সম্পর্কের টানাপোড়েনে দেওরের সঙ্গে মিলে দ্বিতীয় স্বামীকে খুন করলেন স্ত্রী

Dolon Chattopadhyay | News18 Bangla
Updated:Feb 15, 2017 04:59 PM IST
সম্পর্কের টানাপোড়েনে দেওরের সঙ্গে মিলে দ্বিতীয় স্বামীকে খুন করলেন স্ত্রী
Photo : AFP
Dolon Chattopadhyay | News18 Bangla
Updated:Feb 15, 2017 04:59 PM IST

#দুর্গাপুর: তালাবন্ধ বাক্সের ভিতর থেকে মৃতদেহ উদ্ধারকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়াল এলাকায় ৷ মৃত ব্যক্তির নাম দেবানন্দ বাউরি ৷ রবিবার অন্ডালের খান্দরা নীলকণ্ঠতলা ভুঁইয়াপাড়ায় একটি বাড়ি ভিতর থেকে বাক্সবন্দি দেহ উদ্ধার হয় । বাড়ির মালকিন লালমতি দেবী ও তার দেওর অমরজিত ভুইয়াকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ সোমবার তাদের দুর্গাপুর মহকুমা আদালতে পেশ করা হলে পাঁচদিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ৷

জানা গিয়েছে, বিধবা লালমতি দেবীর সঙ্গে অবৈধ সম্পর্ক ছিল দেবানন্দের ৷ এলাকায় গুজব রয়েছে যে লালমতির সঙ্গে তার বিয়েও হয়েছিল ৷ এই বিয়েতে মত ছিল না লালমতি দেবীর শ্বশুর বাড়ির । বছর ৩৫-র দেবানন্দ ঝাড়খণ্ডের বাসিন্দা ৷

লালমতি দেবীর প্রয়াত স্বামী ইসিএলের কর্মী ছিলেন ৷ ২০০৯ সালে মৃত স্বামীর চাকরি তার স্ত্রীকে পাইয়ে দেবার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল দেবানন্দ ।  তারপর দু'জনের মধ্যে সম্পর্ক তৈরি হয় । ২০১২ সালে বিয়েও করেন বলে দুজব ছড়ায় এলাকায় ৷  দুই সন্তানের মা লালমতি ও দেবানন্দ । এরপর ২০১৩ সালে ইসিএলে চাকরি পায় লালমতি দেবী ।

শুক্রবার থেকে নিখোঁজ ছিল দেবানন্দ । রবিবার স্থানীয় বাসিন্দাদের সন্দেহ হওয়ায় বাড়ির ভিতরে রাখা ট্রাঙ্কের তালা ভেঙে উদ্ধার হয় মৃতদেহ । কথার অসঙ্গতি মেলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য প্রথমে লালমতি দেবীকে আটক করে অন্ডাল থানার পুলিশ ।

পুলিশি জেরায় ভেঙে পড়ে লালমতি দেবী । দেবানন্দকে খুনের কথা স্বীকার করেছেন তিনি। শুক্রবার রাতে লালমতি দেবি, অমরজিত ভুঁইয়া (লালমতি দেবির দেওর) ও দেবানন্দ একসঙ্গে মদ্যপান করে । তারপর অমরজিতের সঙ্গে বচসা বাধে দেবানন্দের ৷ এর মধ্যে হাতাহাতি শুরু হতেই দেবানন্দকে ধাক্কা মারেন অমরজিত ৷ মাথায় লাগে দেবানন্দের । এরপর তাকে শ্বাসরোধ করে খুন করে অমরজিত । মৃতদেহ ট্রাঙ্কের মধ্যে রেখে তালা বন্ধ করে স্থানিয় একটি পার্কে ইঁটের নিচে লুকিয়ে রাখে চাবি ।

First published: 04:56:04 PM Feb 15, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर