আজকের খবরের কাগজের সেরা খবর

Jan 08, 2017 12:06 PM IST | Updated on: Jan 08, 2017 12:06 PM IST

প্রতিদিনের ব্যস্ততায় খবর কাগজ খুঁটিয়ে পড়া সম্ভব হয় না ৷ অনেক সময় গুরুত্বপূর্ণ খবর চোখ এড়িয়ে যায় ৷ তাছাড়া একাধিক কাগজও পড়ার মতো সময় কারোর হাতেই নেই ৷ তাই আসুন এক নজরে, একজায়গায় দেখে নিন কলকাতার বিভিন্ন কাগজের সেরা খবর গুলি ৷ রবিবারের গুরুত্বপূর্ণ খবরগুলি হল-

anandabazar11

আজকের খবরের কাগজের সেরা খবর

১)শিক্ষক-মন জয়: অবসরের বয়স বেড়ে ৬২, মিলবে ভ্রমণ ভাতা ও স্বাস্থ্য বিমা

কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের অবসরের বয়স ৬০ থেকে ৬২ করার কথা ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শনিবার নেতাজি ইন্ডোরের শিক্ষা সম্মেলনে তাঁর এই ঘোষণায় খুশির হাওয়া শিক্ষকমহলে। একই সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীর বার্তা, তাঁর সিদ্ধান্ত অপছন্দ হলে শিক্ষকেরা সরাসরি সমালোচনা করতে পারেন। তবে যেন রাজনৈতিক রং না দেখেন, সংঘাতের পথে না যান। তাঁকে ভুলে না যেতেও অনুরোধ করেন মুখ্যমন্ত্রী।

২) নায়কের সঙ্গে সিনেমার গপ্পো বাঙালি বন্দিদের

হাসপাতালে ‘সাহেব’-এর বেড ঘিরে দাঁড়িয়ে কয়েক জন। কথা চলছে টুকটাক। ‘‘টিভিতে ‘দাদার কীর্তি’ দেখেছি। সেই আপনাকে যে জেলে দেখতে পাব, বিশ্বাসই হচ্ছে না!’’ উঠল ‘গুরুদক্ষিণা’র কথাও। ‘হেবি হেবি’ সব গান ওই বইটায়...! এত ক্ষণে একটু ধাতস্থ লাগছিল নায়ককে। রিল নয়, রিয়েল লাইফে যিনি আপাতত ভুবনেশ্বরের ঝাড়পদা জেলের বিচারাধীন বন্দি। শনিবার সকালে ওই জেলেরই আরও কয়েক জন বাঙালি বন্দি দাঁড়িয়ে ছিলেন তাঁকে ঘিরে। ঝাড়পদায় তাপস পালের আসার খবর শুনেই যাঁরা সকাল সকাল চলে এসেছেন জেল হাসপাতালে। জেল-সূত্রেই পাওয়া গেল তাঁদের কথোপকথনের কয়েক টুকরো। ঝাড়পদা জেলের সুপার রবীন্দ্রনাথ সোঁয়াই শনিবার সন্ধেয় বলছিলেন, জনা ২০-২৫ বাঙালি বন্দি রয়েছেন এই জেলে। শুক্রবার রোজ ভ্যালি মামলায় জেল হেফাজত হওয়ার পরে তাপস ঝাড়পদায় এসেছেন শুনেই তাঁকে দেখার বাসনা জেগেছিল অনেকের। কিন্তু বাদ সাধে নায়ক-সাংসদের অসুস্থতা।

৩) ‘ভরসার’ রাজনাথ, জেটলিই বিঁধলেন মমতাকে

গত কাল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন, ‘বিপজ্জনক’ নরেন্দ্র মোদীকে সরিয়ে লালকৃষ্ণ আডবাণী, অরুণ জেটলি বা রাজনাথ সিংহের মতো কাউকে প্রধানমন্ত্রী করে জাতীয় সরকার গঠনের চেষ্টা হলে তিনি সমর্থন করবেন। তৃণমূল নেত্রীর এই রাজনৈতিক আহ্বানের পর চব্বিশ ঘণ্টাও কাটল না, দলের জাতীয় কর্মসমিতির বৈঠকে জেটলি-রাজনাথকে দিয়েই মমতার সমালোচনা করালেন বিজেপি নেতৃত্ব। বৈঠকে রাজনৈতিক প্রস্তাব পেশের সময় বাংলায় ‘আইনশৃঙ্খলার অবনতি’ নিয়ে গত সন্ধ্যাতেই সরব হয়েছিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংহ। আজ কর্মসমিতির বৈঠকে অর্থনৈতিক প্রস্তাব পেশ করে জেটলি বলেন, ‘‘নোট বাতিলের পরেও বিভিন্ন রাজ্যে আয় ও রাজস্ব আদায় বেড়েছে। ব্যতিক্রম পশ্চিমবঙ্গ।’’ রাজস্ব বাড়ানোর প্রসঙ্গে উত্তরপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র এবং হরিয়ানার দৃষ্টান্তও দেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী। সেই সঙ্গে বলেন, আসলে যে রাজ্য নিজের প্রশাসন ঠিক মতো চালাতে পেরেছে তারাই আয় বাড়িয়েছে। পরে এ ব্যাপারে সব রাজ্যের খতিয়ান বৈঠকে তুলে ধরে দেখানোর চেষ্টা হয়, বিজেপি শাসিত রাজ্যগুলি কী ভাবে বাকিদের টেক্কা দিচ্ছে।

৪) শ্রীনিদের আস্ফালন ধাক্কা খেল কমিশনের বাউন্সারে

শনিবাসরীয় ভারতীয় ক্রিকেট সার্কিটের আলোচনার প্রধান বিষয়বস্তুর নাম হওয়া উচিত ছিল বিরাট কোহালি। দেশজ ক্রিকেটের তিন ফর্ম্যাটের বর্তমান অধিনায়ক এ দিন যে অকপট শ্রদ্ধার্ঘ্য পূর্বসূরির প্রতি পেশ করেছেন, তা যে কোনও ভবিষ্যৎ অধিনায়কের কাছে টেমপ্লেট হয়ে থাকা উচিত। কোহালি তো এ দিন বলে দিয়েছেন যে, মহেন্দ্র সিংহ ধোনি যত দিন টিমে থাকবেন সব সিদ্ধান্ত তাঁর সঙ্গে আলোচনা করেই নেবেন। কোথাও ধোনিকে বুঝতে দেবেন না, তিনি আর টিমটার অধিনায়ক নন। আর পাঁচটা দিন হলে বোধহয় তাই হত। পূর্ণ আলোচনাটা ‘কোহালি অন ধোনি’ নিয়েই চলত। কিন্তু চলল না। হল না। বরং শনিবার রাতে ক্রিকেট সার্কিট আলোচনার দখল নিয়ে ফেললেন নারায়ণস্বামী শ্রীনিবাসন।

bartaman_big11

১) অধ্যাপকদের অবসরের বয়স ৬২ বছর করলেন মমতা

কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের অবসরের বয়সসীমা এক ধাক্কায় দু’বছর বাড়িয়ে ৬২ করে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শনিবার নেতাজি ইনডোর স্টেডিয়ামে অধ্যাপকদের সম্মেলনে তাঁদের বহু দিনের দাবি কিছুটা হলেও পূরণ করেছেন তিনি। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) সুপারিশ অনুযায়ী এই শিক্ষকদের অবসরের বয়স অবশ্য ৬৫ করার কথা। তবে এই প্রাপ্তিতেই শিক্ষকদের সিংহভাগ খুশি। কেবল এই ঘোষণা করেই থেমে থাকেননি মুখ্যমন্ত্রী। ঝাঁপি থেকে বের করেছেন একের পর এক উপহার। দেশে-বিদেশে ভ্রমণের ভাতা, গবেষণার জন্য দু’বছরের ছুটি বা উচ্চমূল্যের স্বাস্থ্যবিমা— সবই রয়েছে তাতে। এমনকী, বিশ্বভারতীর ধাঁচে বোলপুরে বিশ্ববাংলা বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে তোলার ঘোষণাও করেছেন তিনি।

২) গ্রাহকরা অন্ধকারে, জনধন অ্যাকাউন্টে লক্ষ লক্ষ টাকার লেনদেন শ্যামনগরে

জগদ্দল থানার শ্যামনগরে একটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের গ্রাহকদের জনধন অ্যাকাউন্টে গত কয়েক মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা লেনদেন হওয়ার কথা জানাজানি হতেই এলাকায় তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে। এই ঘটনা জানার পর গ্রাহকরা রীতিমতো ক্ষোভে ফেটে পড়েন। তাঁরা এই বিষয়টির সঠিক তদন্ত করার জন্য জগদ্দল থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। বারাকপুর পুলিশ কমিশনারেটের এক কর্তা বলেন, গ্রাহকরা অ্যাকাউন্ট খোলার পর, আর কোনও টাকা লেনদেন করেননি। অথচ বাস্তবে দেখা যাচ্ছে, বছরখানেক ধরে তাঁদের অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে বহু টাকা লেনদেন হয়েছে।

৩) জাল নোট চক্রের চাঁই বাংলাদেশি জঙ্গি ধৃত

পশ্চিমবঙ্গসহ ১৪টি রাজ্যে জাল নোট পাচারে অন্যতম মাথা তথা জেএমবি’র জঙ্গি রিপন শেখ ওরফে লায়ন ওরফে লিটন শেখকে অবশেষে এনআইএ হাতে পেল। এপার-ওপার দু’পারেই রয়েছে তার আস্তানা এবং নাগরিক পরিচয়পত্র। ওই রাজ্যগুলির মধ্যে অসম, বিহার, ঝাড়খণ্ড, গুজরাত, দিল্লি, মধ্যপ্রদেশ, তামিলনাড়ু অন্যতম। দীর্ঘদিন ধরে এই জঙ্গির খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছিল বাংলাদেশের জঙ্গি দমনকারী সংস্থা র্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নও (র্যাব)। কিন্তু কিছুতেই জাল নোট কারবারের ‘মাস্টারমাইন্ড’ এই জঙ্গির নাগাল পাচ্ছিল না। অবশেষে শুক্রবার গভীর রাতে বাংলাদেশের চাঁপাই নবাবগঞ্জের শিবগঞ্জের দিকের কাঁটাতারের বেড়া টপকে মালদহের বৈষ্ণবনগরের সবদলপুর সীমান্ত দিয়ে এ দেশে ঢোকার সময় টহলরত বিএসএফের জওয়ানদের হাতে ধরা পড়ে যায় ৩০ বছরের ওই জঙ্গি। এরপরই দীর্ঘ জিজ্ঞাসাবাদের পর সীমান্তরক্ষী বাহিনী তাকে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা এনআইএ’র হাতে তুলে দেয়।

৪) রোজভ্যালি কর্তার অ্যাকাউন্ট সুইস ব্যাংকেও, জেরায় হদিশ

সুইস ব্যাংকে রোজভ্যালি কর্তা গৌতম কুণ্ডুর অ্যাকাউন্ট রয়েছে বলে জেনেছে সিবিআই। চিটফান্ডের টাকা ঘুরপথে নিয়ে গিয়ে সেখানে তিনি জমা করেছেন বলে জানা গিয়েছে। এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটের (ইডি) হাতে ধৃত পরশমল লোধার জেরার সূত্র ধরেই এই অ্যাকাউন্টের হদিশ পেয়েছেন গোয়েন্দারা। সেই তথ্য কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার আধিকারিকদের হাতেও চলে এসেছে বলে জানা যাচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে ইতিমধ্যেই জোরদার তদন্ত শুরু করেছেন আধিকারিকরা। তাঁদের হাতে আসা তথ্য অনুযায়ী, এই অ্যাকাউন্টের বিষয়ে রোজভ্যালি কর্তা শাসকদলের দুই বড় মাপের নেতাকে জানিয়েছিলেন। কিন্তু তাঁর অ্যাকাউন্টের তথ্য তিনি তৃণমূলের ওই দুই নেতাকে কেন জানাতে গেলেন, তার যোগসূত্র খোঁজার চেষ্টা চলছে। কোনওভাবে তাঁর সেই অ্যাকাউন্ট রাজনৈতিক নেতাদের টাকা মজুতের কাজে ব্যবহার হয়েছে কি না, তাও খুঁজে দেখা হচ্ছে।

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES