Home /News /alipurduar /
Alipurduar: মাদারিহাটে থামছে না হাতির হানা! গভীর রাতে হামলা চালিয়ে ভেঙে দিল দোকান

Alipurduar: মাদারিহাটে থামছে না হাতির হানা! গভীর রাতে হামলা চালিয়ে ভেঙে দিল দোকান

হাতি হানা দিয়ে ভেঙ্গে দিল দোকান।ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার গভীর রাতে মাদারিহাট মেঘনাদ সাহা নগর এলাকায়। বৃহস্পতিবার গভীর রাতে জলদাপাড়া জঙ্গল থেকে দুটি দাঁতাল হাতি এলাকায় প্রবেশ করে।

  • Share this:

    #আলিপুরদুয়ার : হাতি হানা দিয়ে ভেঙ্গে দিল দোকান।ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার গভীর রাতে মাদারিহাট মেঘনাদ সাহা নগর এলাকায়। বৃহস্পতিবার গভীর রাতে জলদাপাড়া জঙ্গল থেকে দুটি দাঁতাল হাতি এলাকায় প্রবেশ করে। দাঁতাল হাতি দুটি এলাকার বাসিন্দা হীরা শর্মার গালামালের দোকানে হানা দেয়। দোকান ভেঙ্গে সেখানে রাখা চাল,আটা,বিস্কুট সাবার করে দেয় । পরবর্তীতে হাতি দুটি জঙ্গলে চলে যায় ।এলাকার বাসিন্দারা জানান, এই এলাকায় হাতির হানা নিত‍্যদিনের ঘটনায় পরিণত হয়েছে।  প্রতিনিয়ত রাতে জলদাপাড়া জঙ্গল থেকে হাতি বেরিয়ে লোকালয়ে তাণ্ডব চালাচ্ছে ।বনদফতরের কর্মীরা এলাকায় প্রবেশের আগে হাতি জঙ্গলে চলে যাচ্ছে।এলাকায় বনকর্মীদের টহলের দাবি জানিয়েছেন তারা। লোকালয়ের পাশাপাশি স্কুলঘর,আইসিডিএস সেন্টারে চলছে হাতির হানার ঘটনা।মাদারিহাট বীরপাড়া ব্লকের পশ্চিম মাদারিহাট এলাকায় হানা দিয়ে ভেঙ্গেছে একটি আই সি ডি এস সেণ্টার। এলাকার বাসিন্দারা জানান, একটি বিশালকার হাতি এলাকায় প্রবেশ করে ব‍্যাপক তাণ্ডব চালাচ্ছে।মানুষের ঘরবাড়ি ভাঙার পাশাপাশি হাতিটি এলাকার আই সি ডি এস কেন্দ্র ভেঙ্গে দিয়েছে।এখানেই শেষ নয় আই সি ডি এস সেণ্টারে থাকা চাল সাবার করে দিচ্ছে হাতিটি। বৃষ্টি হলেই গভীর রাতে জলদাপাড়ার জঙ্গল থেকে কোনও সময় হাতির দল আবার কোনও সময় একটি বুনো হাতি হামলা চালায় লোকালয়ে।নষ্ট করে দেয় ফসল। আতঙ্কে থাকেন এলাকাবাসীরা।

    হাতির হানা থামার কোন লক্ষণই নেই মাদারিহাট এলাকায়। মে মাসে ফের হাতির হানায় ভাঙল বাড়ি,পালিয়ে প্রাণ বাঁচে এক কিশোর। ঘটনাটি ঘটে জলদাপাড়া জাতীয় উদ্যান সংলগ্ন লোকালয়ে।গভীর রাতে মাদারিহাটের উত্তর খয়েরবাড়ির লোকালয়ে হানা দেয় একটি দাঁতাল হাতি। এলাকার বাসিন্দা জনৈক নরেশ সুব্বার টিনের বাড়ি ভেঙে তছনছ করতে শুরু করলে ,টের পেয়ে পালিয়ে গিয়ে বরাত জোরে বেঁচে যায় ঘরে ঘুমিয়ে থাকা তাঁর পুত্র সায়েদ সুব্বা। এরপর হাতিটি ঘরে মজুত রাখা চালের বস্তা সাবাড় করে রাতের অন্ধকারে জঙ্গলে চলে যায়। অন্যদিকে অতিরিক্ত লাভের আশায় পাটের বদলে মাদারিহাট এলাকার কৃষকরা ভুট্টা চাষ করেচিলেন। আর তাতেই নিজেদের অজান্তেই বিপদ ডেকে আনেন তারা।

    আরও পড়ুনঃ রায়মাটাং - চিঞ্চুলাগামী রাস্তার পরিস্থিতি বেহাল! চরম সমস্যায় স্থানীয় বাসিন্দারা

    পাটের বদলে বিঘের পর বিঘে ভুট্টা চাষের মাশুল এখন গুনতে হচ্ছে প্রতি রাতে। কমপক্ষে একশোটি হাতির একটি দল রাত নামতেই উপদলে ভাগ হয়ে হানা দিচ্ছে লোকালয় সংলগ্ন ফসলের খেতে। ভুট্টা খেতে হানার পাশাপাশি গৃহস্থের ঘরে মজুদ শস্যদানার ওপর হামলা চালাচ্ছে এই দলটি। যার ফলে নিয়মিত ভাঙছে ঘরবাড়ি, সঙ্গে সাবার করছে ভুট্টার গাছ। হাতির হামলা ঠেকাতে একের পর এক পন্থা অবলম্বন করছেন চাষীরা। কেউ বা পরনের পুরনো জামা কাপড় তারে বেঁধে ঘিরে ফেলছেন চাষের জমি।

    তাদের অনুমান মানুষের অস্তিত্ব টের পেলে হাতিরা হামলা করবে না। আখেরে লাভের লাভ কিছুই হয়নি। হাতির হানা যেন প্রতিদিনই সন্ধে নামার পর ক্রমশই বেড়েই চলেছে।  এমনকি নিজের ভিটেমাটিকে হাতির হামলা থেকে রক্ষা করার জন্য 'অপক্ক ভুট্টা' চাষের জমি থেকে তুলে ফেলতে বাধ্য হয়েছেন অনেকই।

    আরও পড়ুনঃ বক্সা ব্যাঘ্র প্রকল্পের গভীর জঙ্গলে দেখা মিলল ক্লাউডেড লেপার্ডের

    ওই হাতিরাই এখন প্রধান মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাড়িয়েছে বন দপ্তরের সামনে। বনকর্তারা নিশ্চিত করেছেন, ক্ষেতের ওই সবুজ ফসল শেষ না হওয়া পর্যন্ত কোনও ভাবেই জলদাপাড়ার জঙ্গল ছাড়বে না নাছোড়বান্দা হাতিরা। প্রাথমিক সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, গত দুমাসে ২০০ বিঘার কাছাকাছি ভুট্টার ক্ষেত নষ্ট করেছে হাতির পাল। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৬০টি কাঁচা-পাকা বাড়ি। হাতিদের এই হামলা থেকে কার্যত বেসামাল স্থানীয় বাসিন্দা থেকে বনকর্মীরা প্রত্যেকেই।

    Annanya Dey
    Published by:Soumabrata Ghosh
    First published:

    Tags: Alipurduar, Madarihat

    পরবর্তী খবর