Home /News /business /
Home Loan And Inflation: মুদ্রাস্ফীতির খবর বাড়ি ক্রেতাদের কাছে দুঃসংবাদ, তবে এই পথে মুক্তির উপায় রয়েছে!

Home Loan And Inflation: মুদ্রাস্ফীতির খবর বাড়ি ক্রেতাদের কাছে দুঃসংবাদ, তবে এই পথে মুক্তির উপায় রয়েছে!

মুদ্রাস্ফীতি ও গৃহঋণ

মুদ্রাস্ফীতি ও গৃহঋণ

Home Loan And Inflation: চলতি বছরে কয়েক দফায় রেপো রেট আরও বাড়তে পারে।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: মুদ্রাস্ফীতিকে নিয়ন্ত্রণ করতে রেপো রেট ৪০ বেসিস পয়েন্ট বাড়িয়েছে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক। ফলে হোম লোনে সুদের হারও বাড়ছে। বাড়ির ক্রেতাদের কাছে এটা বড় দুঃসংবাদ। শুধু তাই নয়, চলতি বছরে কয়েক দফায় রেপো রেট আরও বাড়তে পারে। ফলে প্রতিটা বৃদ্ধির সঙ্গে ঋণ গ্রহীতার সুদের হারও বৃদ্ধি পাবে।

বিশেষ করে নতুন বাড়ির মালিকদের কাছে পরিস্থিতি সত্যিই উদ্বেগজনক। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে রক-বটম হারে ঋণ নেওয়ার সুবিধা তাঁরা পেয়েছেন। কীভাবে সেই ঋণ শোধ করবেন তার পরিকল্পনাও ছকা ছিল। যেমন একজন ব্যক্তি ৩০ বছর বয়সে ঋণ নিয়ে ৫০ বছরের মধ্যে তা শোধ করে দেওয়ার কথা ভাবতে পারেন। কিন্তু সুদ বেড়ে যাওয়ায় ঋণ শুধতে তাঁকে আরও ১০ বছর অপেক্ষা করতে হবে। অর্থাৎ ৬০ বছর বয়সে পৌঁছে তিনি সেই ঋণ শোধ করতে পারবেন। এর ফলে সেই ব্যক্তির শুধু অন্যান্য আর্থিক পরিকল্পনাই নয়, অবসর গ্রহণের সঞ্চয়ও বিপন্ন হতে পারে। এই পরিস্থিতিতে কী করণীয়?

আরও পড়ুন : আগেই 'বিবাহিত' প্রেমিক সাগ্নিক! আত্মহত্যা নাকি খুন? অভিনেত্রী পল্লবীর ময়নাতদন্তে যা ইঙ্গিত...

হোম লোন প্রি-পে করার চেষ্টা করতে হবে: বিশেষজ্ঞরা বলছেন ১০০ বেসিস পয়েন্ট পর্যন্ত ঋণগ্রহীতাদের খুব একটা চিন্তা করতে হবে না। এর জন্য সহজ পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে। বার্ষিক লোন শোধের মোট পরিমাণের ৫ শতাংশ প্রি পে করতে হবে। এভাবে চললে ১২ বছরের মধ্যে ২০ বছরের লোন পরিশোধ করা সম্ভব।

অতিরিক্ত ইএমআই দিতে হবে: দ্বিতীয় পদ্ধতি হল, স্বেচ্ছায় ইএমআই-এর পরিমাণ বৃদ্ধি করা। এতে নিয়মিত ইএমআই-এর উপর এই অতিরিক্ত ইএমআই প্রি পেমেন্ট হিসাবে কাজ করবে। ধরা যাক, ২৫০০০ টাকা মাসিক ইএমআই। এখন ঋণগ্রহীতা যদি ৩৫০০০ টাকা করে ইএমআই দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন তাহলে বাড়তি ১০০০০ টাকা ঋণ পরিশোধের সময়কে কমিয়ে দেবে। এক্ষেত্রে আয় বৃদ্ধির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে ইএমআই বাড়ানো যায়।

আরও পড়ুন : বাজারে অস্থিরতা বাড়ায় বিনিয়োগকারীরা কি মিউচুয়াল ফান্ড থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন? জানুন সত্য!

কম সুদের হার কোথায়: হোম লোন পরিশোধের যথেষ্ট সময় বাকি থাকলে এমন ঋণদাতার সন্ধান করা উচিত যারা কম সুদের হারে ঋণ দিচ্ছে। অবশ্য কম সুদের হারে ঋণ দেওয়া প্রতিষ্ঠানে সুইচ করে ঋণগ্রহীতা কতটা সাশ্রয় করতে পারবেন সেটা অঙ্ক কষে নিজেকেই বের করতে হবে।

কৌশলগত প্রিপেমেন্ট: মুদ্রাস্ফীতি আরও উর্ধ্বমুখী হলে কৌশলগত প্রি পেমেন্ট অবলম্বন করতে হবে। ধরা যাক একজন ব্যক্তি ২০২১ সালের মে থেকে ৬.৭ শতাংশ সুদের হারে ৫০ লাখ টাকার ঋণ পরিশোধ করছেন। ১৩ টা ইএমআই-এর পর নতুন সুদের হার ৭.১ শতাংশে রিসেট হয়। এর ফলে মেয়াদ মে-তে ২২৭ মাস থেকে কমে জুন থেকে ২৪৩ মাসে বেড়েছে। এখানে পরিকল্পনা হল জুনের শেষে ঋণের মেয়াদ ২২৬-এ ফিরিয়ে আনা। জুন মাসে ১.৭৫ লক্ষ টাকার একক, কৌশলগত প্রিপেমেন্টের মাধ্যমে এটা অর্জন করা সম্ভব। প্রতিবার রেট বৃদ্ধির সময়, এই পদক্ষেপ অবলম্বন করা যায়।

Published by:Sanjukta Sarkar
First published:

Tags: Home Loan, Inflation

পরবর্তী খবর