corona virus btn
corona virus btn
Loading

প্রযুক্তিগত দিকে আরও উন্নতি, ভারতকে ডিজিটাল সোসাইটিতে পরিণত করাই লক্ষ্য, জানালেন মুকেশ আম্বানি

প্রযুক্তিগত দিকে আরও উন্নতি, ভারতকে ডিজিটাল সোসাইটিতে পরিণত করাই লক্ষ্য, জানালেন মুকেশ আম্বানি

ভারতকে ‘ডিজিটাল সোসাইটি’-তে পরিণত করাই মুকেশ আম্বানির স্বপ্ন ৷

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: দেশকে কেবল আত্মনির্ভর নয়, ডিজিটালি উন্নত করতেও বদ্ধপরিকর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। গত ১৫ অগাস্ট স্বাধীনতা দিবসের দিনই সেই ডিজিটাল ভারত গড়ার লক্ষ্যে তিনটি বড় ঘোষণা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী। এক, ন্যাশনাল ডিজিটাল হেলথ মিশন, দুই নতুন সাইবার সিকিউরিটি পলিসি এবং ১০০০ দিনের মধ্যে দেশের ছ’লক্ষ গ্রামে অপটিকাল ফাইবার কানেকশন দেওয়া। গোটা বিশ্বই এখন প্রযুক্তি নির্ভর ৷ এর গুরুত্ব বাড়ছে সর্বত্র ৷ এই রেসে নেমে পড়েছে ভারতও ৷ এখনও বিশ্বের শক্তিশালী দেশগুলির সঙ্গে লড়াইয়ে কিছুটা পিছিয়ে থাকলেও তাদের ধরার চেষ্টায় রয়েছে ভারত ৷ রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজের চেয়ারম্যান মুকেশ আম্বানি কিছুদিন আগেই জানিয়েছিলেন, এই কাজে শুধুমাত্র বিশ্বের সেরা শক্তিগুলিকে ধরাই নয় ৷ তাদেরকে ছাপিয়ে গিয়ে বিশ্বসেরা হওয়ার ক্ষমতাও রাখে ভারত ৷ ভারতকে ডিজিটালি উন্নতির শিখরে নিয়ে যাওয়াই রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ চেয়ারম্যানের লক্ষ্য ৷ ভারতকে ‘ডিজিটাল সোসাইটি’-তে পরিণত করাই মুকেশ আম্বানির স্বপ্ন ৷ দেশের শিক্ষাব্যবস্থা এবং কারিগরী শিক্ষার ভিত আরও শক্ত করা এবং জীবাশ্ম জ্বালানিগুলির উপর নির্ভরতা কমিয়ে পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তির দিকে বেশি ফোকাস করা। এই সব লক্ষ্য নিয়েই কাজ করছে রিলায়েন্স ৷

এনকে সিংয়ের বই Portraits Of Power: Half A Century of Being at Ringside-এর ভার্চুয়াল লঞ্চ ইভেন্টে সোমবার মুকেশ আম্বানি বলেন, "আমি মূলত তিনটি জিনিস নিয়ে কাজ করছি। প্রথমটি হল ভারতকে ডিজিটাল সমাজে রূপান্তরিত করা ৷ সেই ডিজিটাল সমাজে ভবিষ্যতের সমস্ত শিল্প অন্তর্ভুক্ত হয় ৷ যাতে ভারতের পরবর্তী ৩০ বছর ১০০ গুণ উন্নতি সম্ভব হয় ৷ এমনটা আমরা আগে কখনও ভাবিওনি ৷ ’’

মুকেশ আম্বানির নজর রয়েছে দেশের শিক্ষাব্যবস্থায় ৷ যার উপর ভারতের ২০০ মিলিয়নের বেশি শিশুদের ভবিষ্যত নির্ভর করছে ৷ আম্বানি এদিন বলেন, "আমাদের শিক্ষাক্ষেত্রে রূপান্তরের সময় এসেছে ৷ ভারতের স্কিল বেসকে পুরোপুরি বদল করতে আমাদের আট থেকে দশ বছর সময় লাগবে। আমি মনে করি সেই ম্যাজিককে বাস্তবে রূপ দেওয়ার এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে সংযোগ স্থাপনের উপায় রয়েছে। স্কিল ট্রেনিং এবং কর্মসংস্থানের মাধ্যমেই উন্নত ভারতকে পাওয়া সম্ভব ৷ ’’

বিশ্বের অন্যতম বড় পেট্রোকেমিক্যাল সংস্থার প্রধান মুকেশ আম্বানি নিজের তৃতীয় লক্ষ্য হিসাবে জানান, "আমরা যে তৃতীয় বিষয়টি নিয়ে কাজ করছি তা হল শক্তির রূপান্তর ৷ এবং ভারত সঠিক চিন্তাধারা নিয়েই চলছে ৷ আগামী কয়েক দশকে জীবাশ্ম জ্বালানী থেকে সম্পূর্ণভাবে পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তির দিকেই ঝুঁকে দেশ ।’’

নিজের সংস্থার কথাই উল্লেখ করে মুকেশ আম্বানি জানান, কী ভাবে রিলায়েন্সের প্রতিষ্ঠাতা তাঁর বাবা ধীরুভাই আম্বানি জামাকাপড়ের ব্যবসার পাশাপাশি উন্নত প্রযুক্তির কথাও ভেবেছিলেন ৷ যারই ফলস্বরূপ জন্ম নিয়েছে রিলায়েন্স জিও ইনফোকম (জিও) ৷

আম্বানির মতে, "আমাদের চিন্তাভাবনা ছিল, আমরা ভবিষ্যতের প্রযুক্তি তৈরি করতে পারছি কী না ৷ আমার বাবা সবসময়ে বলতেন যে কেবল একটি টেক্সটাইল সংস্থা হতে চাই না ৷ ভবিষ্যতের উন্নতির কথা ভেবে এমন ব্যবসায় বিনিয়োগ করা উচিৎ ৷ যা পরবর্তী প্রজন্মের জন্য তৈরি ৷ আমরা ঠিক সেটাই করতে পেরেছি ৷ ’’

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: October 19, 2020, 11:08 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर