রফতানিতে প্রায় ৪৮% অবদান রাখে এটি। তারা দেশের অর্থনৈতিক শক্তি বাড়াতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে এই ক্ষেত্র।

    Published by:Uddalak Bhattacharya
    First published: