• Home
  • »
  • News
  • »
  • business
  • »
  • প্রধানমন্ত্রী বয় বন্দনা যোজনায় ৭.৪০ শতাংশ সুদ দেওয়ার কথা জানাল LIC

প্রধানমন্ত্রী বয় বন্দনা যোজনায় ৭.৪০ শতাংশ সুদ দেওয়ার কথা জানাল LIC

সাধারণ জীবনযাপন থেকে আমরা সবাই বড়লোক হতে চাই। কিন্তু ইচ্ছা থাকলেই তো আর হয় না, কিছু উপায় করতে হয়। আমরা সব সময় একটা সুন্দর সুখী জীবন পেতে চাই। কিন্তু সর্বদা সুখ পাওয়া তো আর সম্ভব নয়। জীবনে দুঃখ, সুখও দুটিই থাকে পাশাপাশি। বাড়িতে নিত্য ব্যবহারের প্রয়োজনীয় কিছু জিনিসের সাহায্যে আমরা ভাগ্যের চাকা ঘুরিয়ে ফেলতে পারি। এই ৫টি জিনিস বাড়িতে রাখলে জীবনে হয়তো কখনও অর্থকষ্ট হবে না।

সাধারণ জীবনযাপন থেকে আমরা সবাই বড়লোক হতে চাই। কিন্তু ইচ্ছা থাকলেই তো আর হয় না, কিছু উপায় করতে হয়। আমরা সব সময় একটা সুন্দর সুখী জীবন পেতে চাই। কিন্তু সর্বদা সুখ পাওয়া তো আর সম্ভব নয়। জীবনে দুঃখ, সুখও দুটিই থাকে পাশাপাশি। বাড়িতে নিত্য ব্যবহারের প্রয়োজনীয় কিছু জিনিসের সাহায্যে আমরা ভাগ্যের চাকা ঘুরিয়ে ফেলতে পারি। এই ৫টি জিনিস বাড়িতে রাখলে জীবনে হয়তো কখনও অর্থকষ্ট হবে না।

কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার অনুমোদন পাওয়ার পর ইতিমধ্যেই এই প্রকল্পে বিনিয়োগের মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে আগামী ৩১ মার্চ, ২০২৩ পর্যন্ত।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: চাকরিজীবন থেকে অবসরের পর অধিকাংশ ক্ষেত্রে ফিক্সড ডিপোজিটকে ভরসা করেই এগোতে হয় প্রবীণদের। তবে এই করোনা পরিস্থিতিতে বর্তমানে তাঁদের এই ভরসার জায়গাটিও নড়বড়ে। ইতিমধ্যে বহু ব্যাঙ্ক সুদের হার কমিয়েছে। তাই ফিক্সড ডিপোজিটেও কমেছে সুদের হার। আর এই পরিস্থিতিতে দিশা দেখাচ্ছে প্রধানমন্ত্রী বয় বন্দনা যোজনা (পিএমভিভিওয়াই)। যদি কেউ লাভজনক বিনিয়োগের দিকে ঝুঁকতে চান, তাঁদের জন্য বার বার প্রধানমন্ত্রী বয় বন্দনা যোজনায় বিনিয়োগের পরামর্শ দিচ্ছেন অর্থনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। এ বার সেই প্রধানমন্ত্রী বয় বন্দনা যোজনার (পিএমভিভিওয়াই) প্রকল্পেই পরিবর্তন এসেছে। এই পরিবর্তিত প্রকল্পের সূত্র ধরে সম্প্রতি এলআইসি-র তরফে জানানো হয়েছে, প্রবীণ নাগরিকদের জন্য এ বার থেকে বার্ষিক ৭.৪০ শতাংশ হারে সুদ দেওয়া হবে।

কী ভাবে সুবিধা পাবেন প্রবীণ নাগরিকরা?

এ ক্ষেত্রে অনলাইনে এলআইসি-র ওয়েবসাইট licindia.in কিংবা অফলাইনে এজেন্টের মাধ্যমেও এই প্রকল্পের সুবিধা নিতে পারবেন প্রবীণ নাগরিকরা।

প্রধানমন্ত্রী বয় বন্দনা যোজনা প্রকল্পের শর্তাবলী:

এই প্রকল্পে শুধুমাত্র এলআইসি-র মাধ্যমে বিনিয়োগ করা যাবে। প্রবীণ নাগরিক, যাঁদের বয়স ৬০ বছর অথবা তার বেশি, তাঁরা এই প্রকল্পে বিনিয়োগ করতে পারবেন। তবে ন্যূনতম বয়স ৬০ বছর হতে হবে। এই প্রকল্পের মেয়াদ ১০ বছর। এ ক্ষেত্রে বার্ষিক সুদের হার ৭.৪০ শতাংশ। বিনিয়োগের উপর নির্ভর করে প্রবীণ নাগরিকরা মাসে ন্যূনতম ১০০০ টাকা পর্যন্ত পেনশন তুলতে পারবেন। এ ক্ষেত্রে মাসে সর্বোচ্চ ৯,২৫০ টাকা পর্যন্ত পেনশন তুলতে পারবেন একজন প্রবীণ নাগরিক। সব মিলিয়ে বছরে পেনশনের মোট পরিমাণ গিয়ে দাঁড়াবে ১,১১,০০০ টাকা। তবে, এই প্রকল্পের সুবিধা নেওয়ার সময় একজন কত মাস (মাসিক, ত্রৈমাসিক, ছ'মাস কিংবা এক বছর) অন্তর পেনশন নেবেন, সেটিও বেছে নিতে পারেন। প্রকল্পের পরিবর্তনের সূত্র ধরে বিনিয়োগের পরিমাণেও পরিবর্তন এসেছে। পরিবর্তিত প্রকল্পে মাসে ১,০০০ টাকা করে পেনশনের জন্য বছরে ন্যূনতম বিনিয়োগের পরিমাণ হতে হবে ১,৬২,১৬২ টাকা।

প্রধানমন্ত্রী বয় বন্দনা যোজনা প্রকল্পের সুবিধা:

সব চেয়ে বড় ব্যাপার হল ১০ বছর মেয়াদের জন্য পেনশনের নিশ্চয়তা দিচ্ছে এই প্রকল্প। মেয়াদের মধ্যেই যদি কোনও বিনিয়োগকারীর মৃত্যু হয়, তা হলে বিনিয়োগের টাকা ফেরত দেওয়া হবে। এ ক্ষেত্রে তাঁর কোনও নমিনি থাকলে, সেই নমিনিকে টাকা ফেরত দেওয়া হবে। আর গ্রাহক যদি মেয়াদ সম্পূর্ণ হওয়া পর্যন্ত জীবিত থাকেন, তা হলে বিনিয়োগ এবং চূড়ান্ত পেনশনের কিস্তিসহ সমস্ত টাকা পাবেন তিনি।

তবে, কোনও জরুরিকালীন পরিস্থিতিতে, মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই টাকা তোলা যেতে পারে। মেয়াদ পূরণের আগে বিনিয়োগ তুলে নিতে চাইলে ৯৮ শতাংশ পর্যন্ত ফেরত দেওয়া হবে। এ ছাড়া তিন বছর মেয়াদ পূরণ হওয়ার পর বিনিয়োগের উপর সর্বাধিক ৭৫ শতাংশ পর্যন্ত ঋণ দেওয়া হয়।

উল্লেখ্য, কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার অনুমোদন পাওয়ার পর ইতিমধ্যেই এই প্রকল্পে বিনিয়োগের মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে আগামী ৩১ মার্চ, ২০২৩ পর্যন্ত।

Published by:Dolon Chattopadhyay
First published: