বাজেট ২০২১: করোনা আবহে 'বাড়ি থেকে কর্মরত'দের জন্য ট্যাক্সে থাকছে বিশেষ ছাড়

বাজেট ২০২১: করোনা আবহে 'বাড়ি থেকে কর্মরত'দের জন্য ট্যাক্সে থাকছে বিশেষ ছাড়
'বাড়ি থেকে কর্মরত'দের জন্য ট্যাক্সকে বিশেষ ভাবে সাজিয়ে তোলা হচ্ছে। দেশের প্রতিটি নাগরিকের কথা মাথায় রেখে ট্যাক্স ছাড়ের বিষয়টি এ বার ২০২১-এর বাজেট খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

'বাড়ি থেকে কর্মরত'দের জন্য ট্যাক্সকে বিশেষ ভাবে সাজিয়ে তোলা হচ্ছে। দেশের প্রতিটি নাগরিকের কথা মাথায় রেখে ট্যাক্স ছাড়ের বিষয়টি এ বার ২০২১-এর বাজেট খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: চলতি অর্থবর্ষে কীভাবে সবকিছু সামাল দেবে কেন্দ্র? সেই নিয়ে জল্পনা তুঙ্গে। অর্থনীতির চাকা ঘুরবে কি না, এই বিষয় সংশয় প্রকাশ করছেন অর্থনীতি মহলের একাংশই। তবে আশ্বস্ত করেছেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ। আগামী ১ ফেব্রুয়ারী ২০২১-২২ অর্থবর্ষের বাজেট পেশ করতে চলেছেন তিনি। তাঁর দিকেই এখন গোটা দেশ তাকিয়ে রয়েছে। তবে অর্থমন্ত্রী জানিয়েছেন, এ বছর বাজেটে আসতে চলেছে যুগান্তকারী বদল। ঝিমিয়ে পড়া অর্থনীতিকে পুনরায় চাঙ্গা করতে ট্যাক্সেও থাকবে কিছু পরিবর্তন। তাই ২০২১-এর বাজেট একটি তাৎপর্যপূর্ণ অধ্যায়।গতবছর করোনা অতিমারি মানুষের জীবনযাত্রা থেকে শুরু করে দেশের অর্থনীতিকেও নাড়িয়ে দিয়েছিল। লকডাউনের জেরে যেরকম অনেক মানুষের চাকরি গিয়েছে, সেরকম অনেকেরই বেতন কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। এর সবথেকে বড় উদাহরণ হল বেসরকারি সংস্থা গুলি। তাই ক্ষতিগ্রস্ত করদাতাদের ট্যাক্স ছাড়ের উপর বিশেষ ভাবে নজর দেওয়া হচ্ছে। দেশের প্রতিটি নাগরিকের কথা মাথায় রেখে ট্যাক্স ছাড়ের বিষয়টি এ বার ২০২১-এর বাজেট খুবই গুরুত্বপূর্ণ।ট্যাক্স ছাড়ের বিষয় কতগুলি দিক রয়েছে। এখনও সম্পূর্ণ ভাবে অফিস চালু করেনি অনেক সংস্থাই। সেক্ষেত্রে বাড়ি থেকে বসে কর্মচারীদের কাজ করতে হচ্ছে। যার জন্য কোম্পানির গাড়ি ব্যবহার করা বা ফ্রি-তে খাবার পাওয়া এই বিষয় গুলি থাকছে না। এধরণের ক্ষেত্রে কর্মীদের কাজ করার ইচ্ছে কমে যেতে পারে। তাই তাঁদেরকে অনুপ্রাণিত করতে এবং কর্মীরা যাতে সুষ্ঠভাবে কাজ চালিয়ে যায় তার জন্য মেডিক্যাল বীমা, কর্মীদের অন্যান্য কাজ সংক্রান্ত কোনও খরচ ট্যাক্সের আওতায় পড়তে পারে। আসন্ন বাজেটে অবশ্যই বেতনভুক্ত কর্মচারীদের জন্য একটি বিশেষ প্যাকেজ থাকবে বলে আশা করা হচ্ছে।


    আবার অন্যদিকে সরকারি কর্মচারীদের বাড়িতে বসে কাজ করার জন্য সরকারকে গতবছর ক্ষতিপূরণ দিতে হয়েছিল। বাড়িতে বসে কাজ করার জন্য কম্পিউটার অথবা অন্যান্য খরচা সরকারকে নিতে হয়েছিল। কিছু বেসরকারি সংস্থাও তাদের কর্মীদের জন্য একইধরনের খরচা উঠিয়েছিল। এই দিক দিয়ে দেখতে গেলে সংস্থা গুলির ট্যাক্স ছাড়ের বিষয়টিকে উড়িয়ে দেওয়া যায়না।২০২০ সালের বাজেটে সরকার বার্ষিক ১৫ লক্ষ টাকার উপর বেতনভুক্ত কর্মীদের জন্য ট্যাক্স ডিজাইন করেছিল। তবে কোনও করদাতা নিজের ইচ্ছেমতন নতুন ট্যাক্স বা বিদ্যমান ট্যাক্স বেছে নিতে পারেন। পূর্বের ট্যাক্স অনুযায়ী সরকার বাড়ি ভাড়া ভাতা, ছুটি ভ্রমণ ভাতা, স্ট্যান্ডার্ড ছাড় এবং ৮০সি সহ প্রায় ৭০ টি বিদ্যমান ছাড় বাতিল করেছিল।

    Published by:Somosree Das
    First published: