হোম /খবর /বীরভূম /
পূর্ণিমায় কালীপুজো, রং আবার শ্বেত, নেপথ্যে রয়েছে অবাক করা কাহিনি, চমকে যাবেন

Kali Puja: পূর্ণিমায় কালীপুজো, রং আবার শ্বেত, নেপথ্যে রয়েছে অবাক করা কাহিনি, চমকে যাবেন শুনলে

X
নিজস্ব [object Object]

আনুমানিক ৪০০ বছর প্রাচীন এই পুজোর হয় বুধবার রাতে। পুজো সম্পর্কে জানা যায় এলাকার এক জ্বালাতন গোঁসাইয়ের কাহিনী।

  • Share this:

#বীরভূম: কালীপুজো সাধারণত অমাবস্যায় হয়ে থাকে আর মূর্তির রং হয়ে থাকে মূলত কালো অথবা শ্যামা। তবে বীরভূমে এমন এক কালীপুজো রয়েছে যেটি অমাবস্যা নয় বরং পূর্ণিমায় হয় এবং গায়ের রং শ্বেত অর্থাৎ সাদা। অগ্রহায়ণ মাসে এমন শ্বেত কালীপুজো হয়ে থাকে সিউড়ির পার্শ্ববর্তী অজয়পুর গ্রামে ময়ূরাক্ষী নদীর তীরে। এখানকার কালী প্রতিমার গায়ের রং সাদা হওয়ার পাশাপাশি পরণে থাকে সাদা শাড়ি ও লাল পাড়।আনুমানিক ৪০০ বছর প্রাচীন এই পুজোর হয় বুধবার রাতে। পুজো সম্পর্কে জানা যায় এলাকার এক জ্বালাতন গোসাইয়ের কাহিনী। বছরের এই সময় তিনি নদীর পাড়ে দিয়ে হেঁটে একটি অশ্বত্থ গাছের নিচে এসে বসতেন। সেখানে তিনি পুজো করতেন, সাধনা করতেন এবং তারপর থেকেই বংশপরম্পরায় এই পুজো হয়ে আসছে। বর্তমানে এই পুজোর দায়িত্বে রয়েছেন মহেশ্বর মাহারা। তিনি জানিয়েছেন তার পূর্ব পুরুষ ঋষিকেশ মাহারাকে এই পূজোর দায়িত্ব দিয়ে গিয়েছিলেন ওই গোসাই।

আরও পড়ুন:  West Burdwan News: শহর লাগোয়া জঙ্গল থেকে উদ্ধার হায়না, গ্রামবাসীদের তৎপরতায় উদ্ধার,নিয়ে গেল বন দফতর

কথিত আছে, কোন এক সময় বাড়ুইপুর গ্রামের এক মহিলা আত্মহত্যা করেছিলেন অমাবস্যার সময়। এরপর ওই মহিলার মৃতদেহ ময়ূরাক্ষী নদীর পাড়ে ওই অশ্বত্থ গাছের নিচে পুঁতে দেওয়া হয়। পরে জ্বালাতন গোঁসাই ওই মৃত মহিলার দেহ তুলে সাধনা করে সিদ্ধি লাভ করেন। তারপরেই এখানে এই পুজোর শুরু হয়।

আরও পড়ুন: West Burdwan News: শহর লাগোয়া জঙ্গল থেকে উদ্ধার হায়না, গ্রামবাসীদের তৎপরতায় উদ্ধার,নিয়ে গেল বন দফতর

পুজোর দায়িত্বে থাকা মহেশ্বর মাহারা দাবি করেছেন, বীরভূমে কোথাও এই ধরনের কালীপুজো হয় বলে তার জানা নেই। কারণ অন্যান্য কালীপুজোয় কালী প্রতিমার গায়ের রং এর তুলনায় এই কালীপুজোর প্রতিমার রং সম্পূর্ণ আলাদা। পুজোও হয়ে থাকে অমাবস্যায়।

Madhab Das

Published by:Arjun Neogi
First published:

Tags: Birbhum news