রিষড়ায় তথ্যপ্রযুক্তি কর্মীর রহস্যমৃত্যু, উঠে আসছে ত্রিকোণ প্রেমের তত্ত্ব

Feb 27, 2017 12:36 PM IST | Updated on: Feb 27, 2017 12:36 PM IST

#রিষড়া: জন্মদিনেই নিখোঁজ হয়ে যাওয়া ও ওইদিন রাতেই তথ্যপ্রযুক্তি কর্মীর রহস্যমৃত্যুকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়াল এলাকায় । হুগলির রিষড়ায় রেললাইনের ধারে উদ্ধার হয় সায়র করের ক্ষতবিক্ষত দেহ। দুই বন্ধুর বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ জানিয়েছে নিহতের বাবার। ঘটনার পিছনে ত্রিকোণ প্রেম রয়েছে বলে অনুমান পুলিশের ৷

২৩ ফেব্রুয়ারি জন্মদিন ছিল তথ্যপ্রযুক্তি কর্মী সায়র করের। বন্ধুকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাতে ওইদিন সকালে শ্রীরামপুরের মাহেশে আসে সুরজিৎ বণিক। কলেজে পড়ার সময় হাওড়ার সালকিয়ার বাসিন্দা সুরজিতের সঙ্গে সায়রের বন্ধুত্ব হয়। প্রথমে দুই বন্ধু বাইকে করে ঘোরাঘুরি করে। এরপর দুপুরে বাড়িতে এলে, সায়রের মোবাইলে একটি ফোন আসে। দমদম ক্যান্টনমেন্টের বাসিন্দা বিশাল বৈঠা ফোনটি করে বলে জানা গিয়েছে ৷ ফোন পেয়ে খাবার ফেলেই দুই বন্ধুতে হন্তদন্ত হয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে পড়ে।

রিষড়ায় তথ্যপ্রযুক্তি কর্মীর রহস্যমৃত্যু, উঠে আসছে ত্রিকোণ প্রেমের তত্ত্ব

বিশালের বাড়ি যাচ্ছে বলে বেরোয় দু'জন। এরপর রাত ৯টা ২০নাগাদ ছেলের সঙ্গে ফোনে কথা বলেন রতনকুমার কর। সায়র ফোনে বাবাকে জানায়, সে চন্দননগর থেকে ফিরছে। ভদ্রেশ্বরের কাছে ট্রেনে রয়েছে। কিন্তু তারপর ছেলের সঙ্গে আর কোনও যোগাযোগ হয়নি পরিবারের। সেই রাতেই রিষড়া স্টেশনের কাছে রেললাইনের ধারে সায়রের ক্ষতবিক্ষত দেহ উদ্ধার হয়। ছেলে বাড়ি না ফেরায় পরেরদিন সকালে শেওড়াফুলি জিআরপিতে যান সায়রের বাবা। সেখানেই ছেলের দেহ শনাক্ত করেন তিনি। এরপর শনিবার জিআরপিতে বিশাল ও সুরজিতের বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ দায়ের করেন রতনকুমার কর।

ঘটনার পিছনে ত্রিকোণ প্রেম রয়েছে বলে সন্দেহ করা হয়েছে। জানা গিয়েছে, ফেসবুক বন্ধু বিশালের মাধ্যমেই এক তরুণীর সঙ্গে বন্ধুত্ব হয় সায়রের। দমদম ক্যান্টনমেন্টে বাড়ি ওই তরুণীর। ২৩ তারিখ সায়রকে জন্মদিনের শুভেচ্ছাও জানায় সে।

সায়রের বাবার অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করেছে শেওড়াফুলি জিআরপি। সায়রের মোবাইলের কললিস্ট খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES