সময় আর ৪ বছর, ১০০ সরকারি সংস্থা বেচে দেবে মোদি সরকার! তালিকায় কী কী?

বড় মাপের বেসরকারিকরণ

ওই সংস্থাগুলিকে চিহ্নিত করেছে নীতি আয়োগ। ওই ১০০ সংস্থার মূল্য প্রায় ৫ লক্ষ কোটি টাকা।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই বেসরকারিকরণের পথে হাঁটছে মোদি সরকার। কেন্দ্রীয় সরকারের অবশ্য যুক্তি, সরকার ব্যবসা করবে না। সেই সূত্রেই এবার প্রকাশ্যে এল, কেন্দ্রীয় সরকারের পরবর্তী পরিকল্পনা। সেই পরিকল্পনা অনুযায়ী, আগামী চার বছরে ১০০ সরকারি সংস্থা বিক্রি করতে চায় মোদি সরকার। ইতিমধ্যেই ওই সংস্থাগুলিকে চিহ্নিত করেছে নীতি আয়োগ। ওই ১০০ সংস্থার মূল্য প্রায় ৫ লক্ষ কোটি টাকা। ১০০ সংস্থা চিহ্নিত করে একটি পাইপলাইন অনুসারে ফার্স্ট ট্র্যাক মোডে সরকারি এই সম্পত্তি বিক্রি করা হবে।

    কোন কোন ক্ষেত্রের সম্পত্তি বিক্রি করার ভাবছে মোদি সরকার? জানা গিয়েছে, এই ক্ষেত্রে রয়েছে পোর্ট, ক্রুজ টার্মিনাল, টেলিকম, তেল ও গ্যাস পাইপলাইন, ট্রান্সমিশন টাওয়ার, রেলওয়ে স্টেশন, স্পোর্টস স্টেডিয়ামের মতো ক্ষেত্র। নীতি আয়োগের তরফে সম্প্রতি সংশ্লিষ্ট মন্ত্রকগুলিকে এ বিষয়ে তথ্য সংগ্রহে ও সম্পত্তি চিহ্নিতকরণের নির্দেশও দেওয়া হয়েছে।

    প্রসঙ্গত, ফেব্রুয়ারি মাসেই নীতি আয়োগকে বিলগ্নিকরণের জন্য রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থার তালিকা তৈরির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। নীতি আয়োগের সুপারিশের ভিত্তিতে চূড়ান্ত তালিকায় অনুমোদন দেবে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা। আর সেই তালিকাতেই ঠাঁই পেয়েছে আপাতত ১০০ সংস্থা। সূত্রের খবর, দেশে রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থার সংখ্যা বর্তমানে ৩০০। আর সেই সংখ্যা কমিয়ে ২৪ করার কথা ভাবছে মোদি সরকার। ক্ষতিতে চলা রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থাগুলির বোঝা ঘাড় থেকে নামাতেই এই উদ্যোগ নিতে চলেছে কেন্দ্রীয় বিলগ্নিকরণ দপ্তর।

    উল্লেখ্য, চলতি বছরের বাজেটে, গত ১ ফেব্রুয়ারি কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন জানিয়েছিলেন, হাতে গোনা কয়েকটি কেন্দ্রীয় রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা বাদ দিয়ে বাকিগুলির বেসরকারিকরণ করা হবে। প্রাথমিক ভাবে দু'টি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্ক এবং একটি সরকারি সাধারণ বিমা সংস্থার বেসরকারিকরণ করা হবে বলেও তিনি ওই দিনই জানিয়ে দিয়েছিলেন। জানা গিয়েছে, বিলগ্নিকরণের পরের ধাপে ভারত হেভি ইলেকট্রিক্যালস লিমিটেড (ভেল), মেকন লিমিটেড এবং অ্যান্ড্রু ইয়ুল অ্যান্ড কোম্পানিতে অংশীদারিত্ব বিক্রি করার পথে হাঁটতে পারে কেন্দ্রীয় সরকার।

    প্রসঙ্গত, চলতি অর্থবর্ষে বিভিন্ন রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থার বিলগ্নিকরণ থেকে ২.১ লক্ষ কোটি টাকা তোলার পরিকল্পনা ছিল মোদি সরকারের। কিন্তু, জানুয়ারি মাস পর্যন্ত এসেছে মাত্র ১৫,২২০ কোটি টাকা। বিনিয়োগকারী না পেয়ে এয়ার ইন্ডিয়া ও ভারত পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশনের বিলগ্নিকরণ আগামী অর্থবর্ষ পর্যন্ত পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে।

    Published by:Suman Biswas
    First published: