Home /News /astrology /
Relationship Compatibility: প্রেম থেকে যৌনতা, রাশিচক্র-গ্রহের অবস্থানে আমূল পাল্টাতে পারে জীবন, চমকপ্রদ তথ্য়

Relationship Compatibility: প্রেম থেকে যৌনতা, রাশিচক্র-গ্রহের অবস্থানে আমূল পাল্টাতে পারে জীবন, চমকপ্রদ তথ্য়

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

Relationship Compatibility: সাধারণত, সম্ভাব্য জীবনসঙ্গীর গ্রহগত অবস্থান কী ভাবে কোনও ব্যক্তির গ্রহ অবস্থানের সঙ্গে মিলে যায় তা জানার আগ্রহ আমাদের সকলেরই থাকে।

  • Share this:

    প্রেম বড় বিচিত্র জিনিস। একবার প্রেমে পড়লে সেখান থেকে বেরিয়ে আসা প্রায় অসম্ভব। ব্যর্থ প্রেমের ক্ষতও প্রায় সারাজীবন গোপনে বয়ে চলতে হয়। অথচ, প্রেমের সার্থকতার পিছনে থাকে দু’টি মানুষের পারস্পরিক বোঝাপড়ার সঙ্গতি। আমাদের দেশে বিয়ের আগে কুষ্ঠি বিচারের প্রথা ছিল আগে। এখনও হয়তো অনেকে সে সব মেনে চলেন। কিন্তু প্রেম কি আর কুষ্ঠি বিচার করে হয়!

    অথচ, এমন তো অনেক সময়ই হয় বেশ কিছুদিন ঘোরাফেরা মেলামেশার পর মনে হয়ে সব কিছু যেন সুরে-তালে মিলছে না। এই বেসুর বাজার সময়ই সাবধান হওয়া দরকার। এমনটা বলে থাকেন মনোবিদরাও। কারণ একটি অসুস্থ সম্পর্ক বয়ে নিয়ে গেলে তা যেমন দু’টি মানুষকে প্রভাবিত করে। তেমনই প্রভাব পড়তে পারে পারিপার্শ্বিক সামাজিক সম্পর্কে এমনকী ভবিষ্যৎ প্রজন্মের উপরও।

    আমরা অনেকেই রাশিচক্র মিলিয়ে দেখে আনন্দ পাই। কিন্তু সে গণনা অনেক সময়ই মেলে না। কারণ, খামতি থেকে যায় রাশি গণনায়। বেশির ভাগ সময়ই সৌর চিহ্ন (Sun Sign) মেনে রাশি বিচার করি। এর সাহায্যে কোনও ব্যক্তির স্বভাব এবং পরিচিতি পাওয়া যেতে পারে। কিন্তু তা তো শুধু মাত্র হিমশৈলের চূড়া মাত্র। নিখুঁত বিবরণ পেতে গেলে সম্পূর্ণ জন্মছক মিলিয়ে দেখা প্রয়োজন। প্রেমাস্পদ বা ভবিষ্যৎ জীবনসঙ্গীর সঙ্গে নিজের বোঝাপড়ার সঙ্গতি মিলিয়ে দেখতে হলে শুধু সেই মানুষটির জন্মের দিন এবং সময় জেনে নিতে হবে।

    আরও পড়ুনBudh Gochar 2022: আজ ভোরেই রাশিচক্রে স্থান বদল হয়েছে বুধের, সৌভাগ্য মুঠোবন্দি করতে এই দিকগুলো খেয়াল রাখুন

    দেখে নেওয়া যাক কী ভাবে কাজ করে জন্মছকের বিচার।

    প্রেম এবং যৌনতার গ্রহগুলি বিবেচনা করতে হবে

    সম্ভাব্য জীবনসঙ্গীর জন্মছকটি মিলিয়ে দেখার সময় (জন্মছক বিভিন্ন বিনামূল্য ওয়েবসাইটে গণনা করা যেতে পারে), কেবল Sun Sign মিলিয়ে দেখলেই চলবে না। দেখে নিতে হবে-

    চন্দ্র চিহ্ন (Moon Sign)

    জন্মছকে চাঁদ আসলে জাতকের মানসিক অবস্থান ও আবেগের দিকটি নির্দেশ করে। এটি জাতকের নিরাপত্তা, মূল্যবোধ এবং অন্তর্দৃষ্টিকে গঠন করে। কোনও মানুষ যখন তাঁর হৃদয়ের গভীর থেকে তাঁর অনুভূতি প্রকাশ করে, বুঝতে হবে সেটি নিয়ন্ত্রণ করে চাঁদ।

    শুক্র চিহ্ন (Venus Sign)

    প্রেম, রোম্যান্স, অর্থ, সৌন্দর্য এবং শিল্পের গ্রহ হল শুক্র। কোনও ব্যক্তির জন্মছকে শুক্রের অবস্থান জাতকের ইচ্ছা, আবেগ, অন্যের সঙ্গে সম্পর্কের প্রকাশ কী ভাবে করবেন তা নির্ধারণ করে। কোন ধরনের জিনিসকে ওই জাতক মূল্য দেবে, কোন অনুভবে তাঁর আনন্দ—তা স্থির করে দেয় জন্ম সময়ে শুক্রের অবস্থান। এর সাহায্যেই বোঝা সম্ভব জাতক কতখানি সামাজিক, তিনি অন্যদের কতটা আকৃষ্ট করতে পারেন ইত্যাদি।

    মঙ্গল চিহ্ন (Mars Sign)

    জন্মছকে মঙ্গল গ্রহের অবস্থান স্থির করে জাতকের শক্তি, যৌন অভিব্যক্তি এবং সাহস। কোনও ব্যক্তি কতখানি রাগ করেন, কতখানি আবেগের সঙ্গে লড়াই তার আন্দাজ পাওয়া যায় এই মঙ্গলের অবস্থান দেখে।

    আরও পড়ুন:  Samudra Sastra: আপনার হাতে এই চিহ্ন আছে? থাকলেই জীবনে টাকার বন্যা! লক্ষ্মীর কৃপায় সদা বিরাজ করবে সৌভাগ্য!

    শুধু এই ক’টি বিষয়ই নয়, এর সঙ্গে মিলিয়ে দেখা দরকার আরও বেশ কিছু দিক-

    উদয় চিহ্ন (Rising Sign)

    জাতকের জন্মের সময় পূর্ব দিগন্তে যে চিহ্নটি উদয় হয়েছিল তা জাতকের তুঙ্গ বলে বিবেচিত হয়। এটি জাতকের বাহ্যিক চরিত্রের দিকটি প্রকাশিত করে। তাঁর দক্ষতা, প্রতিভা এবং কৌশলগুলির সম্পর্কে একটা ধারণা তৈরি করে দিতে পারে। তার ফলে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা করা সহজ হতে পারে।

    বৃহস্পতি চিহ্ন (Jupiter Sign)

    বৃহস্পতি হল সমৃদ্ধির গ্রহ। এর সঙ্গে সরাসরি প্রেম এবং যৌনতার সম্পর্ক নেই। একটি গ্রহ নয়, বৃহস্পতি হল সম্প্রসারণ এবং প্রাচুর্যের গ্রহ। আদতে এই গ্রহের অবস্থান ভাগ্যের অভিজ্ঞতার কথা বলে। তাই পরোক্ষে এ কথা বলাই যায় কোনও দম্পতির ভাগ্যের সামঞ্জস্য রয়েছে কিনা তা নির্ধারণ করে দিতে পারে এই গ্রহের অবস্থান। জ্যোতিষশাস্ত্রীয় ব্যাখ্যায় তেমনই বলা হয়েছে।

    শনি চিহ্ন (Saturn Sign)

    শনি হল কঠোর পরিশ্রমের গ্রহ, পাশাপাশি এই গ্রহ জাতকের জীবনে কিছু সীমাবদ্ধতাও তৈরি করে। জাতকের জন্মছকে শনির অবস্থান বলে দেয় জীবনে কী কী শিখতে হবে জাতককে। দীর্ঘমেয়াদী সম্পর্কের কথা ভাবলে শনির অবস্থান বিচার করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। প্রতিশ্রুতি এবং কাঠামোর গ্রহ হিসাবে, এটি সম্পর্কে স্থিরতা প্রদান করে। মনে করা যাক কোনও ব্যক্তির জন্মছকে শুক্র রয়েছে মিথুন রাশির ১৯ ডিগ্রিতে অবস্থান। অন্যদিকে ওই ব্যক্তির জীবনসঙ্গীর শনি রয়েছে মিথুনের ১৮ ডিগ্রিতে অবস্থানে। এটি একটি অসম্ভব শক্তিশালী প্রণয় সম্পর্ক তৈরি করছে।

