বিশ্বের সব চেয়ে ধনী ব্যক্তি এলন মাস্ক; কী করে এত পয়সা করলেন তিনি?

বিশ্বের সব চেয়ে ধনী ব্যক্তি এলন মাস্ক; কী করে এত পয়সা করলেন তিনি?

৪৯ বছর বয়সি মাস্ক দক্ষিণ আফ্রিকায় জন্মেছিলেন। এর পর পড়াশোনার সূত্রে ওনটারিও (Ontario) ও পেনসিলভেনিয়ায় (Pennsylvania) ছিলেন।

৪৯ বছর বয়সি মাস্ক দক্ষিণ আফ্রিকায় জন্মেছিলেন। এর পর পড়াশোনার সূত্রে ওনটারিও (Ontario) ও পেনসিলভেনিয়ায় (Pennsylvania) ছিলেন।

  • Share this:

#নিউইর্য়ক: এ যেন আচমকা উত্থান। ২০১৭ সালের অক্টোবর থেকে বিশ্বের ধনীতম ব্যক্তিদের মধ্যে শীর্ষ স্থানে ছিলেন অ্যামাজনের (Amazon) CEO জেফ বেজোস (Jeff Bezos)। এবার সেই কৃতিত্বে ছেদ পড়ল। বেজোসকে পিছনে ফেলে বিশ্বের সব চেয়ে ধনী ব্যক্তির তালিকায় নাম উঠে এল SpaceX ও Tesla-র CEO এলন মাস্কের (Elon Musk)। ব্লুমবার্গ বিলিওনেয়ার ইনডেক্সের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, এলন মাস্কের মোট সম্পত্তির পরিমাণ ১৮০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারেরও বেশি।

বছরের শুরু থেকেই ইঙ্গিত মিলেছিল। কারণ গত এক বছরে তাঁর সম্পত্তির পরিমাণ ১৫০ বিলিয়ন বৃদ্ধি পেয়েছে। আর এই সম্পদ বৃদ্ধির নেপথ্যে রয়েছে Tesla। কারণ করোনার বছরেও মুনাফা করছে গাড়িপ্রস্তুতকারী সংস্থাটি। এর জেরেই মার্ক জুকারবার্গ (Mark Zuckerberg), জেফ বেজোস থেকে শুরু একের পর এক ধনকুবেরদের পিছনে ফেলে দেন মাস্ক। বিশ্বের সব চেয়ে ধনী ব্যক্তি হওয়ার পর মাস্কের মন্তব্যও নজর কেড়েছে নেটিজেনদের। মাস্কের মন্তব্য- অদ্ভুত বিষয়, ঠিক আছে, এবার ফের কাজে ফেরার সময়!

৪৯ বছর বয়সি মাস্ক দক্ষিণ আফ্রিকায় জন্মেছিলেন। এর পর পড়াশোনার সূত্রে ওনটারিও (Ontario) ও পেনসিলভেনিয়ায় (Pennsylvania) ছিলেন। ধীরে ধীরে আমেরিকা ও কানাডার বাজারে নিজের পা শক্ত করার লড়াইয়ে নেমে পড়েন এলন। ২৫ বছর বয়সে Zip2 নামে একটি অনলাইন অ্যাডভার্টাইজিং প্ল্যাটফর্ম তৈরি করেন তিনি। বছর তিরিশের মধ্যেই মিলিওনিয়ারের তকমা জোটে কপালে। ১৯৯৯ সাল। এবার Zip2 সংস্থাটিকে Compaq Computer নামে আর এক সংস্থার কাছে বেচে দেন। ধীরে ধীরে ব্যবসায় পটু হয়ে উঠছিলেন মাস্ক।

এবার X.com নামে একটি অনলাইন ব্যাঙ্ক তৈরি করার মধ্য দিয়ে সাফল্য কড়া নাড়ে এলনের জীবনে। পরে PayPal-এর সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধে সংস্থাটি। ২০০২ সালে আবার ১.৫ বিলিয়ন ডলারে এই সংস্থাকে কিনে নেয় eBay। তবে Tesla-র সঙ্গে এলনের সম্পর্ক তাঁকে কাঙ্ক্ষিত সাফল্য দান করে। ২০১৮ সালে এক বিবৃতিতে মাস্ক নিজেই জানিয়েছিলেন, সমগ্র বিশ্বের এক সুরক্ষিত ভবিষ্যতের লক্ষ্যে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ Tesla। Tesla Model 3 সেই লক্ষ্যকে যেন আরও মজবুত করে দেয়। ধীরে ধীরে আরও বিস্তৃত পরিসরে ছড়িয়ে পড়ে মাস্ক ও Tesla-র সাম্রাজ্য।

করোনার বছরেই মাস্ক ও Tesla কার্যত বাজিমাত করে ফেলেছে। ক্যালিফোর্নিয়া ও সাংহাইতে দারুণ ভাবে ব্যবসা বাড়ায় এই সংস্থা। একের পর এক নতুন ফ্যাক্টরি খোলা থেকে শুরু করে ধীরে ধীরে লভ্যাংশ বাড়তে শুরু করে। এর মাঝে করোনার বিধি নিষেধ থেকে শুরু করে নির্বাচন সহ বেশ কিছু বিষয়ে বিতর্ক, প্রতিবন্ধকতা আসে। তবে দিনের শেষে সাফল্যের হাসি হাসছেন এলন মাস্ক-ই!

Published by:Dolon Chattopadhyay
First published: