corona virus btn
corona virus btn
Loading

‘মাইক্রো এটিএম’ ভারতে যুগান্তকারী পরিবর্তন নিয়ে আসবে, দাবি RapiPay-এর

‘মাইক্রো এটিএম’ ভারতে যুগান্তকারী পরিবর্তন নিয়ে আসবে, দাবি RapiPay-এর

র‌্যাপি পে-এর বিসি মডেল লক্ষ লক্ষ ভারতীয় খুচরো বিক্রেতাকে আত্মকর্মসংস্থানের সুযোগ দিয়ে এক ‘আত্মনির্ভর ভারত’ গড়ার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

  • Share this:

#কলকাতা: Fintech সংস্থা, র‍্যাপি পে (RapiPay) সম্প্রতি সারা ভারত জুড়ে মাইক্রো এটিএম (mATMs) চালু করল। র‍্যাপি পে ফ্র্যাঞ্চাইজড রিটেল নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে গ্রাহকদের ব্যাঙ্কিং বিজনেস করেসপন্ডেন্টস (BCs) পরিষেবা দেয় । ক্যাপিটাল ইন্ডিয়া ফিনান্স লিমিটেড (সিআইএফএল) এর অধীনস্ত এই সংস্থাটির দৃঢ় বিশ্বাস যে এটিএম থেকে নগদ টাকা তোলার ক্ষেত্রে এই মাইক্রো এটিএমগুলি ভারতীয় গ্রাহকদের কাছে বিশেষত দ্বিতীয় ও তৃতীয় শ্রেণীর শহর এবং গ্রামাঞ্চলের প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জন্য এক যুগান্তকারী পরিবর্তন নিয়ে আসবে । র‌্যাপি পে-এর বিসি মডেল লক্ষ লক্ষ ভারতীয় খুচরো বিক্রেতাকে আত্মকর্মসংস্থানের সুযোগ দিয়ে এক ‘আত্মনির্ভর ভারত’ গড়ার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

এই নতুন পরিষেবা চালু করে র‌্যাপি পে -এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর এবং সিইও যোগেন্দ্র কাশ্যপ বলেন, ‘‘আমাদের মাইক্রো এটিএমগুলি বাজারে দুর্দান্ত সাড়া পেয়েছে ৷ এবং আমরা এটি চালু করার একমাসের মধ্যেই ২৫ হাজারেরও বেশি ডিভাইস ইনস্টল করতে সক্ষম হয়েছি। প্রচলিত এটিএম মেশিনের তুলনায় র‌্যাপি পে মাইক্রো এটিএমগুলি যুগান্তকারী এবং গ্রাহকরা যেকোনও র‍্যাপি পে সাথী স্টোরে গিয়ে অতি সহজেই নগদ টাকা তুলতে পারবেন বা একইরকম কাজ করতে পারবেন এবং এর ফলে তাদের দূরে দূরে এটিএমের সন্ধানে ঘুরতে হবে না । "

শ্রী কাশ্যপ আরও বলেন "প্রতিবেশী দোকানে মাইক্রো এটিএম, এইপিএস (AePS) এবং টাকা ট্রান্সফার, বিল ও করের পেমেন্ট ইত্যাদির মতো অন্যান্য পরিষেবার সহজলভ্যতা গ্রাহকদের কাছাকাছির মধ্যেই ব্যাঙ্কিং এবং পেমেন্ট পরিষেবার সহজ সমাধান এনে দিয়েছে "।

বর্তমানে মহামারীর সময় নগদ টাকা তোলার ক্ষেত্রে এই মাইক্রো এটিএমগুলি বিশেষ ভূমিকা পালন করে চলেছে ৷ বিশেষত কর্মহীন শ্রমিক, কৃষকদের জন্য জন ধন অ্যাকাউন্টে সরকারের পাঠানো ১.৭৫ লক্ষ কোটি টাকা তোলার সময় এটা ব্যবহার করা যথেষ্ট সুবিধাজনক ৷

আরবিআইয়ের সাম্প্রতিক তথ্যে প্রকাশিত হয়েছে যে দেশের ২.২ লক্ষ এটিএমের মধ্যে কেবল ১৯% এটিএম গ্রামাঞ্চলে রয়েছে যেখানে মোট ভারতীয় জনসংখ্যার ৬২% বাস করেন । গ্রামীণ অঞ্চলে এটিএম সংখ্যা কম উপরন্তু এটিএমের মোট সংখ্যা প্রতিবছরই কমছে। তাই দেশের প্রতিটি প্রান্তে এবং গ্রামাঞ্চলে টাকা তোলার সুবিধার জন্য মাইক্রো এটিএম গুলির চাহিদা বেড়ে চলেছে ।

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: September 8, 2020, 4:52 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर