corona virus btn
corona virus btn
Loading

দেশের বৃহত্তর স্বার্থের জন্য বড় ব্যবসার বিরুদ্ধে চক্রান্ত বন্ধ করার সময় এসেছে

দেশের বৃহত্তর স্বার্থের জন্য বড় ব্যবসার বিরুদ্ধে চক্রান্ত বন্ধ করার সময় এসেছে

শুধু কৃষক আন্দোলনকে কেন্দ্র করে বিগত কয়েক মাসে পঞ্জাবে ১৫০০ টেলিকম টাওয়ার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। রাজ্য সরকারকে এই ক্ষতির জন্য দায়ী করা যায়, প্রাইভেট সংস্থার সম্পত্তি রক্ষা করতে ব্যর্থ হওয়ায়।

  • Share this:

#মুম্বই: দেশের বড় ব্যবসা বা ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে একটা শ্রেণীর মানুষকে ভুল বোঝানোর কাজটা নতুন নয়। ইদানিং তা আরও বড় আকার নিয়েছে। কারণে, অকারণে বড় ব্যবসায়ীদের ভিলেন প্রতিপন্ন করা হচ্ছে। শুধু কৃষক আন্দোলনকে কেন্দ্র করে বিগত কয়েক মাসে পঞ্জাবে ১৫০০ টেলিকম টাওয়ার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। রাজ্য সরকারকে এই ক্ষতির জন্য দায়ী করা যায়, প্রাইভেট সংস্থার সম্পত্তি রক্ষা করতে ব্যর্থ হওয়ায়। বিশেষ করে এই মহামারীর চলাকালীন টেলিফোন মানুষের জীবনে আগের থেকেও গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। একে অপরের সঙ্গে যোগাযোগ ব্যবস্থা যখন ভার্চুয়ালি হয়ে পড়েছে তখন এর গুরুত্ব অপরিসীম। সবচেয়ে বড় কথা এই ভাঙাভাঙি করার উদাহরণ ভুল বার্তা বহন করে। মানুষের জীবনের পাশাপাশি অর্থনৈতিক উন্নতির পথে বাধা হয়ে দাঁড়ায়। কিন্তু এর পেছনে গভীর ষড়যন্ত্র থাকার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেওয়া যায় না।

বড় ব্যবসায় আক্রমণ করে আন্দোলনকারীরা ঠিক কী করছে? তারা কি ভারতীয় অর্থনীতির সবচেয়ে আধুনিক, সবচেয়ে প্রযুক্তিগতভাবে উন্নত, সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এবং গতিশীল সংস্থাগুলিকে অবজ্ঞা করছে না? রিলায়েন্স জিও কি ভারতীয় জনগণের কাছে টেলিকম বিপ্লবের সুবিধা নিয়ে আসেনি? মহামারীকালীন সময়ে এমনকি দরিদ্র শিশুদের ভার্চুয়াল ক্লাসে যেতে সহায়তা করেনি? ক্ষুদ্র ব্যবসায় এমনকি কৃষকদের সুবিধা করে দেয়নি?শুধু টেলিকম সম্পর্কিত নয় - বৃহত্তর চিত্রটি দেখুন। এটি একটি বিশাল ব্যবসা যা মহামারীকালীন সময়ে প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহের জন্য একটি লাইফলাইন হিসাবে সেবা করে কয়েক মিলিয়ন মানুষের কাছে ই-কমার্সের সুবিধা নিয়ে আসছে।

বড় ব্যবসায়ে আনা স্কেলের অর্থনীতি এবং সর্বশেষ প্রযুক্তির খরচ কমে যায়, গ্রাহকরা উপকৃত হন।পাশাপাশি একটি জাতির মূলধন জমার মূল ইঞ্জিন হিসাবে কাজ করে, যা দেশের অর্থনৈতিক বিকাশের জন্য জ্বালানী সরবরাহ করে। একমাত্র এই সংস্থাগুলি সর্বশেষ প্রযুক্তিতে বিনিয়োগ করার জন্য এবং গবেষণা ও উন্নয়নের জন্য বড় অঙ্কের পরিমাণ রেখেছিল। একটি বড় সংস্থা তার পেছনের এবং সামনের লিঙ্কেজের মাধ্যমে হাজার হাজার ছোট ছোট সংস্থাগুলি তৈরি করে। প্রকৃতপক্ষে, এই ছোট ছোট সংস্থাগুলির মধ্যে অনেকগুলি নিজেরাই বড় হয়ে উঠেছে, যদিও বেশ কয়েকটি গবেষণায় দেখা গেছে যে ভারতে এই প্রক্রিয়াটি ত্বরান্বিত করা দরকার।

পরিশেষে এটা বলতে হবে ভারতকে যদি বিশ্বমঞ্চে বিকাশ করতে হয়, যদি কৃষক এবং ক্ষুদ্র উৎপাদনের দেশ থেকে বড় হতে হয়, তা হলে বড় সংস্থাগুলি ভবিষ্যৎ। বড় সংস্থা থাকলে স্থায়ী চাকরি তৈরি হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি থাকে। আধুনিক যুগে ই-কমার্স বাজারে বড় সংস্থাগুলিকে অনেক ছোট সংস্থার সঙ্গে একসঙ্গে মিলে কাজ করতে দেখা যাচ্ছে। এর ফলে উভয় পক্ষের লাভ হওয়া ছাড়াও গ্রাহক সহায়তা পাচ্ছে। ফলে মানুষের আবেগের সুযোগ নিয়ে বড় ব্যবসাকে ভিলেন বানানোর চেষ্টা দেশের অর্থনীতির মন্দ ছাড়া ভাল করবে না।

Published by: Rohan Chowdhury
First published: December 29, 2020, 9:17 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर