Home /News /birbhum /
Birbhum: সর্বসাধারণের জন্য খুলে দেওয়া হল দু'টি গুরুত্বপূর্ণ সেতু

Birbhum: সর্বসাধারণের জন্য খুলে দেওয়া হল দু'টি গুরুত্বপূর্ণ সেতু

title=

দীর্ঘ দিনের প্রতিক্ষার পর অবশেষে বীরভূমের দু'টি গুরুত্বপূর্ণ সেতু মঙ্গলবার খুলে দেওয়া হলো সর্বসাধারণের জন্য। এই দু'টি সেতুর ভার্চুয়ালি উদ্বোধন করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

  • Share this:

    বীরভূম : দীর্ঘ দিনের প্রতিক্ষার পর অবশেষে বীরভূমের দু'টি গুরুত্বপূর্ণ সেতু মঙ্গলবার খুলে দেওয়া হলো সর্বসাধারণের জন্য। এই দু'টি সেতুর ভার্চুয়ালি উদ্বোধন করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। অন্যদিকে এই দু'টি সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের মন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিনহা ,জেলাশাসক বিধান রায়, আরক্ষাধ্যক্ষ নগেন্দ্র ত্রিপাঠি, বিধায়ক অভিজিৎ সিংহ, বিকাশ রায় চৌধুরী, নিলাবতী সাহা ও অন্যান্য বিশিষ্টজনেরা। এই দুটি সেতুর উদ্বোধনের ফলে জেলা এবং ভিন জেলার অগণিত মানুষ উপকৃত হলেন। এই দু'টি গুরুত্বপূর্ণ সেতুর মধ্যে একটি অবস্থিত অজয় নদের উপর পানাগড় ইলামবাজার রাস্তায় এবং অন্যটি কুয়ে নদীর উপর লাভপুরের লাঘাটায়।সেতু দু'টি তৈরি করার ক্ষেত্রে সরকারের আনুমানিক দেড়শ কোটি টাকা খরচ হয়েছে বলে জানা গিয়েছে প্রশাসনিক সূত্রে।সেতুগুলোর উদ্বোধনের ক্ষেত্রে দীর্ঘদিনের অপেক্ষা ছিল স্থানীয় বাসিন্দাদের ইলামবাজার পানাগড় রাস্তায় অজয় নদের উপর থাকা সেতুটি ৫৮৬ মিটার লম্বা। এই সেতুটি দু'লেনের তৈরি করা হয়েছে। ১৪ নং জাতীয় সড়কের মাধ্যমে সেতুটি বীরভূম এবং পশ্চিম বর্ধমানের যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম।

    এর আগে পাশেই একটি সেতু ছিল যা আনুমানিক ছয় দশক পুরাতন। সেই সেতুটির বেহাল অবস্থা হয়ে পড়ার কারণে বছরের বিভিন্ন সময় যানবাহন চলাচল বন্ধ রাখতে হতো। এরপরই নতুন করে পাশে এই সেতু তৈরি করার বিষয়ে উদ্যোগ নেওয়া হয়। এই সেতুটি তৈরি করার জন্য ১১৭ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়, যদিও আনুমানিক ৮০ কোটি টাকাতেই এই সেতু তৈরি করা সম্ভব হয়েছে। অন্যদিকে লাভপুরের কুয়ে নদীর উপর লাঘাটায় যে নতুন সেতুটি উদ্বোধন করা হলো সেটি ৪৭০ মিটারের। এই সেতুটি বীরভূমের আহমেদপুর, কীর্ণাহার এবং রামজীবনপুরের অন্যতম যোগাযোগের মাধ্যম।

    আরও পড়ুনঃ Birbhum: অফলাইনে নয়, পরীক্ষা নিতে হবে অনলাইনে, এই দাবীতে পড়ুয়াদের বিক্ষোভ

    আরও পড়ুনঃ Birbhum: প্রচলিত বিশ্বাসে মানুষের ঢল মহঃবাজারের ধর্মরাজ পুজোয়

    এই সেতুটি তৈরি করতে ৫০ কোটি টাকা খরচ হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। এই সেতুটি তৈরি হওয়ার আগে প্রতিবছর বর্ষার সময় এই জায়গা জলে ডুবে যেত। এর ফলে যোগাযোগব্যবস্থা সম্পূর্ণভাবে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ত। যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার ফলে চরম অসুবিধার সম্মুখিন হতস্থানীয় বাসিন্দারা। তারা বারংবার এই সেতুর দাবি জানিয়েছিলেন। অবশেষে মঙ্গলবার এই সেতুটির উদ্বোধন হওয়ার ফলে সাধারণ মানুষ সেই যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পেলেন।

      Madhab Das
    First published:

    Tags: Birbhum

    পরবর্তী খবর