Home /News /business /
Share Market News: মার্কিন মুলুকেও সুখবর, বাড়ছে শেয়ার কেনাবেচা: কী প্রভাব পড়তে পারে, জেনে নিন বিস্তারিত

Share Market News: মার্কিন মুলুকেও সুখবর, বাড়ছে শেয়ার কেনাবেচা: কী প্রভাব পড়তে পারে, জেনে নিন বিস্তারিত

প্রতীকী ছবি৷

প্রতীকী ছবি৷

সাত সপ্তাহ অনবরত পতনের পরে সারা গ্লোবাল স্টক লাভের মুখ দেখতে পাচ্ছে। মুদ্রাস্ফীতি, উচ্চ সুদের হার, চিনের দুর্বল অর্থনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি এবং ইউক্রেনে যুদ্ধের মতো পরিস্থিতিতে অনিশ্চয়তা নিয়েও কেনাকাটার বিষয়ে ফিরছেন বিনিয়োগকারীরা।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: সুদূর মার্কিন মুলুকে শেয়ার বাজারে পতনের ধাক্কা লেগেছিল ভারত-সহ গোটা বিশ্বের বাজারে। গত দু’দিন ভারতীয় শেয়ার বাজার খানিকটা সুসময়ের মুখ দেখেছে। এ বার আমেরিকার বাজার থেকে কিছু ভালো খবর আসছে।

ব্যাঙ্ক অব আমেরিকা (Bank of America)-র তরফে এ খবর জানানো হয়েছে বলে খবরে প্রকাশ। ব্যাঙ্ক অব আমেরিকা জানিয়েছে, বিনিয়োগকারীরা ২৫ মে শেষ হওয়া সপ্তাহে বিশ্বব্যাপী স্টকগুলিতে প্রায় ২০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করেছেন। এটি গত ১০ সপ্তাহের মধ্যে সর্বোচ্চ। ইপিএফআর গ্লোবাল ডেটা (EPFR Global Data)-র তরফ থেকে এ কথা জানা গিয়েছে। রিপোর্ট অনুযায়ী, বন্ড ফান্ড থেকে প্রায় ৫.৮ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ হচ্ছে।

আরও পড়ুন: টালমাটাল বাজারে বিনিয়োগ? দীর্ঘ এবং মধ্যম মেয়াদে রয়েছে লাভের আশা!

আর এর প্রভাবে এই সপ্তাহে ইক্যুইটিতে উন্নতি দেখা গিয়েছে। সাত সপ্তাহ অনবরত পতনের পরে সারা গ্লোবাল স্টক লাভের মুখ দেখতে পাচ্ছে। মুদ্রাস্ফীতি, উচ্চ সুদের হার, চিনের দুর্বল অর্থনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি এবং ইউক্রেনে যুদ্ধের মতো পরিস্থিতিতে অনিশ্চয়তা নিয়েও কেনাকাটার বিষয়ে ফিরছেন বিনিয়োগকারীরা।

আরও দু’টি বৃদ্ধির পরে বিরতি ফেডারেল রিজার্ভের পরামর্শ মতো পরামর্শ ডলার এক মাসের মধ্যে সর্বনিম্নে নেমে এসেছে। ফেডারেল রিজার্ভের মে মাসের বৈঠকের কার্যবিবরণী অনুসারে, জুন এবং জুলাই মাসে ৫০ বেসিস পয়েন্টের পর আরও দু’টি হার বৃদ্ধি নিশ্চিত। তবে নীতি নির্ধারকরা দাবি করেছেন, এর পর চলতি বছরে সুদের হার বৃদ্ধির বিষয়ে বিরতি দেওয়া হবে।

আরও পড়ুন: কোন মিউচুয়ালে ফান্ডে বিনিয়োগ করলে লাভবান হবেন ? জেনে নিন...

দুর্বলতা কাটছে? বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাজারের পরিস্থিতি এবং সংগৃহীত তথ্য থেকে ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে যে আমেরিকার বাজারে দুর্বলতা কমছে। ফেডেরাল রিজার্ভের কার্যবিবরণী অনুসারে, বছরের শেষে আর সুদের হার বাড়ানো হবে না। এটি মার্কিন অর্থনীতিতে মন্দার লক্ষণ। অতএব, ফেডের অবস্থান বাজারের অনুমানের চেয়ে একটু কম কঠোর হবে। একই সময়ে, ভারতীয় বাজারে এফপিআই (FPI) বিক্রির কারণে বাজারে দুর্বলতা বন্ধ হতে দেখা যেতে পারে।

তবে এ বিষয়ে নিশ্চয়তা নেই। বাজারে বেচাকেনা কমার বিষয়ে বিশেষজ্ঞদের ভিন্ন মতও রয়েছে। মর্গ্যান স্ট্যানলি এবং ব্যাঙ্ক অফ আমেরিকা জানিয়েছে, আগামী সময়ে বাজার আরও কমতে পারে। একই সময়ে, BlackRock বলেছে যে এই সপ্তাহে বিক্রি বন্ধও হয়ে যেতে পারে।

First published:

Tags: Share Market

পরবর্তী খবর