বাজেট ২০২১: শিল্প পরিকাঠামো ভাসতে পারে অনুদানের জোয়ারে, বলছে সমীক্ষা!

খবর মোতাবেকে, Deloitte Touche Tohmatsu-এর এই সমীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছিলেন ১৮০ জন উদ্যোগপতি।

খবর মোতাবেকে, Deloitte Touche Tohmatsu-এর এই সমীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছিলেন ১৮০ জন উদ্যোগপতি।

  • Share this:

#কলকাতা: শুধু এই দেশ নয়, করোনাকালে সারা বিশ্বের অর্থনীতিই এসে দাঁড়িয়েছে এক টালমাটাল পরিস্থিতির মুখে। এক্ষেত্রে শিল্প ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সব চেয়ে বেশি। অনেক ক্ষুদ্র এবং মাঝারি শিল্পকারখানার দরজার তালা লকডাউন উঠে যাওয়ার পরেও খোলেনি। ফলে ২০২১-২০২২ অর্থবর্ষের কেন্দ্রীয় বাজেট বিষয়টিকে কী ভাবে দেখতে পারে, দেশের শিল্পক্ষেত্রের বিধ্বস্ত হাল ফেরাতে কী করতে পারে, তা নিয়ে একটি সমীক্ষা পরিচালনা করেছিল Deloitte Touche Tohmatsu। সমীক্ষার রিপোর্ট বলছে যে দেশের বেশিরভাগ উদ্যোগপতিই শিল্প পরিকাঠামোয় ব্যাপক পরিমাণ অনুদানের আশায় বুক বেঁধে আছেন।

খবর মোতাবেকে, Deloitte Touche Tohmatsu-এর এই সমীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছিলেন ১৮০ জন উদ্যোগপতি। এঁদের মধ্যে ৬৮ শতাংশ শিল্পপতি আশার আলোর কথা তুলে ধরেছেন। তাঁদের দাবি- যে ভাবে দেশে করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিনের গণট্রায়াল শুরু হয়ে গিয়েছে, তা শিল্পের হাল ফেরাতে এক বড় ভূমিকা গ্রহণ করবে। অর্থাৎ তাঁদের মত- শিল্পক্ষেত্রে লোকবল বাড়তে চলেছে। পাশাপাশি এই সব শিল্পপতিরা নানা বিষয়ে ভারত সরকারের ডিজিটাল প্রকল্পকেও সাধুবাদ জানিয়েছেন। তাঁদের বক্তব্য- নতুন ভারত গড়ার লক্ষ্যে, শিল্পের উন্নতিতে এই ডিজিটাল প্রকল্পগুলো এক বড় ভূমিকা পালন করবে।

তবে সমীক্ষায় অংশগ্রহণকারী শিল্পপতিরা আরেকটা কথাও উল্লেখ করতে ভুলছেন না। তাঁরা জানিয়েছেন যে শিল্পক্ষেত্রে উন্নতির জোয়ার নিয়ে আসতে হলে সবার আগে পরিকাঠামোটিকে মজবুত করে তুলতে হবে। আর সেটা সরকারি অনুদান ছাড়া সম্ভব নয়। ন্যাশনাল ইনফ্রাস্ট্রাকচার পাইপলাইন প্রকল্পের অধীনে যে পরিকল্পনাগুলি ইতিপূর্বে নেওয়া হয়েছিল, সেই সূত্র ধরেই আসন্ন বাজেটে শিল্পখাতে অনুদানের যথাযথ ব্যবস্থা করতে পারে সরকার বলে আশা পোষণ করেছেন তাঁরা। পাশাপাশি তাঁদের বক্তব্য- শিল্পক্ষেত্রে করের বোঝা কমালে উন্নতির পথ প্রশস্ত হবে।

Deloitte India-র পাবলিক পলিসি লিডার সঞ্জয় পাঠক জানিয়েছেন যে এর আগে সরকার আত্মনির্ভর ভারত-এর মতো যে প্রকল্পগুলো গ্রহণ করেছিল, তা পণ্য প্রস্তুতের প্রক্রিয়া এবং নানা কনজিউমার প্রোডাক্টের ক্ষেত্রে উপকারী বলে সাব্যস্ত হয়েছে। তাঁর আশা, আগামী বাজেট থেকে একই ভাবে শিল্পের অন্য ক্ষেত্রগুলিও উপকৃত হবে।

জমি এবং শ্রমিক আইনে সংস্কার, সীমান্তের ওপারে বাণিজ্যনীতির সংস্কার- এই বিষয়গুলোও শিল্পক্ষেত্রকে চাঙ্গা করে তুলবে বলে সমীক্ষার ৪৯ শতাংশ অংশগ্রহণকারী দাবি করেছেন। অনেকের বক্তব্য, পাবলিক সেক্টরের প্রাইভেটাইজেশনও শিল্পের উন্নতির সহায়ক হতে পারে। পাশাপাশি, তা সরকারের কোষেও রাজস্বের পরিমাণ বাড়াবে বলে জানিয়েছেন শিল্পপতিরা।

Published by:Dolon Chattopadhyay
First published: