Home /News /birbhum /
Birbhum News|| কোথাও নেই শিক্ষক, আবার কোথাও নেই পড়ুয়া, আজব ২ স্কুল বীরভূমে!

Birbhum News|| কোথাও নেই শিক্ষক, আবার কোথাও নেই পড়ুয়া, আজব ২ স্কুল বীরভূমে!

Birbhum Unique Schools: বীরভূমের মত জেলায় ফুটে উঠল নানা আজব ছবি। যেখানে দেখা যাচ্ছে কোন স্কুলে পড়ুয়াদের সংখ্যা কয়েকশো হলেও পর্যাপ্ত শিক্ষক নেই। আবার কোন স্কুলে শিক্ষক থাকলেও পড়ুয়াদের সংখ্যা চমকে দিতে পারে আপনাকে।

  • Share this:

    #বীরভূম: সাম্প্রতিককালে শিক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে নানান প্রশ্ন উঠছে রাজ্যে। এই সকল প্রশ্নের অনুসন্ধান করতে গিয়ে বীরভূমের মত জেলায় ফুটে উঠল নানান আজব ছবি। যেখানে দেখা যাচ্ছে কোন স্কুলে পড়ুয়াদের সংখ্যা কয়েকশো হলেও পর্যাপ্ত শিক্ষক নেই। আবার কোন স্কুলে শিক্ষক থাকলেও পড়ুয়াদের সংখ্যা চমকে দিতে পারে আপনাকে। এইরকমই দুটি ভিন্ন চরিত্রের স্কুল দেখা গেল জেলায়।

    বীরভূমের দুবরাজপুর ব্লকের অন্তর্গত যশপুর গার্লস জুনিয়র হাইস্কুল। এই স্কুলটি ২০১৩ সালে স্বীকৃতি পাওয়ার পর ২০১৬ সাল থেকে পঠনপাঠন শুরু হয়। স্কুলটি শুরু করা হয়েছিল মাত্র ৮ থেকে ১০ জন পড়ুয়াদের নিয়ে। বর্তমানে এই স্কুলের ছাত্রী সংখ্যা ৪৭৫। তবে এই স্কুলের দায়িত্ব সামলাচ্ছেন একজন প্রাথমিক স্কুলের শিক্ষক। শিক্ষক পার্থসারথি দাস জানিয়েছেন, তিনি ২০১৯ সালে এই স্কুলের দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। এরপর আরেকটি স্কুল থেকে একজন প্যারা টিচারকে এখানে পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়া আর কোনও শিক্ষক-শিক্ষিকা নেই। স্থানীয় প্রশাসনের উদ্যোগে এলাকার কয়েকজন যুবক-যুবতী বীনা পারিশ্রমিকে এখানে পড়ুয়ারদের পড়ান।

    আরও পড়ুন: মাসির বাড়ি থেকে বেরিয়ে রথে চড়ে বসলেন জগন্নাথ, দেখুন...  

    ঠিক উল্টো চিত্র ধরা পড়েছে বীরভূমের সিউড়ির লালদীঘি পাড়ার লালদীঘি জুনিয়ার হাই স্কুল ফর গার্লসে। সেখানকার শিক্ষিকা টুডি ভকত জানিয়েছেন, সেখানে দুজন শিক্ষিকা রয়েছেন। যদিও আগে ছিলেন চার জন। ২০০৮ সাল থেকে এই স্কুল পথচলা শুরু করেছিল। সেই সময় ৫০-৬০ জন ছাত্রীকে নিয়ে এই স্কুল পথ চলা শুরু করেছিল। কিন্তু বর্তমানে এই স্কুলের পড়ুয়া সংখ্যা মাত্র এক। দু'বছর ধরে এই একজন ছাত্রীকে নিয়ে চলছে স্কুল। সিউড়ি শহরের মতো একটি জায়গায় এ রকমভাবে একজন ছাত্রীকে নিয়ে স্কুল নজির বিহীন।

    এই বিষয়ে বীরভূমের দুবরাজপুর ব্লকের যশপুর গার্লস জুনিয়র হাইস্কুলের পরিপ্রেক্ষিতে বীরভূম জেলা বিদ্যালয় পরিদর্শক চন্দ্রশেখর জাউলিয়া জানিয়েছেন, এই সকল জুনিয়র হাই স্কুলগুলি পরে শুরু হয়। যে কারণে এ গুলিতে শিক্ষক-শিক্ষিকার অভাব রয়েছে। ওই স্কুলে একজন প্রাইমারি শিক্ষককে অস্থায়ী হিসাবে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তবে আমরা অতিথি শিক্ষক নিয়োগের বিষয়ে বিজ্ঞপ্তি জারি করেছি। আশা করা যায় এই শিক্ষকের অভাব খুব তাড়াতাড়ি দূর হয়ে যাবে।

    Madhab Das

    Published by:Shubhagata Dey
    First published:

    Tags: Birbhum

    পরবর্তী খবর