৩০ হাজার টাকা পর্যন্ত বেতনভোগীদের জন্য বড় ঘোষণা করতে চলেছে সরকার

৩০ হাজার টাকা পর্যন্ত বেতনভোগীদের জন্য বড় ঘোষণা করতে চলেছে সরকার
শ্রম মন্ত্রালয়ের নিয়মের বদলের প্রস্তুতি চলছে ৷ বেশি বেতনের পায় যার তারা এই স্কিমের সুবিধা নিতে পারবেন ৷

শ্রম মন্ত্রালয়ের নিয়মের বদলের প্রস্তুতি চলছে ৷ বেশি বেতনের পায় যার তারা এই স্কিমের সুবিধা নিতে পারবেন ৷

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি:

    কেন্দ্র সরকার শীঘ্রই চাকুরিজীবীদের জন্য বড় ঘোষণা করতে চলেছে ৷ CNBC-আওয়াজের খবর অনুযায়ী, শীঘ্রই ২১,০০০ টাকার বেশি যারা বেতন পান তাঁরাও ভবিষ্যতে ESIC -এর সুবিধা পাবেন ৷ করোনা সঙ্কটে আরও বেশি সংখ্যাক কর্মীদের সাহায্য করার উদ্দেশ্যে ESIC এর নিয়ম বদল করার প্রস্তুতি চলছে ৷ এর জেরে মেডিক্যাল ও আর্থিক সাহায্যের জন্য নিয়ম বদল করা হয়েছে ৷

    প্রস্তাব অনুযায়ী, ২১,০০০ টাকার বেশি বেতন পেলে ওই বেতনভূক কর্মী এই সুবিধা পাবেন ৷ সূত্রের খবর অনুযায়ী, ৩০,০০০ টাকা পর্যন্ত যারা বেতন পান তারা ESIC এর সুবিধা পাবেন ৷


    শ্রম মন্ত্রালয়ের তরফে ইতিমধ্যে নিয়মের বদলের প্রস্তুতি চলছে ৷ বেশি বেতনের পান যার তাঁরা এই স্কিমের সুবিধা নিতে পারবেন ৷ রোজগার চলে যাওয়ার পর আর্থিক সাহায্য নির্ধারিত লিমিট অনুযায়ী হিসেব করা হবে ৷ ESIC বোর্ডকে শীঘ্রই এই প্রস্তাব পাঠানো হবে ৷

    প্রসঙ্গত, গত সপ্তাহেই ESIC-র তরফে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে ৷ জানানো হয়েছে, যারা করোনায় চাকরি হারিয়েছেন, তাঁরা তিনমাস বেতনের ৫০ শতাংশ বেকারভাতা হিসেবে পাবেন। কেন্দ্রীয় শ্রমমন্ত্রী সন্তোষ গাঙ্গওয়ারের নেতৃত্বে ESIC এর অনুমোদন দিয়েছে ৷ এই যোজনায় কেবল তাঁরা লাভ পাবেন যাঁরা কোভিড ১৯ মহামারির মধ্যে চাকরি হারিয়েছেন ৷ ২৪ মার্চ ২০২০ থেকে ৩১ ডিসেম্বর ২০২০-র মধ্যে নতুন নিয়ম প্রযোজ্য হবে ৷ এই সময়ের মধ্যে তিন মাসের জন্য এই ভাতা মিলবে ৷

    চাকরি যাওয়ার ৩০ দিনের মধ্যে এই সুবিধার জন্য আবেদন করা যাবে ৷ আগে ৯০ দিন পরে করার সুযোগ থাকত ৷ এখন কর্মচারীরা নিজে থেকেই এর জন্য আবেদন করতে পারবেন ৷ আগে নিয়োগকর্তার মাধ্যমে আবেদন করতে হত ৷ এই সুবিধা পাওয়ার জন্য অন্তত দু’বছর ESIC-র আওতায় থাকতে হবে শ্রমিকদের। অর্থাৎ ২০১৮-র ১ এপ্রিল থেকে ২০২০-র ৩১ মার্চ পর্যন্ত। ১ অক্টোবর ২০১৯ থেকে ২০২০-র ৩১ মার্চের মধ্যে এই শ্রমিকদের অন্তত ৭৮ দিনের কাজের রেকর্ড থাকতে হবে ৷

    চাকরি যাওয়ার ৩০ দিনের মধ্যে এই সুবিধার জন্য আবেদন করা যাবে ৷ আগে ৯০ দিন পরে করার সুযোগ থাকত ৷ এখন কর্মচারীরা নিজে থেকেই এর জন্য আবেদন করতে পারবেন ৷ আগে নিয়োগকর্তার মাধ্যমে আবেদন করতে হত ৷ এই সুবিধা পাওয়ার জন্য অন্তত দু’বছর ESIC-র আওতায় থাকতে হবে শ্রমিকদের। অর্থাৎ ২০১৮-র ১ এপ্রিল থেকে ২০২০-র ৩১ মার্চ পর্যন্ত। ১ অক্টোবর ২০১৯ থেকে ২০২০-র ৩১ মার্চের মধ্যে এই শ্রমিকদের অন্তত ৭৮ দিনের কাজের রেকর্ড থাকতে হবে।

    Published by:Dolon Chattopadhyay
    First published:

    লেটেস্ট খবর