গুগলে ‘সুইসাইড’ টাইপ করলেই...

Jul 20, 2017 07:52 PM IST | Updated on: Jul 20, 2017 07:52 PM IST

#কলকাতা: জীবনে এমন অনেক সময় আসে, নিরাশা ছাড়া আর কিছুই বেঁচে থাকে না, হাতের মুঠোয় ৷ আর তখনই আত্মহত্যার পথ বেছে নেন অনেকে ৷ এরকমই এক গল্প দিল্লির মেয়ে মোহনার (পরিবর্তিত নাম) ৷

মোহনার বয়স ৪০ ৷ হাজার চেষ্টার পরও কিছুতেই বিয়ে হচ্ছে না তাঁর ৷ কলেজে পড়তে প্রেম হয়েছিল একবার ৷ কিন্তু সে প্রেম টেকেনি ৷ সেই দুঃখ থেকে বেরিয়ে কোনওমতে নিজেকে বদলে ফেলেছিলেন মোহনা ৷ পড়াশুনো করে, অনেক কষ্টে চাকরিও জোগার করেন মোহনা ৷ কিন্তু তাতেও কিছু হয় না ৷ বিয়ে না হওয়ায় আশেপাশের লোকের নানা কুকথা শুনতে হয় মোহনাকে ৷

গুগলে ‘সুইসাইড’ টাইপ করলেই...

তবে এতদিন পরিবার পাশে ছিল মোহনার ৷ বিপত্তি ঘটল, মোহনার ভাইয়ের বিয়ের পর থেকেই ৷ ভাই সোজা সবাইকে জানিয়ে দিল, দিদির ভার বহন করতে পারবে না সে৷ এদিকে নানা ঝামেলায় চাকরিটা ছেড়ে দিয়েছিলেন মোহনা ৷ নিজেই নানা বিয়েরওয়েবসাইটে বিয়ের বিজ্ঞাপন দিয়েছিলেন ৷ কিন্তু বিয়ে তো দূর ৷ যৌন সম্পর্কে লিপ্ত হওয়ার জন্য নানা অনুরোধ আসতে শুরু করে ৷ ধীরে ধীরে অন্ধকারে তলিয়ে যেতে থাকে মোহনা ৷ কোনও উপায় বা বেঁচে থাকার সম্বল খুঁজে পায় না ৷ মনে মনে ঠিক করে ফেলে সে আর বাঁচবে না ৷ আত্মহত্যার পথই বেছে নেবেন ৷

আত্মহত্যার কথা ভাবতে ভাবতেই কম্পিউটারে বসে পরে মোহনা ৷ উপায় খুঁজতে থাকে কীভাবে সবচেয়ে সহজে মৃত্যুকে নিজের কাছে ডাকতে পারবে সে ৷ ঠিক যখনই গুগলে টাইপ করেন সুইসাইড শব্দটি৷ তখনই স্ক্রিনে ভেসে আসে ‘AASRA’ ও একটা ফোন নম্বর ৷ থমকে যায় মোহনা ৷ একটু ভেবে ফোন করে, স্ক্রিনে আসা সেই নম্বরে ! বন্ধুত্ব নীরার (পরিবর্তন নাম) সঙ্গে ৷ মন খুলে কথা বলে মোহনা ৷ রোজ কথা বলতে থাকে ৷ আশার আলো দেখতে পায় নীরার কথায় ৷ ফের বেঁচে ওঠার তীব্র ইচ্ছে জেগে ওঠে মোহনার মনে ৷

আজ মোহনা ফের চাকরি করে ৷ সাহস করে বাড়ি থেকে বেরিয়ে এসেছে মোহনা ৷ একাই, নিজের মতো করে জীবনটাকে বেঁচে নিচ্ছে ৷ আর সুযোগ পেলেই, দেখা করে আসছে মা, বাবা, ভাইয়ের সঙ্গে ৷ মোহনার ভাইয়ের একটা মেয়ে হয়েছে, মোহনা তার নাম রেখেছে নীরা !

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES