হোম /খবর /ব্যবসা-বাণিজ্য /
SIP-র কিস্তি দিতে ভুলে গেছেন! এই সমস্যায় পড়তে পারেন আপনি

SIP-র কিস্তি দিতে ভুলে গেছেন! এই সমস্যায় পড়তে পারেন আপনি

যদি কেউ সিস্টেমেটিক ইনভেস্টমেন্ট প্ল্যান বা এসআইপি-র মাধ্যমে বিনিয়োগ করেন তা হলে শৃঙ্খলা আরও গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে।

  • Share this:

#কলকাতা: বিনিয়োগে শৃঙ্খলা প্রয়োজন। এটি একটি ধারাবাহিক পদ্ধতি। বিশেষ করে যদি কেউ সিস্টেমেটিক ইনভেস্টমেন্ট প্ল্যান বা এসআইপি-র মাধ্যমে বিনিয়োগ করেন তা হলে শৃঙ্খলা আরও গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে। এসআইপি-র মাধ্যমে প্রতি মাসে নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা বিনিয়োগ করতে হয়। বছরের পর বছর অর্থাৎ বিনিয়োগের মেয়াদ কাল জুড়ে এটা বজায় রাখা প্রয়োজন।

এসআইপিতে প্রতি মাসে বা তিন মাস অন্তর একবার বিনিয়োগকারীর অ্যাকাউন্ট থেকে কেটে নেওয়ার এবং বিনিয়োগকারীর হয়ে বিনিয়োগ করার অধিকার ফান্ড হাউজকে দেওয়া হয়। কিন্তু যদি এক মাসের কিস্তির এসআইপি যদি না দেওয়া হয় তা হলে কী হবে? কী কী অসুবিধা হতে পারে?

আরও পড়ুন: ডিসেম্বর থেকে সব নতুন ব্যবস্থা! কী করা যাবে, কী করা যাবে না, দেখে নিন এক নজরে

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বিনিয়োগকারী যদি পরপর তিন বার এসআইপি-র কিস্তি না দেন তাহলে ফান্ড হাউজ নিজেই এসআইপি প্ল্যান বাতিল করে দেয়। একবার বা দুইবার কিস্তি পরিশোধে দেরি হলে বা ভুলে গেলে কোনও জরিমানা হয় না। তবে পরপর তিন বার একই ভুলের পুনরাবৃত্তি বিপজ্জনক হতে পারে।

আরও পড়ুন: ডিসেম্বর মাসে ১৪ দিন বন্ধ থাকতে চলেছে ব্যাঙ্ক! দেখে নিন ছুটির তালিকা

এই সময়টা তিন মাস কেন?

ইসিএস-এর নির্দেশিকা অনুযায়ী, অন্তত তিন মাসের জন্য ফান্ড হাইজে ডেবিট অনুরোধ পাঠানো বাধ্যতামূলক। এর জন্য ফান্ড হাউজ কোনও জরিমানা আরোপ করতে পারে না, তবে প্রয়োজনে ব্যাঙ্ক জরিমানা করতে পারে। বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, ব্যাঙ্ক এই জরিমানা নেয় এবং জরিমানার অঙ্ক বিভিন্ন ব্যাঙ্কে বিভিন্ন রকম। যেমন আইসিআইসিআই ব্যাঙ্ক এক মাসের এসআইপি মিস করলে ৩৫০ টাকা জরিমানা নেওয়া হয়।

হাতে নগদ কম থাকলে কী হবে?

বিনিয়োগকারী যদি দেখেন, আগামী কয়েক মাস টাকার টানাটানি চলবে, তাহলে তিনি সাময়িক ভাবে এসআইপি বন্ধ করতে পারেন। এর জন্য কোনও জরিমানা দিতে হবে না। অনলাইনে বা লিখিত আবেদনপত্র জমা করতে হবে শুধু। প্রসঙ্গত, অনলাইনে আবেদন মঞ্জুর হতে ১০ দিন সময় লাগে। অন্যদিকে লিখিত আবেদন প্রক্রিয়ায় প্রায় ১ মাস লেগে যায়। আর্থিক টানাটানি কাটলে ফের এসআইপি শুরু করার সুবিধা পাওয়া যায়। এ ছাড়া ফান্ড হাউজের সঙ্গে কথা বলেও এসআইপি বন্ধ করতে পারেন বিনিয়োগকারীরা। তবে এর জন্য কতদিন এসআইপি বন্ধ থাকবে তার নির্দিষ্ট তারিখ জানাতে হবে। ততদিন ফান্ড হাউজ টাকা চাইবে না, পিরিয়ড শেষ হয়ে গেলে ফের স্বয়ংক্রিয় ভাবে শুরু হবে। তবে সব ফান্ড হাইজ এই সুবিধা দেয় না।

Published by:Dolon Chattopadhyay
First published:

Tags: Investment, Mutual Fund, SIP