    আরও পড়ুন-রাশিচক্রে স্থান বদল হয়েছে বুধের, সৌভাগ্য মুঠোবন্দি করতে এই দিকগুলো খেয়াল রাখুন

    সংযোগ বিচার

    এই ‘রোম্যান্স পাওয়ার প্লেয়িং’ গ্রহগুলির প্রতিটি জাতকের প্রেমজ আগ্রহের লক্ষণগুলি চিহ্নিত করতে পারে। প্রতিটি গ্রহ চিহ্ন ৩০ ডিগ্রি বিস্তৃত থাকে। ধরা যাক কোনও ব্যক্তির মঙ্গল ১৫ ডিগ্রি অবস্থানে সিংহ রাশিতে রয়েছে, এ দিকে তাঁর সম্ভাব্য জীবনসঙ্গীর শুক্র ১৭ ডিগ্রি সিংহ রাশিতে অবস্থান করছে। এটি খুবই জোরাল বন্ধন হিসেবে গৃহীত হতে পারে।

    সাধারণত, সম্ভাব্য জীবনসঙ্গীর গ্রহগত অবস্থান কী ভাবে কোনও ব্যক্তির গ্রহ অবস্থানের সঙ্গে মিলে যায় তা জানার আগ্রহ আমাদের সকলেরই থাকে। দেখার ইচ্ছে থাকে কী ভাবে কোনও ব্যক্তির জন্মছকের চন্দ্রের সঙ্গে তাঁর জীবনসঙ্গীর চন্দ্র মেলে, বা উভয়ের ব্যক্তিগত স্থান কী ভাবে পরস্পরের সঙ্গে মিলছে। এমনকী বৃহস্পতি, শনি, বা নেপচুন (আধ্যাত্মিকতা, কল্পনা এবং চিন্তার গ্রহ) এবং প্লুটো (ক্ষমতা ও রূপান্তরের গ্রহ)-কেও মিলিয়ে দেখা যায়।

    সংযোগ

    যখন দু’টি স্থান একই চিহ্নে থাকে তখন তাকে সংযোগ বলে। এটি একই মানসিকতা এবং একই দৃষ্টিভঙ্গির শক্তিশালী চিহ্ন হতে পারে। ধরা যাক কোনও ব্যক্তি এবং তাঁর সঙ্গীর শুক্র এবং শনি উভয়ই মিথুনে অবস্থান করছে। শুধু তাই নয় ওই দম্পতির একজনের জন্মছকে প্লুটো অন্যজনের তুলার ঘরে বসে থাকা বৃহস্পতিতে সংযোগ সৃষ্টি করছে। এটি দু’জনের সুষম বন্ধুত্বের নিদর্শন।

    ত্রহ্যস্পর্শ

    যখন কোনও জন্মছকে চারটি গ্রহের অবস্থান হয় বা ১২০ ডিগ্রি দূরত্ব থাকে তখন তাকে ত্রহ্যস্পর্শ বলে। ধরা যাক কোনও ব্যক্তির সূর্য তার প্রধান জল-চিহ্ন কর্কটে অবস্থান করছে, অন্যদিকে ওই ব্যক্তির প্রিয় মানুষটির চাঁদ পরিবর্তনযোগ্য জল চিহ্ন মীন রাশিতে রয়েছে। এমন হলে তারা একে অপরকে ত্রিভুজে যুক্ত করছে।

    যেমন ধরা যাক অগ্নি: মেষ, সিংহ, ধনু পৃথিবী: বৃষ, কন্যা, মকর বায়ু: মিথুন, তুলা, কুম্ভ জল: কর্কট, বৃশ্চিক, মীন

    সেক্সটাইল

    জন্মছকে দু’টি চিহ্ন থাকলে বা ৬০ ডিগ্রি কোণ হলে তারা একটি ‘সেক্সটাইল’ গঠন করে। এটি একটি বন্ধুত্বপূর্ণ, সহজবোধ্য, এবং হালকা সংযোগের ধারণা দেয়। তবে এরা একে অপরের বিপরীতে বসলে মুশকিল হতে পারে। আগুন এবং বায়ু একে অপরের পাশাপাশি পৃথিবী এবং জলের চিহ্নগুলিকে সেক্সটাইল গঠন করে।

    মেষ: মিথুন, কুম্ভ বৃষ: কর্কট, মীন মিথুন: মেষ, সিংহ রাশি কর্কট: বৃষ, কন্যা রাশি সিংহ রাশি: মিথুন, তুলা কন্যা রাশি: কর্কট, বৃশ্চিক তুলা: সিংহ, ধনু বৃশ্চিক: কন্যা, মকর ধনু: তুলা, কুম্ভ মকর: বৃশ্চিক, মীন কুম্ভ: মেষ, ধনু মীন রাশি: বৃষ, মকর

    গ্রহের সংযোগ যা প্রধান রোম্যান্স নির্দেশ করতে পারে নির্দিষ্ট স্থানগুলির মধ্যে নিম্নলিখিত দিকগুলি থাকে, যাকে সিনাস্ট্রি হিসাবে উল্লেখ করা হয়।

    সূর্যের সঙ্গে চন্দ্র

    এমন সংযোগ তৈরি হলে তা সোনায় সোহাগা বলাই যায়। সাধারণ এমন ক্ষেত্রে একজনের মৌল পরিচয়ের সঙ্গে মিশে যায় অন্যজনের আবেগের দিক নির্দেশনা। তার ফলে তাঁরা একে অপরকে খুবই ভাল ভাবে বুঝতে পারেন। আর এর থেকে বেশি চাওয়া কী-ই বা থাকতে পারে জীবনসঙ্গীর কাছ থেকে!

    চন্দ্র বা শুক্র কনজেক্ট অ্যাসেন্ড্যান্ট

    যদি একজন ব্যক্তির চন্দ্র বা তাঁর আবেগময়তার সঙ্গে শুক্র বা তাঁর আকর্ষণের কেন্দ্র অন্যের আরোহণ/উদয়নের সঙ্গে সারিবদ্ধ হয়, তা হলে ওই দুই ব্যক্তি একেবারে শুরু থেকেই উভয়ের প্রতি আকৃষ্ট হবেন।

    ভেনাস কনজেক্ট, ট্রাইন বা সেক্সটাইল মঙ্গল

    শুক্র হল প্রেমের গ্রহ, এবং মঙ্গল হল যৌনতার গ্রহ। তাই এই দু’টি গ্রহ একসঙ্গে সাধারণত সমান অংশের প্রণয় ও তার উদযাপনকে নির্দেশ করে। এ ক্ষেত্রে একজন তাঁর ভালবাসা যে ভাষায় প্রকাশ করে, অন্যজন সেই একই ভাষায় তাঁর মনোবাসনা প্রকাশ করে। এ দুয়ের সংমিশ্রণ শুরু থেকেই দারুন কার্যকরী হয়। সেক্সটাইল একটু বেশি ধীরগতির হতে পারে।

    সেভেনথ হাউস অফ পার্টনারশিপ

    যদি কোনও ব্যক্তির সম্ভাব্য SO-তে এমন একটি চিহ্ন থাকে যা তাঁর ক্রমবর্ধমান চিহ্নের বিপরীতে রয়েছে, তাহলে এমন হতেই পারে যে সেই স্থানগুলি ওই ব্যক্তির জীবনসঙ্গীর সপ্তম ঘরে রয়েছে। এটি একটি সুস্পষ্ট পারস্পরিক বন্ধনের দিকে নির্দেশ করে।

    জীবনসঙ্গীর সঙ্গে কেমন হবে জীবন তা এ ভাবে দেখে নেওয়া যেতেই পারে। কিন্তু এর বাইরেও রয়েছে নানা মানবিক দিক। আর প্রয়োজন হলে কোনও পেশাদার জ্যোতিষীর সঙ্গেও যোগাযোগ করা যায়।

    Published by:Uddalak B
    First published:

    Tags: Astrology, Love, Relationship

    পরবর্তী খবর