Home /News /business /
SBI: মুদ্রাস্ফীতির জন্য RBI দায়ী নয়, এখনই দাম কমার সম্ভাবনা নেই! সাফ জানাল SBI

SBI: মুদ্রাস্ফীতির জন্য RBI দায়ী নয়, এখনই দাম কমার সম্ভাবনা নেই! সাফ জানাল SBI

কী জানাল এসবিআই?

কী জানাল এসবিআই?

SBI: ফেব্রুয়ারি থেকে এখনও পর্যন্ত মোট মূল্যস্ফীতির ৫২ শতাংশ জুড়ে রয়েছে খাদ্য, পানীয়, জ্বালানি, বিদ্যুৎ এবং পরিবহন।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার (State Bank of India) গবেষণার রিপোর্ট অনুযায়ী Ecowrap-এ ব্যাঙ্ক বলেছে, মুদ্রাস্ফীতি বৃদ্ধি পাওয়ার মূল কারণ হল রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধ (Russia Ukraine War)। রিপোর্টে বলা হয়েছে, এর জন্য ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্ককে (Reserve Bank of India) দোষারোপ করা অর্থহীন। একই সঙ্গে নিকট ভবিষ্যতে মূল্যস্ফীতি কমার কোনও সম্ভাবনা নেই বলেও জানানো হয়েছে। এই রিপোর্টে বলা হয়েছে, খাদ্যদ্রব্যের দাম গ্রামীণ এলাকায় বৃদ্ধি পাওয়ার পাশাপাশি শহরাঞ্চলেও অনেকাংশে বৃদ্ধি পেয়েছে। ফেব্রুয়ারি থেকে এখনও পর্যন্ত মোট মূল্যস্ফীতির ৫২ শতাংশ জুড়ে রয়েছে খাদ্য, পানীয়, জ্বালানি, বিদ্যুৎ এবং পরিবহন।

রিপোর্টে বলা হয়েছে যে বিশেষ করে যদি এফএমসিজি সেক্টরের (FMCG Sector) ইনপুট খরচ এবং পার্সোনাল কেয়ার সম্পর্কিত আইটেমগুলিকেও মুদ্রাস্ফীতির কারণ হিসাবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়, তবে মোট মূল্যস্ফীতির ৫৯ শতাংশ বেড়েছে শুধুমাত্র রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে। রিপোর্ট অনুসারে, এটা প্রায় নিশ্চিত যে মূল্যস্ফীতি বাড়াতে আরবিআই জুন এবং অগাস্টে আবার হার বাড়াতে পারে। তবে যুদ্ধ অব্যাহত না হওয়া পর্যন্ত সুদের হার কমানো হলেও মূল্যস্ফীতি কমবে কি না সে বিষয়ে কিছু বলা যাচ্ছে না। রিপোর্টে সুদের হার বাড়ানোর জন্য আরবিআই-এর প্রশংসা এবং সমর্থন করে বলা হয়েছে যে এটি আর্থিক ব্যবস্থার জন্যও ইতিবাচক প্রমাণিত হবে। রিপোর্টে ভারতীয় টাইম জোনে অনশোর মার্কেটের পরিবর্তে এনডিএফ-এ (National Development Front) হস্তক্ষেপ করার জন্য আরবিআইকে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন: গাড়ি বদল, বেহালার অফিস থেকে গেলেন কোথায়? রাতে রহস্য বাড়ালেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়!

আরবিআই প্রি-এমপটিভ পলিসি কমিটির (Pre-emptive policy) MPC বৈঠকে রেপো রেট ৪০ বেসিস পয়েন্ট বাড়িয়ে দিয়েছিল। এর আগে এপ্রিলের শুরুতে অনুষ্ঠিত হওয়া বৈঠকে কোনও বৃদ্ধি করা হয়নি, যেখানে মুদ্রাস্ফীতির হার তখন আট মাসের সর্বোচ্চে পৌঁছে গিয়েছিল। ১২ মে এপ্রিলের জন্য প্রকাশিত কনজিউমার প্রাইস ইনডেক্স (CPI) সর্বকালের সর্বোচ্চ ৭.৭৯ শতাংশে পৌঁছেছিল। এটা লক্ষ্যণীয় যে যদি পর পর তিন ত্রৈমাসিকে খুচরো মুদ্রাস্ফীতির হার RBI-এর সন্তোষজনক সীমার (২-৬ শতাংশ) বাইরে থাকে, তবে এটি কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কের ব্যর্থতা হিসাবে দেখা হয়।

আরও পড়ুন: শেষমেশ CBI-এর কাছে অনুব্রত মণ্ডল, এসএসসি বিতর্কের মধ্যেই পারদ চড়ালেন তৃণমূল নেতা

এছাড়া, রিজার্ভ ব্যাঙ্ক সম্প্রতি রেপো রেট বৃদ্ধি করার পর দেশের বেশিরভাগ প্রথম সারির ব্যাঙ্কগুলি ঋণের ওপর তাদের সুদের হার বৃদ্ধি করেছে। স্পষ্টতই মুদ্রাস্ফীতির ফলে বড় বড় ব্যবসা থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষও প্রভাবিত হচ্ছে।

First published:

Tags: RBI, SBI

পরবর্তী খবর