তড়িঘড়ি হোমলোন প্রি-পেমেন্টের চক্করে একাধিক অর্থনৈতিক সিদ্ধান্তে ক্ষতি পারে, জানুন বিশদে

তড়িঘড়ি হোমলোন প্রি-পেমেন্টের চক্করে একাধিক অর্থনৈতিক সিদ্ধান্তে ক্ষতি পারে, জানুন বিশদে
প্রতীকী চিত্র।

সব দিক বিবেচনা করে হোম লোন প্রি-পেমেন্টের সিদ্ধান্ত নিতে হবে। আসুন জেনে নেওয়া যাক বিশদে।

  • Share this:

    নিজের একটি ভালো বাড়ি প্রায় প্রত্যেকেরই স্বপ্ন। স্বপ্ন সফল করতে গিয়ে মূল্যও দিতে হয়। এক্ষেত্রে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হোম লোন। তবে হোম লোনের টাকা মেটানো, বড় সুদের বোঝা আবার একটি গুরুতর চিন্তার বিষয়। তাই সবাই যত তাড়াতাড়ি সম্ভব এই চাপ থেকে মুক্ত হতে চান। এক্ষেত্রে অনেকেই হোম লোন প্রি-পেমেন্টের পথে হাঁটেন। কিন্তু এই চক্করে পড়ে অন্যান্য বিষয়গুলি ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে যায়। তাই সব দিক বিবেচনা করে হোম লোন প্রি-পেমেন্টের সিদ্ধান্ত নিতে হবে। আসুন জেনে নেওয়া যাক বিশদে।

    অনেকেই তাড়াহুড়োর চক্করে বড় ভুল করে বসেন। প্রাথমিক খরচগুলির পর বেতনের সমস্ত টাকা প্রি-পেমেন্টে দিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেন। এই প্রবণতা কিন্তু বিপদ ডেকে আনতে পারে। এই ধরনের মানুষজন ভুলে যান, হোম লোনের পাশাপাশি জীবনের বাকি সঞ্চয়গুলিও পড়ে আছে। অনেকে ইমার্জেন্সি ফান্ডের বিষয়টি এড়িয়ে যান। একাধিক বিনিয়োগ স্কিম নিয়েও সচেতন থাকেন না একাংশ। তাই হোম লোনের প্রি-পেমেন্টের তাড়াহুড়ো না করে কিছু সাধারণ বিষয় মাথায় রাখতে হবে ।

    এগুলি হল-


    প্রথমেই নিজের হোম লোন EMI নিয়ে সচেতন থাকতে হবে। নিয়মিত EMI পরিশোধের বিষয়টি সুনিশ্চিত করতে হবে।

    শুরুতেই প্রি-পেমেন্টে লাফ দেওয়া যাবে না। EMI-এর পর পরিবারের বাকি ক্ষেত্রে বিশেষ করে কোনও আপৎকালীন পরিস্থিতির জন্য টাকা সঞ্চয়ও খুব জরুরি। তাই ইমার্জেন্সি ফান্ডের দিকেও নজর রাখতে হবে।

    ইমার্জেন্সি ফান্ডের পর ইনভেস্টমেন্ট অপশনে নজর দিতে হবে। এক্ষেত্রে ছেলে-মেয়েদের পড়াশোনা বা এই জাতীয় নানা লক্ষ্য পূরণে ঠিকঠাক জায়গায় বিনিয়োগ করাটা জরুরি।

    প্রি-পেমেন্ট করা যেতেই পারে। তবে তার আগে এভাবেই সঞ্চয়ের জমি তৈরি করতে হবে। উপরোক্ত বিষয়গুলি সুনিশ্চিত হয়ে গেলে এবার ঠাণ্ডা মাথায় বসে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। সব দিক বিবেচনা করতে হবে। তার পর হোম লোন প্রি-পেমেন্টে হাত পাকানো যেতে পারে।

    যদি তাড়াতাড়ি লোন শোধের পরিকল্পনা থাকে, তাহলে প্রতি মাসে প্রি-পেমেন্টের কথা ভাবা যেতে পারে।

    বিশেষজ্ঞদের মতে, প্রতি মাসে প্রি-পেমেন্ট না করে ইক্যুইটি ফান্ডে বিনিয়োগ করা যেতে পারে। এতে ভালো রিটার্নও পাওয়া যাবে। এক্ষেত্রে যদি আগে থেকে অনেকটা টাকা সঞ্চিত থাকে, তাহলে হোম লোন রেট বাড়লেও চিন্তা নেই।

    তাই সমস্ত বিষয় খতিয়ে দেখতে হবে। সঞ্চয়ের জায়গাটা মজবুত করতে হবে। প্রয়োজনে অনেকটা সময় নিয়ে ভাবতে হবে। বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নিতে হবে। তার পর প্রি-পেমেন্টের পথে হাঁটা যেতে পারে।

    Written By: Sovan Chanda

    Published by:Arka Deb
    First published: