জৈব কৃষি বদলে দিয়েছে কৃষি কাজের চেহারা ,  জৈবকৃষি জাত পণ্য দিয়ে নবান্ন উৎসবে মাতলেন পাঁচ গ্রামের মানুষ

Akash Misra | News18 Bangla
Updated:Jan 12, 2017 08:07 PM IST
জৈব কৃষি বদলে দিয়েছে কৃষি কাজের চেহারা ,  জৈবকৃষি জাত পণ্য দিয়ে নবান্ন উৎসবে মাতলেন পাঁচ গ্রামের মানুষ
File Photo
Akash Misra | News18 Bangla
Updated:Jan 12, 2017 08:07 PM IST

#বাঁকুড়া: যথেচ্ছ রাসায়নিক সারের ব্যবহার নয় । ব্যবহার নয় শরীরের পক্ষে ভয়ংকর ক্ষতিকর রাসায়নিক কীটনাশকেরও । হাতের কাছে পাওয়া গাছ গাছড়া ও অন্যান্য জৈব পদার্থ দিয়ে তৈরি জৈব সার ও কীটনাশক ব্যবহার করে পাওয়া সম্ভব ভালো ফলন । সব্জি থেকে ধান গম আলু সব ক্ষেত্রেই ফলাফল মোটের ওপর একই রকম । গত একবছর ধরে এই বিষয়টিকে মাথায় রেখে জৈব পদ্ধতিতে চাষ করে চলেছেন পাঁচটি গ্রামের হাজার খানেক মানুষ । এবার নিজেদের হাতে উৎপাদিত জৈব কৃষি জাত সামগ্রীকে জনপ্রিয় করতে নিজেদের হাতে উৎপাদিত সমগ্রী দিয়ে নিজেরাই মেতে উঠলেন নবান্ন উৎসবে ।

বছর খানেক আগে বাঁকুড়ার ছাতনা ব্লকের শুশুনিয়া পাহাড় লাগোয়া ঝুজকা , বিষকোদর, আগয়া, পেচাশিমুল ও জামথোল গ্রামে একটি সেচ্ছাসেবী সংস্থার হাত ধরে জৈব কৃষিকাজ শুরু করেন এলাকার মানুষ । ভালো ফল মেলায় ধীরে ধীরে ওই পাঁচটি গ্রামের প্রায় আট’শো কৃষিজীবী পরিবার জৈব প্রথায় চাষাবাদ শুরু করেন । জৈব প্রথায় চাষাবাদ করায় কৃষিকাজের খরচ অনেকটাই কমে আসে । এর পাশাপাশি উৎপাদনের হার প্রায় একই থাকায় লাভের অঙ্ক একলাফে বেশ কিছুটা বেড়ে যায় । ফলে স্বাভাবিক ভাবেই দ্রুত এলাকায় জনপ্রিয়তা বাড়ে জৈব চাষের । জৈব চাষের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধির লক্ষে ও জৈব ফসলের নিজস্ব বাজার তৈরি করার জন্য

এবার বিষয়টিকে প্রচারের আলোয় আনতে চান এলাকার চাষিরা । সেজন্য শুশুনিয়া পাহাড়ের কোলে গন্ধেশ্বরী নদীর তীরে আজ পাঁচ গ্রামের মানুষ মেতে উঠলেন নবান্ন উৎসবে । নিজেদের হাতে তৈরি জৈব ফসল দিয়ে এই নবান্ন উৎসব সারলেন গ্রামবাসীরা । জৈব কৃষি নিয়ে বিশেষজ্ঞদের আলোচনা সভা ও কৃষি জাত পন্যের প্রদর্শনীর পাশাপাশি ব্যবস্থা ছিল নুলো ডুবিয়ে খাওয়ার আয়োজনও । কিন্তু এলাকার চাষিদের ক্ষোভ জৈব চাষে উৎপাদিত কৃষি পন্যের আলাদা করে বাজার না থাকায় রাসায়নিক সার ও কীটনাশকে উৎপাদিত সামগ্রীর দামেই বাজারে জৈব ফসল বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন চাষিরা । তবে আশার কথা শুনিয়েছেন রাজ্য বীজ নিগমের অন্যতম কর্তা শুভাশিস বটব্যাল । তাঁর দাবি জৈব চাষে উৎপাদিত ফসলের আলাদা বাজার তৈরির ব্যবস্থা করার কাজ চলছে । বিদেশের বাজারেও এই ফসল পাঠানোর চেষ্টা হচ্ছে ।

First published: 08:07:00 PM Jan 12, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर