পাত্রীর বয়স ১৩, বাসন্তীতে নাবালিকার বিয়ে রুখল প্রশাসন

পাত্রীর বয়স ১৩, বাসন্তীতে নাবালিকার বিয়ে রুখল প্রশাসন
  • Share this:

#বাসন্তী: বিয়ের প্রস্তুতি প্রায় শেষ আত্মীয় স্বজন বন্ধু বান্ধব সব উপস্থিত ।বর এসে ও গেছে । ঠাকুরমশাই এর অপেক্ষায় তিনি এলেই দুহাত এক হবে ।এর মধ্যেই বিয়ে বাড়ির ছন্দ পতন ।হঠাৎ শোনা গেল পুলিশের গাড়ি ঢুকছে এলাকায়।পুলিশ ও প্রশাসন কর্তাদের প্রশ্ন মেয়ের বয়স কত ।জন্ম পরিচয় পত্র দেখে দেখা গেল মেয়েটির বয়স সতেরো বছর ।পুলিশ, বি,ডি,ও ও চাইল্ডলাইনের নির্দেশে নাবালিকার বিয়েটি বন্ধ করা হল।

নাবালিকার মা ফুল মালঞ্চ পঞ্চায়েতের সদস্যা । তার চারটি সন্তান মেয়েটি দ্বিতীয় ।বারুইপুরের মুখার্জি পাড়ার বাসিন্দা সুধা নস্করের সেজ ছেলের সাথে বিয়ে ঠিক করেন ছেলেটি ইলেকট্রনিক এর কাজ করেন ।এরই মধ্যে গোপন সূত্রে খবর পৌঁছে যায় ক্যানিং চাইল্ড লাইনের কাছে ।ক্যানিং চাইল্ডলাইন থেকে যোগাযোগ করা হয় বাসন্তি থানার ভারপ্রাপ্ত আধিকারীক সত্যব্রত ভট্টাচার্যের সঙ্গে ও বাসন্তীর বিডি ও কল্লোল বিশ্বাসের সাথে।তাদের নির্দেশে বাসন্তী থানার পুলিশ,বিডিও, চাইল্ড লাইন কে সঙ্গে নিয়ে নাবালিকার বিয়েটি বন্ধ করা হয় ।

ক্যানিং চাইল্ড লাইনের সদস্য বান্টি মুখার্জী বলেন রাজ্য সরকারের দেওয়া কন্যাশ্রী ও রুপশ্রী প্রকল্প স্বর্তে ও যে ভাবে নাবালিকা বিয়ে দিচ্ছে কিছু শ্রেনীর লোকজন তা সত্যি দুশ্চিন্তার বিষয় ।তবে আগামী দিনে যাতে বাল্য বিবাহ বন্ধ হয় সে বিষয়ে মানুষকে আর ও সচেতন করতে হবে ।যে দিকে রাজ্য সরকার নাবালিকার বিয়ে বন্ধের জন্য বিভিন্ন সরকারি প্রকল্প চালু করেছেন সেই সরকারের পঞ্চায়েত সদস্যার নাবালিকার বিয়ে দেন কি করে সেই প্রশ্ন থেকে গেলে।

যে প্রতিনিধিরা সমাজকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন সেই প্রতিনিধি তারই নাবালিকা কন্যা বিয়ে দিচ্ছেন নিজের হাতে।এই ঘটনায় বাসন্তী থানার পুলিশ পাত্র ও তার দাদা এবং নাবালিকা ও পঞ্চায়েত সদস্যা মা কে থানায় নিয়ে যান।নাবালিকা কে হোমে পাঠানোর ব্যবস্থা করেন।

First published: November 16, 2018, 1:10 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर