কলকাতা মেট্রোর সঙ্গে হাত মেলাল Bandhan Bank, স্মার্ট কার্ডে থাকবে ব্যাঙ্কের লোগো

Bandhan Bank joins hands with Kolkata Metro

চল্লিশ বছরের ইতিহাসে এই প্রথমবার ৷ কলকাতা মেট্রো কোনও বিশেষ ব্র্যান্ডের সাথে হাত মেলাল, যারা একটা এক্সক্লুসিভ মিডিয়াম ব্যবহারের মাধ্যমে মেট্রোর বিপুল ইউজার বেসের মধ্যে নিজেদের ছড়িয়ে দেওয়ার সুযোগ পাবে ।

  • Share this:

    #কলকাতা: বন্ধন ব্যাঙ্ক এবার কলকাতাবাসীর দৈনন্দিন জীবনের সঙ্গে নতুন ভাবে যুক্ত হল । আজ, সোমবার ব্যাঙ্কের ঘোষণা অনুযায়ী, কলকাতা মেট্রোর যাত্রীদের জন্য ইস্যু করা স্মার্ট কার্ডে এবার থেকে বন্ধন ব্যাঙ্কের লোগো দেখা যাবে। চল্লিশ বছরের ইতিহাসে এই প্রথমবার ৷ কলকাতা মেট্রো কোনও বিশেষ ব্র্যান্ডের সাথে হাত মেলাল, যারা একটা এক্সক্লুসিভ মিডিয়াম ব্যবহারের মাধ্যমে মেট্রোর বিপুল ইউজার বেসের মধ্যে নিজেদের ছড়িয়ে দেওয়ার সুযোগ পাবে । এমন সুযোগ এর আগে কোনও বেসরকারি সংস্থা পায়নি।

    কলকাতায় মেট্রো রেল চালু হয়েছিল ১৯৮৪ সালে। সেই থেকে মেট্রো শহরের নিত্যযাত্রীদের মেরুদণ্ড। একইভাবে শহরের বিস্তীর্ণ এলাকায় ছড়িয়ে থাকা শাখাগুলোর মাধ্যমে বন্ধন ব্যাঙ্কও এখন তার সুখী গ্রাহকদের জীবনের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ। ২০১৫ সালে উদ্বোধন হওয়ার পর থেকে এই ব্যাঙ্ক নিজের আয়ত্তাধীন এলাকার পরিসীমা বাড়াতে বাড়াতে সর্বভারতীয় একটি ব্যাঙ্ক হয়ে উঠেছে। ঘটনাচক্রে বন্ধন ব্যাঙ্ক স্বাধীনতার পর পূর্ব ভারতে প্রতিষ্ঠিত প্রথম ব্যাঙ্ক। এবার কলকাতা মেট্রো এবং বন্ধন ব্যাঙ্ক  একে অপরের জনপ্রিয়তা বাড়ানোর জন্য হাত মেলাল ৷

    কলকাতা মেট্রো প্রথম স্মার্ট কার্ড চালু করে ২০১১ সালে। এখন প্রায় ৫ লক্ষ যাত্রী প্রতিদিনকার যাতায়াতের জন্য মেট্রো স্মার্ট কার্ড ব্যবহার করেন।

    এই প্রসঙ্গে বন্ধন ব্যাঙ্কের ম্যানেজিং ডিরেক্টর এবং সিইও চন্দ্রশেখর ঘোষ, বলেন, “আমরা কলকাতা মেট্রোর সঙ্গী হতে পেরে নিজেদের সৌভাগ্যবান মনে করছি। কলকাতার প্রত্যেকটি নাগরিক এই মেট্রো নিয়ে গর্বিত, যা দেশের প্রথম মেট্রো এবং ‘সিটি অফ জয়’-এর প্রাণ। বন্ধন ব্যাঙ্কেরও এই মাটিতেই জন্ম এবং এখন সারা দেশেই আমাদের উপস্থিতি। আমি নিশ্চিত এই শহরের নাগরিকরা তাঁদের দুই প্রিয় ব্র্যান্ডের জুটি বাঁধার খবর পেয়ে খুশি হবেন। স্মার্ট কার্ডের এই ব্র্যান্ডিং-এর ফলে অনেক বেশি মানুষ আমাদের উপস্থিতি সম্পর্কে সচেতন হবেন। আমরা খুশি যে কলকাতা মেট্রো তার সর্বপ্রথম পার্টনারশিপ ফর্ম্যাটে সঙ্গী হওয়ার জন্য আমাদের নির্বাচন করেছে।”

    Published by:Siddhartha Sarkar
    First published: