ফের Lockdown হলে ধাক্কা সামলাতে পারবে না ভারতীয় অর্থনীতি, আশঙ্কা RBI-এর

Lockdown Representative Image

ইউরোপের বিভিন্ন জায়গায় নতুন করে সংক্রমণ বাড়ায় ফের একবার কড়া বিধিনিষেধ জারি করা হয়েছে৷ ভারত অবশ্য এখনও সেই পথে হাঁটেনি৷

  • Share this:

    #মুম্বাই: আর একবার লকডাউন হলে আর মাথা তুলে দাঁড়াতে পারবে না ভারতীয় অর্থনীতি৷ ফলে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের ধাক্কায় যদি শেষ পর্যন্ত আর্থিক বিধিনিষেধ আরোপ করতেই হয়, তাহলে ইতিমধ্যেই কর্মহীন হয়ে পড়া কোটি কোটি ভারতীয়ের ফের কাজে ফেরার পথও কঠিন হবে৷

    রিজার্ভ ব্যাঙ্কের মাসিক বুলেটিনের সর্বশেষ সংস্করণে ডেপুটি গভর্নর মাইকেল দেবব্রত পাত্র লিখেছেন, 'উচ্চ আর্থিক বৃদ্ধির হারে ফেরার জন্য গোটা দেশে মরিয়া চেষ্টা চলছে৷ যে তথ্য পাওয়া যাচ্ছে, তাতে এই অভীষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছতে পারস্পরিক সংস্পর্শ বেশি ঘটে, যেমন ব্যক্তিগত পরিচর্যা, আমোদ প্রমোদের উদ্দেশ্যে জমায়েতের মতো পরিষেবাও শুরু হয়ে গিয়েছে৷ কিন্তু ফের যদি আরও একবার মারণ ভাইরাসের ঢেউ আছড়ে পড়ে, তাহলে পূর্ববর্তী অভিজ্ঞতা থাকা সত্ত্বেও সেই ধাক্কা সামাল দেওয়া কার্যত অসম্ভব হয়ে দাঁড়াবে৷'

    এনডিটিভি-তে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন অনুযায়ী,  Deutsche Bank-এর তরফে ভারতের প্রধান অর্থনীতিবিদ কৌশিক দাসও জানিয়েছেন, করোনা সংক্রামিতের সংখ্যা বাড়তে থাকলে অর্থনীতির উপরে তাঁর প্রভাব পড়তে বাধ্য৷ এপ্রিল থেকে জুনের মধ্যে ত্রৈমাসিকেই সেই প্রভাব স্পষ্ট হবে বলেই মত কৌশিকবাবুর৷

    এর আগের বার নিজেদের পূর্বাভাসে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক জানিয়েছিল, গত বছরের তুলনায় এ বছর এপ্রিল- জুন ত্রৈমাসিকে ভারতীয় অর্থনীতির বৃদ্ধির হার দাঁড়াতে পারে ২৬.২ শতাংশ৷ কৌশিক দাস অবশ্য বলেছেন, 'করোনা সংক্রমণের হার বাড়তে পারে বলে অনুমান করেই আমরা ইতিমধ্যেই এপ্রিল- জুন ত্রৈমাসিকে জিডিপি বৃদ্ধির সম্ভাব্য হার কমিয়ে ২৫.৫ শতাংশ করেছি৷'

    করোনার প্রতিষেধক দেওয়া শুরু হওয়া সত্ত্বেও গত কয়েকদিনে ভারতে করোনা সংক্রামিতের সংখ্যা রোজই লাফিয়ে বাড়ছে৷ ফেব্রুয়ারিতেও যেখানে দৈনিক সংক্রামিতের সংখ্যা কমতে কমতে ১০ হাজারের নীচে চলে গিয়েছিল, সেখানে বর্তমানে তা ফের ৪০ হাজার ছাড়িয়ে গিয়েছে৷

    ইউরোপের বিভিন্ন জায়গায় নতুন করে সংক্রমণ বাড়ায় ফের একবার কড়া বিধিনিষেধ জারি করা হয়েছে৷ ভারত অবশ্য এখনও সেই পথে হাঁটেনি৷ গত বছরও এই সময়ই কয়েক ঘণ্টার নোটিসে লকডাউন ঘোষণা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷ যার জেরে অনিশ্চিত ভবিষ্যতের মুখে পড়েছিলেন অসংখ্য পরিযায়ী শ্রমিক৷

    ভারতে এখন করোনা নিয়ে সবথেকে বেশি উদ্বেগজনক পরিস্থিতি রয়েছে মহারাষ্ট্রে৷ ইতিমধ্যেই মহারাষ্ট্রের বেশ কয়েকটি জেলায় লকডাউন জারি করা হয়েছে৷ দেশের অন্যান্য প্রান্তেও একই পদক্ষেপ করতে হবে কি না, সেই আশঙ্কাও তৈরি হয়েছে৷ অথচ এখনও প্রথম পর্যায়ের লকডাউনের ধাক্কায় কর্মহীন হয়ে পড়া অনেকেই কাজ ফিরে পাননি৷ সেন্টার ফর মনিটরিং ইন্ডিয়ান ইকনমির তথ্য বলছে, জানুয়ারিতে যেখানে দেশের বেকারত্বের হার ছিল ৬.৫ শতাংশ, সেখানে ফেব্রুয়ারিতে তা সামান্য হলেও বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬.৬ শতাংশ৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: