• Home
  • »
  • News
  • »
  • business
  • »
  • Mutual Fund Investment Tips: গ্রোথ না ডিভিডেন্ড? মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগে কোনটা হবে সেরা অপশন?

Mutual Fund Investment Tips: গ্রোথ না ডিভিডেন্ড? মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগে কোনটা হবে সেরা অপশন?

মিউচ্যুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগের আগে মাথায় রাখুন

মিউচ্যুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগের আগে মাথায় রাখুন

Mutual Fund Investment Tips: গ্রোথ না ডিভিডেন্ড ফান্ডে বিনিয়োগ করলে বেশি রিটার্ন পাওয়া যাবে তা নিয়ে সকলের মনেই একটি সংশয় কাজ করে।

  • Share this:

#কলকাতা: মিউচুয়াল ফান্ডে (Mutual Fund Investment Tips) বিনিয়োগ করে প্রায় সকলেই বেশি করে রিটার্ন পেতে চায়। এর জন্য সকলেই বিভিন্ন ধরনের মিউচুয়াল ফান্ডে তাদের টাকা বিনিয়োগ করে। কিন্তু মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ করার সময় সকলের মধ্যেই যে দ্বিধা কাজ করে সেটি হল তারা কোন ধরনের ফান্ডে বিনিয়োগ করবে। অর্থাৎ গ্রোথ না ডিভিডেন্ড ফান্ডে বিনিয়োগ করলে বেশি রিটার্ন পাওয়া যাবে তা নিয়ে সকলের মনেই একটি সংশয় কাজ করে। তাই মিউচুয়াল ফান্ডে (Mutual Fund Investment Tips)  বিনিয়োগ করার আগে জেনে নেওয়া যাক গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি বিষয়।

আরও পড়ুন: ১০ হাজার দিয়ে ঘরে আসবে ১৬ লক্ষ টাকা ! এক নজরে দেখে নিন পোস্ট অফিসের একটি দুর্দান্ত স্কিম

গ্রোথ অপশন (Growth Fund) মিউচুয়াল ফান্ডের (Mutual Fund Investment Tips)  এই গ্রোথ অপশনে বিনিয়োগ করলে সেটি লম্বা সময় অর্থাৎ অনেকদিন ধরে করা উচিত। অনেকদিন ধরে এখানে টাকা জমাতে থাকলে একটি ভালো সংখ্যার টাকা রিটার্ন পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। শেয়ার বাজার প্রায় সব সময়ই ওঠানামা করে। শেয়ার বাজারে এই গ্রোথ অপশনের টাকা বিনিয়োগ করার ফলে কখনও এর থেকে বেশি রিটার্ন পাওয়ার সম্ভাবনা থাকে, আবার কখনও কম রিটার্ন পাওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়। এর ফলে বহু দিন ধরে এই গ্রোথ অপশনে একটানা টাকা বিনিয়োগ করে গেলে, সেটি তোলার সময় ভালো রিটার্ন পাওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়। কারণ এক্ষেত্রে বাজারের ওঠানামা সত্ত্বেও একটা ব্যাল্যান্স তৈরি হয়, যা বিনিয়োগকারীদের লোকসানের হাত থেকে বাঁচিয়ে ভালো রিটার্ন দিতে সাহায্য করে।

আরও পড়ুন: আধার কার্ডে কীভাবে বদলাবেন নাম, ঠিকানা ও জন্মতারিখ ? দেখে নিন পুরো পদ্ধতি

ডিভিডেন্ড অপশন (Dividend Fund) মিউচুয়াল ফান্ডের এই ডিভিডেন্ড অপশনে বিনিয়োগ করলে রেগুলার বেসিসে বিনিয়োগ করা টাকার পরিমাণের ওপর একটা ডিভিডেন্ড ইনকাম পাওয়া যায়। মূল রাশির বিনিয়োগের ওপর এই ডিভিডেন্ড ইনকাম পাওয়া যায়। অর্থাৎ যে পরিমাণ টাকা এই ডিভিডেন্ড অপশনে বিনিয়োগ করা হবে, বিনিয়োগকারীরা সেই টাকার ওপর ডিভিডেন্ট পেতে থাকSet featured imageবে। এর সঙ্গে বিনিয়োগ করা টাকার পরিমাণও বাড়তে থাকবে। কেউ যদি চায় তাহলে সেই ডিভিডেন্ডের টাকা তুলে নিতে পারে। এক্ষেত্রে ডিভিডেন্ড পাওয়া টাকা তুলে নিলেও বিনিয়োগ করা টাকা একই থাকবে এবং সেটি শেয়ার বাজার অনুযায়ী ওঠানামা করতে থাকবে। বিনিয়োগ করা টাকা এবং ডিভিডেন্ড হওয়া টাকা একসঙ্গে অনেক দিন পর্যন্ত জমাতে থাকলে সেই ফান্ডে একটা ভালো পরিমাণ টাকা রিটার্ন পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

মিউচুয়াল ফান্ডের টাকা শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ করা হয়। এর ফলে এখানে টাকা বিনিয়োগ করার আগে সেই ফান্ড সম্পর্কে ভালো করে জেনে নেওয়া দরকার।

Published by:Sanjukta Sarkar
First published: